Advertisement
০৯ ডিসেম্বর ২০২২
TMC

TMC Interclash: বিধাননগরে ফের সুজিত বনাম সব্যসাচীর অনুগামীদের মধ্যে গোলমাল, গ্রেফতার এক

এই ঘটনায় বিধাননগর দক্ষিণ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন আক্রান্ত সুজিত অধিকারী, সন্তু মণ্ডল, জয়ন্ত দাস। এলাকায় রয়েছে পুলিশ।

সুজিত ও সব্যসাচী অনুগামীদের মধ্যে গোলমালের ঘটনা বিধাননগরে।

সুজিত ও সব্যসাচী অনুগামীদের মধ্যে গোলমালের ঘটনা বিধাননগরে। ফাইল চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৫ জুন ২০২২ ১৮:২১
Share: Save:

ফের সুজিত বসু এবং সব্যসাচী দত্তর দ্বন্দ্বের ঘটনা সংবাদের শিরোনামে। সব্যসাচী বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার পর এই দুই গোষ্ঠীর গোলমালের ঘটনা সেভাবে আর শোনা যায়নি। কিন্তু গত বছর ৭ অক্টোবর সব্যসাচীর তৃণমূলের প্রত্যাবর্তনের পরেই ফের মাথাচাড়া দিল সুজিতের সঙ্গে তাঁর দ্বন্দ্ব। শনিবার রাতে বিধাননগর বিধানসভা এলাকার ত্রিনাথ পল্লি এলাকায় প্রাক্তন কাউন্সিলর প্রবীর সর্দার ও মন্ত্রী সুজিতের অনুগামীদের উপর চড়াও হয় একদল দুষ্কৃতী। ঘরে ঢুকে সুজিত অনুগামীদের ব্যাপক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। সুজিত অনুগামীদের অভিযোগ, সুজয় দাস, ঝন্টু, বিকাশ, কুখ্যাত দুষ্কৃতী পচা, আদুরা তাঁদের ওপর হামলা চালিয়েছেন। আক্রান্তদের দাবি, দুষ্কৃতীরা বিধাননগরের কাউন্সিলর চামেলি নস্করের অনুগামী। বিধাননগর পুর নির্বাচনের পর সব্যসাচীর হাত ধরেই বিজেপি ছেড়ে এরা তৃণমূলে এসেছিল। এখন তাঁরাই এলাকায় গোলমাল পাকিয়ে অশান্তি তৈরির চেষ্টা করছেন।

Advertisement

এই ঘটনায় বিধাননগর দক্ষিণ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন আক্রান্ত সুজিত অধিকারী, সন্তু মণ্ডল, জয়ন্ত দাস। এরপরই এলাকায় মোতায়ন করা হয়েছে বিধাননগরের বিশাল পুলিশ। ইতিমধ্যেই মূল অভিযুক্ত সুজয় দাস নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে বিধাননগর দক্ষিণ থানার পুলিস। বাকি অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিস। ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন তিনজন।গোটা ঘটনা তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মানতে নারাজ তৃণমূল কাউন্সিলর চামেলি। তাঁর দাবি,‘‘যাঁরা এই ধরনের কাজ করেছে, তাঁরা প্রত্যেকেই সমাজবিরোধী। পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতার করা হবে।’’

সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ

Advertisement
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.