Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৯ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

ঝাঁ চকচকে কার্যালয়, প্রশ্ন বিরোধীদের

বিজেপির তিন তলা ওই কার্যালয় নিয়ে প্রশ্ন তুলে সরব হয়েছে ইংরেজবাজার পুরসভা কর্তৃপক্ষ।

নিজস্ব সংবাদদাতা
ইংরেজবাজার ১০ ডিসেম্বর ২০২০ ০৬:২১
Save
Something isn't right! Please refresh.
বিতর্ক: তিনতলা ভবনের উদ্বোধন। নিজস্ব চিত্র

বিতর্ক: তিনতলা ভবনের উদ্বোধন। নিজস্ব চিত্র

Popup Close

দরজায়-দরজায় বাহারি রঙের ফুলের তোরণ। দেওয়ালে ঝুলছে সাদা-কমলা রঙের বেলুন। মেঝেতে পদ্মফুলের রঙ্গোলি। এমনই ভাবে সেজে উঠেছে মালদহের বিজেপির জেলা কার্যালয়। বুধবার দুপুরে নতুন করে সেজে ওঠা সেই ঝাঁ-চকচকে দলীয় কার্যালয় ভার্চুয়ালে উদ্বোধন করলেন বিজেপির সর্বভারতী সভাপতি জগৎ প্রকাশ নাড্ডা।

বিজেপির তিন তলা ওই কার্যালয় নিয়ে প্রশ্ন তুলে সরব হয়েছে ইংরেজবাজার পুরসভা কর্তৃপক্ষ। অনুমতি না নিয়েই তিন তলা ভবন নির্মাণ নিয়ে বিজেপি নেতৃত্বকে আইনি নোটিশ পাঠানোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন পুর প্রশাসক নীহার রঞ্জন ঘোষ। তিনি বলেন, “পুর এলাকায় ভবন নির্মাণ করতে হলে অনুমতি নিতে হয়। বাড়ির নকশার জন্য অনুমোদন করাতে হয়। অথচ, বিজেপি সে সব না করেই বহুতল গড়েছে। প্রশাসক বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করে আমরা আইনি নোটিশ পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছি।” বিজেপির জেলা সভাপতি গোবিন্দ চন্দ্র মণ্ডল বলেন, “আমাদের কার্যালয় বহু বছর আগেই গড়ে উঠেছিল। আমি পুরসভার উপ-পুরপ্রধান থাকাকালীনই বহুতলের নকশার অনুমোদন নেওয়া হয়েছিল।”

ইংরেজবাজার শহরের পুড়াটুলি বাঁধ রোড এলাকায় ২০০০ সালে ৬ কাঠা জমির উপরে স্থায়ী কার্যালয় গড়ে তোলা হয়েছিল। সেই সময় কার্যালয়টি ছিল একতলা। কেন্দ্রে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর সেটি নতুন করে সাজানোর উদ্যোগ নেয় বিজেপি। তিনতলা ভবনের নীচতলায় দলের সমস্ত শাখা সংগঠনের নেতৃত্বদের কার্যালয় করা হয়েছে। দ্বিতীয়তলে আইটি সেল এবং তৃতীয় তলায় রয়েছে সভাকক্ষ। সম্প্রতি, মারা যান বিজেপির দু’বারের জেলা সভাপতি তথা মালদহের বিশিষ্ট শিক্ষক তৃষারকান্তি ঘোষ। তাঁর নামেই তৃতীয় তলের নামকরণ হয়েছে। এ ছাড়া প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তপন সিকদারের নামেও একটি কক্ষ করা হয়েছে। এই কার্যালয়কে বিধানসভা নির্বাচনের ‘ওয়ার রুম’ হিসেবে ব্যবহার করা হবে বলে জানিয়েছেন বিজেপি নেতৃত্ব। এ দিন জেলার পাশাপাশি ব্লক নেতৃত্বও হাজির ছিলেন উদ্বোধনে। তবে অধিকাংশেরই মুখেই মাস্ক ছিল না। যদিও গোবিন্দ বলেন, “স্বাস্থ্যবিধি মেনেই কার্যালয়ে নেতা কর্মীরা হাজির ছিলেন।”

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement