Advertisement
০৪ মার্চ ২০২৪
Murder

মাটিতে ‘গুলিবিদ্ধ’ দেহ, গাছে ঠেস দিয়ে রাখা সাইকেল, নন্দীগ্রামে যুবকের মৃত্যুতে রহস্য

মঙ্গলবার রাতে নন্দীগ্রাম ১ ব্লকের ডিজামতলা এলাকায় পাওয়া যায় দিব্যেন্দু মণ্ডল নামে এক যুবকের দেহ। তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন পথচারীরা।

নিহত দিব্যেন্দু মণ্ডল।

নিহত দিব্যেন্দু মণ্ডল। — নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
নন্দীগ্রাম শেষ আপডেট: ২৫ জানুয়ারি ২০২৩ ১৩:২০
Share: Save:

যুবককে গুলি করে খুনের অভিযোগ উঠল পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামে। নিহতের নাম দিব্যেন্দু মণ্ডল (৪২)। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে পাঠিয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য। প্রাথমিক ভাবে ওই ঘটনায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে নন্দীগ্রাম ১ ব্লকের ডিজামতলা এলাকায় পাওয়া যায় দিব্যেন্দুর দেহ। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ বাড়ি থেকে বেশ কিছুটা দূরে দিব্যেন্দুকে পড়ে থাকতে দেখেন পথচারীরা। খবর চাউর হতেই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলের পাশেই একটি গাছের গায়ে ঠেস দিয়ে রাখা ছিল দিব্যেন্দুর সাইকেল। খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থলে যায় নন্দীগ্রাম থানার পুলিশ। তাঁকে উদ্ধার করে নন্দীগ্রাম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত বলে জানান।

দিব্যেন্দুর ভাই দীপঙ্করের বক্তব্য, ‘‘গ্রামের এক জন বাড়িতে ফোন করে জানায় যে, দাদাকে কেউ গুলি করে রাস্তার পাশে ফেলে দিয়ে গিয়েছে। খবর পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে দেখি দাদার মাথা থেকে ব্যাপক রক্তপাত হচ্ছে। তাঁকে কয়েক জন তুলে হাসপাতালে নিয়ে যায়। দাদার মাথায় একটা ছোট্ট গর্ত ছিল। দাদা সম্ভবত গাছের গায়ে সাইকেল রেখে কারও সঙ্গে কথা বলছিল। সেখানেই তাঁকে বোধ হয় গুলি করা হয়েছে।’’

দীপঙ্করের দাবি, “আমরা হাসপাতাল সূত্রেও জানতে পারলাম যে, দাদাকে গুলি করা হয়েছে। আমার দাদা লোকজনকে চাকরিতে ঢোকায় বলে শুনেছি। সকালে বেরিয়ে যায়। রাতে ফিরে আসে। বাড়ির সকলের সঙ্গে যোগাযোগ হয় না। তবে তাঁর মৃত্যুর পিছনে কার হাত আছে তা নিয়ে আমরা সম্পূর্ণ অন্ধকারে।’’ নন্দীগ্রাম থানা সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রাথমিক ভাবে অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। তবে গুলিবিদ্ধ হয়ে না কি অন্য কোনও কারণে দিব্যেন্দুর মৃত্যু হয়েছে তা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসার পর জানা যাবে বলে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE