×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১১ মে ২০২১ ই-পেপার

মাস ঘুরল পাটিকাবাড়ির শাহিনবাগের

মফিদুল ইসলাম
পাটিকাবাড়ি ০৬ মার্চ ২০২০ ০০:০২
পাটিকাবাড়িতে ধর্না মঞ্চে হাজির মহিলারাও।—নিজস্ব চিত্র

পাটিকাবাড়িতে ধর্না মঞ্চে হাজির মহিলারাও।—নিজস্ব চিত্র

বৃহস্পতিবার এক মাসে পা দিল পাটিকাবাড়ি বাজারের ‘ভারতীয় সংবিধান রক্ষা মঞ্চে’র নয়া নাগরিকত্ব আইন বিরোধী ধর্না। ৪ ফেব্রুয়ারি এলাকার কয়েক জনই এই ধর্না শুরু করেন। দ্রুত আরও অনেকে যোগ দেন। তার পরে আস্তে আস্তে পাটিকাবাড়ি বাজার থেকে দশ-পনেরো কিলোমিটারের মধ্যে নানা গ্রাম থেকেই আসতে শুরু করেন অনেকে। সকাল থেকেই মঞ্চে দেখা যায় অনেককে। ভিড় বাড়তে শুরু করে রোজ সন্ধেয়। রাতেও থাকেন অন্তত কুড়ি-পঁচিশ জন। তাঁদের জন্য রোজ রাতে খিচুড়ির আয়োজন হয়। খরচ উঠছে কী করে? উদ্যোক্তারা জানাচ্ছেন, যে যা পারেন দান করেন। তা ছাড়া, চাঁদাও তোলা হয়, পাঁচ টাকা থেকে দু’শো টাকা।

উদ্যোক্তাদের দাবি, তাঁদের সঙ্গে কোনও রাজনৈতিক দলের সম্পর্ক নেই। মঞ্চের সভাপতি আবু তাহের মালিত্যা ব্যবসায়ী। তিনি বলছেন, ‘‘নাগরিকত্ব আইনের ফলে ঘর সংসার ছেড়ে দিতে হবে, এমন ভয় ঢুকেছে মনে। তাই মানুষ নিজেরাই আসছেন মঞ্চে।’’ কোনও বড় দলের নেতা এখনও আসেননি। কিন্তু এসেছেন এলাকার পরিচিত লেখক, শিল্পীরা।

কিন্তু এই প্রত্যন্ত এলাকায় এই উদ্যোগের প্রচার কতটুকুই বা হচ্ছে? উদ্যোক্তাদের অন্যতম আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘‘ফেসবুকে ধর্নার খবর দিচ্ছি। ফেসবুক লাইভও করা হচ্ছে। তাতে সাড়া মিলছে।’’ নওদার মাইনুল ইসলাম বলেন, ‘‘অন্তঃসত্ত্বা মহিলারা পর্যন্ত এসে মঞ্চে বসছেন। সবটাই স্বতঃস্ফূর্ত।’’ পাটিকাবাড়ির আরফিয়া বিবি স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্য। তিনি বলেন, ‘‘দলের কথায় নয়, এলাকার মানুষের টানেই রোজ ধর্নামঞ্চে আসি।’’

Advertisement
Advertisement