×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

সম্মান দেয়নি তৃণমূল, বিজেপি-তে যোগ দিয়ে দাবি কার্তিকের

নিজস্ব সংবাদদাতা
রায়গঞ্জ ২১ ডিসেম্বর ২০২০ ২০:৩৪
কার্তিক পালকে উত্তর দিনাজপুর বিজেপি নেতৃত্বের সংবর্ধনা— নিজস্ব চিত্র।

কার্তিক পালকে উত্তর দিনাজপুর বিজেপি নেতৃত্বের সংবর্ধনা— নিজস্ব চিত্র।

শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরে বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার পরে কালিয়াগঞ্জ পুরসভার পুর প্রশাসক কার্তিকচন্দ্র পাল তাঁর পুরনো দল তৃণমূলকে বিঁধলেন। সোমবার রায়গঞ্জ শহরের মহাত্মা গাঁধী রোডে বিজেপি-র জেলা কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘‘তৃণমূলে যোগ্য সম্মান পাইনি। যেখানে সম্মান নেই, সেখানে থাকা যায় না। যাঁর হাত ধরে তৃণমূলে প্রতিষ্ঠা পেয়েছিলাম সেই শুভেন্দু অধিকারীর একনিষ্ট অনুগামী হিসেবে এবং মোদিজীর নেতৃত্বে সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যেই পৃথিবীর সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক দল বিজেপি-তে যোগদান করেছি।’’

যদিও কার্তিকের অভিযোগকে উড়িয়ে জেলা তৃণমূলের মুখপাত্র সন্দীপ বিশ্বাস বলেন, ‘‘এক জন তৃণমূল যুব নেতাকে কালিয়াগঞ্জ শহরের এক নম্বর নাগরিকের সম্মান দেওয়া হয়েছে। এর থেকে বড় সন্মান আর কী পেতে পারেন?’’

গত ১৯ ডিসেম্বর মেদিনীপুরের অমিত শাহর জনসভায় শুভেন্দুর সঙ্গেই কার্তিক বিজেপি-তে যোগদান করেন। সোমবার বিজেপি-র জেলা কার্যালয়ে তাঁকে সংবর্ধনা জানান, দলের জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী-সহ নেতা-কর্মীরা। সাংবাদিক বৈঠকে কার্তিক অভিযোগ করেন, দীর্ঘদিন ধরে তাঁকে অসম্মান করা হয়েছে। তিনি তৃণমূলের কালিয়াগঞ্জ শহর কমিটির সভাপতি ছিলেন সেখান থেকে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। কালিয়াগঞ্জে দলের কোনও কর্মসূচীতে তাঁকে ডাকা হয় না। বহু উন্নয়নমূলক কাজে বাধা দিয়েছেন তৃণমূল। তাই তৃণমূল ছেড়ে রাজ্য ও দেশের সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে বিজেপিতে যোগদান করলেন।

Advertisement

কার্তিকের এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে সন্দীপের জবাব, ‘‘তৃণমূল দল কার্তিক পালকে কালিয়াগঞ্জ পুরসভার চেয়ারম্যান করেছে। এমনকি, চেয়ারম্যানের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও তাঁকে রাজ্য সরকার পুর প্রশাসক হিসেবে নিযুক্ত করেছেন। এর চেয়ে আর বড় সন্মান কী পেতে পারেন কার্তিক?’’

Advertisement