Advertisement
২৩ জুন ২০২৪
Kalyan Banerjee

Kalyan Banerjee: রাজীব-অধ্যায় ‘অতীত’ বলেও তৃণমূল নেতৃত্বের সিদ্ধান্তকে ফের কটাক্ষ কল্যাণের

উদ্বোধনের মঞ্চ থেকে অনুষ্ঠান শেষ পর্যন্ত— পুরো সময়ই তাঁর কণ্ঠে রাজীব-প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতৃত্বকে কটাক্ষের সুর শোনা গিয়েছে।

মঙ্গলবার শ্রীরামপুরে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

মঙ্গলবার শ্রীরামপুরে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। —নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
শ্রীরামপুর শেষ আপডেট: ০২ নভেম্বর ২০২১ ২৩:১৬
Share: Save:

রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘ঘর ওয়াপসি’-কে অতীত বলে আখ্যা দিয়েছেন। তবে তৃণমূল নেতৃত্বের এ সিদ্ধান্তকে ফের খোঁচা দিতে ছাড়লেন না হুগলির শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজীবের উদাহরণ টেনে এনে কল্যাণের কটাক্ষ, দলবদলুরা তৃণমূলে ফিরে এসে হয়ত তাঁর থেকেও দলীয় নেতৃত্বের কাছের মানুষ হয়ে উঠবেন।

মঙ্গলবার শ্রীরামপুরে একটি কালীপুজোর উদ্বোধনে এসেছিলেন কল্যাণ। উদ্বোধনের মঞ্চ থেকে অনুষ্ঠান শেষ পর্যন্ত— সারাক্ষণই তাঁর কণ্ঠে রাজীব-প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতৃত্বকে কটাক্ষের সুর শোনা গিয়েছে। যদিও সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেছেন, ‘‘রাজীব ক্লোজড চ্যাপ্টার।’’ তবে মুখে এ কথা বললেও পুজো উদ্বোধনের মঞ্চে গানের মাধ্যমেও ব্যঙ্গ করেছেন তিনি। ওই মঞ্চে উঠে ভূপেন হজারিকার ‘গঙ্গা আমার মা, পদ্মা আমার মা’ গানটি ধরেন কল্যাণ। সেখানেও বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে ফিরে আসাদের দিকে কটাক্ষের সুর। গানের কথার অর্থ নিজের মতো করে পাল্টে কল্যাণ বলেন, ‘‘এ পার ও পার কোন পারে জানি না, ও আমি সবখানেতে আছি, মানে কখন তৃণমূল, কখন বিজেপি— সেটা বুঝতে পারছি না।’’ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি-তে গেলেও দু’নৌকোতেই পা রেখে চলেছেন দলবদলুরা, এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন কল্যাণ। গানের কথা খানিকটা পাল্টে তিনি বলেন, ‘‘ও আমি সব পারেতেই আছি... ও আমি মাঝ দরিয়ায় ভাসি, দৌড়ে চলে যাব মা বলে আবার চলে যাব মোদীর কাছে। দুই চোখে দুই জলের ধারা মেঘনা যমুনা, অর্থাৎ মমতাদি এক কোণে, মোদীজি আর এক কোণে।’’

প্রসঙ্গত, গত বছর ৩০ ডিসেম্বর তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি-তে যোগ দিয়েছিলেন রাজীব। তবে বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পাঁচ মাসের বেশি পার হওয়ার পর রবিবার, ৩১ অক্টোবর ফের তৃণমূলে ফিরে আসেন তিনি। ডোমজুড়ের প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ককে দলীয় নেতৃত্ব স্বাগত জানালেও এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রবিবারই কড়া প্রতিক্রিয়া জানান কল্যাণ। মঙ্গলবারও সেই একই ভঙ্গিতে বজায় ছিল। মঞ্চ ছেড়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েও কল্যাণের ব্যঙ্গোক্তি থামেনি। তাঁর কথায়, ‘‘যা বলার বলে দিয়েছি। এ রকম আরও অনেক কিছু রয়েছে।’’ এ বার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর নাম করে তাঁর মন্তব্য, হয়ত শুভেন্দুও কোনও দিন জোড়াফুল শিবিরে ফিরে আসতে পারেন। কল্যাণের সংযোজন, ‘‘দ্বিধাহীন কণ্ঠে বলি, ভাই শুভেন্দু রাগ করিস না ভাই। অনেক কথা বলে ফেলেছি। কোনও দিন তুইও (তৃণমূলে) চলে আসবি। তার তো কোনও ঠিক নেই। যাঁদের সমালোচনা করেছিলাম, আমি তাঁদের সকলকে বলছি, তোরা রাগ করিস না। তখন তোরা তৃণমূলের বিরুদ্ধে চলে গিয়েছিলি, তাই বলেছিলাম। আবার কবে কোন দিন চলে এসে আমার থেকে তৃণমূলের অনেক কাছের হয়ে যাবি তোরা!’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE