Advertisement
২৭ জানুয়ারি ২০২৩
deadbody

Dead body: তালাবন্ধ ফ্ল্যাটে বৃদ্ধার ঝুলন্ত বিবস্ত্র মৃতদেহ

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জেনেছে,  দিন পাঁচেক ধরে  মোবাইল বন্ধ থাকায় কেউই বৃদ্ধার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছিলেন না।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কৃষ্ণনগর  শেষ আপডেট: ২৯ মার্চ ২০২২ ০৮:১১
Share: Save:

জনবহুল এলাকায় বাইরে থেকে তালাবন্ধ ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হল এক বৃদ্ধার ঝুলন্ত পচন ধরা দেহ।

Advertisement

পুলিশ জানায়, মৃতার নাম রত্না সরকার (৭১)। বাড়ি কৃষ্ণনগরের পোস্ট অফিস মোড় সংলগ্ন এলাকায়। সোমবার বিকেলে ঘরের ভিতর ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁর বিবস্ত্র মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে তাঁর মৃত্যুর কারণ স্পষ্ট হয়নি। মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

কৃষ্ণনগরের সবচেয়ে জনবহুল এলাকায় ফ্ল্যাটবাড়িতে থাকতেন বৃদ্ধা। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এক সময়ে প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক ছিলেন তিনি। অবিবাহিত, একাই থাকতেন। তাঁরা তিন বোন। ছোট বোন কৃষ্ণনগরেই থাকেন। তবে তাঁদের মধ্যে তেমন নিয়মিত যোগাযোগ ছিল না। তিনি নিজেই রান্না করে খেতেন বলে প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন। মাঝে-মধ্যে তাঁর বন্ধুরা আসতেন। তাঁরাই নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জেনেছে, দিন পাঁচেক ধরে মোবাইল বন্ধ থাকায় কেউই বৃদ্ধার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছিলেন না। এ দিন তাঁর দুই বন্ধু খোঁজ নিতে এসে দেখেন ফ্ল্যাটের কোলাপসিবল গেটের বাইরে থেকে তালা দেওয়া। ডাকাডাকি করে সাড়া না পেয়ে তাঁরা নেমে আসেন। এর পর তাঁরা বৃদ্ধার বোনের বাড়িতে খোঁজ নিতে যান। তাঁদের কাছে বিষয়টি জেনে রত্নার ভগ্নিপতি ও বোনপো রাতে ফ্ল্যাটে আসেন। কিন্তু কিছুই বুঝতে না পেরে কোতোয়ালি থানায় গিয়ে তাঁরা পুলিশকে খবর দেন।

Advertisement

পুলিশ আসার আগেই অবশ্য তাঁরা দরজা ঠেলতেই ভিতর থেকে বিকট গন্ধ বেরিয়ে আসে। গেটে বাইরে থেকে তালা দেওয়া থাকলেও দরজা ভেজানো ছিল। ঠেলতেই তা খুলে যায়। পুলিশ এসে তালা ভেঙে ভিতরে ঢুকে দেখে, ভিতরের ঘরে পাখার ব্লেড থেকে কাপড়ের ফাঁসে বৃদ্ধার মৃতদেহ ঝুলছে। দেহে পচন ধরে গিয়েছে। মৃতার বোনপো সোমেশ্বর গুহ বলেন, “গোটা বিষয়টি নিয়ে আমাদের খটকা লাগছে। প্রথমত কোলাপসিবল গেটের বাইরের দিকে তালা দেওয়া ছিল। দরজা ভেজানো ছিল। তার মানে বাইরে থেকে তালা দেওয়া হয়েছে। তার মানে কি কেউ দরজা ভেজিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে এসে গেটে তালা দিয়ে চলে গিয়েছে?” তিনি জানান, ঘরে আলমারির গায়ে চাবি ঝুলছিল। ভিতরে কোনও টাকাপয়সা ও গয়না পাওয়া যায়নি। তাঁর প্রশ্ন, “উনি যদি আত্মঘাতীই হবেন তা হলে তার আগে বিবস্ত্রই বা হবেন কেন?” পুলিশও বলছে, বিষয়টিতে রহস্য আছে। এটা খুন না আত্মহত্যা, তা বুঝতে তদন্ত শুরু হয়েছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.