Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

বিজেপির ‘গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব’, মাথা ফাটল মণ্ডল সভাপতির

নিজস্ব সংবাদদাতা
ইলামবাজার ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০০:৩৩
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

প্রাক্তন আর বর্তমান – বিজেপির দুই মণ্ডল সভাপতির কাজিয়ার জেরে উত্তপ্ত হল ইলামবাজারের বিলাতি পঞ্চায়েতের নাচনসা গ্রাম। অভিযোগ আর পাল্টা অভিযোগের মাঝে ইটের ঘায়ে জখম বর্তমান মণ্ডল সভাপতি বিকাশ ঘোষ। তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনার সূত্রপাত রবিবার রাতে। নাচনসা গ্রামের ডোমপাড়া প্রাথমিক স্কুলের পাশে একটি খোলা জায়গায় পিকনিক করছিলেন বিজেপির প্রাক্তন মণ্ডল সভাপতি অভিজিৎ খাঁয়ের অনুগামীরা। সেই সময় বর্তমান মণ্ডল সভাপতির অনুগামীরা রাস্তা দিয়ে যেতে যেতে তাঁদের গালিগালাজ করেন বলে অভিযোগ। দুই বিজেপি নেতার অনুগামীদের বচসায় রীতিমতো রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় পিকনিকের জায়গা। বিকাশবাবুর অনুগামীরা সংখ্যায় কম থাকায় তাঁদের বেধড়ক মারা হয় বলে অভিযোগ। রবিবার রাতে সময়িকভাবে মিটমাট হয়ে গেলেও সোমবার সকাল হতেই ফের অশান্তি শুরু হয় বিকাশবাবু নিজেই ওই এলাকায় গিয়ে চেঁচামেচি শুরু করায়। অভিযোগ, দল ভারী করে গ্রামে গিয়ে অভিজিৎ খাঁকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেওয়ার পাশাপাশি গ্রামের মহিলাদের উদ্দেশেও কটূক্তি করা হয়। থেমে থাকেনি বিরোধী পক্ষও। শুরু হয় হুমকি ও পাল্টা হুমকি। লাঠি, ইট নিয়ে চড়াও হয় বেশ কয়েকজন। ইটের ঘায়ে মাথা ফাটে বিকাশবাবুর। জখম হন আরও কয়েকজন।

রবিবার রাতের ঘটনা বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আনল বলেই জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশও। যদিও পুরো বিষয়টি অস্বীকার করেছে গেরুয়া শিবির। বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল বলেন, ‘‘এটি একটি গ্রাম্য বিবাদ। এর সঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক নেই।’’ শ্যামাপদবাবুর সুরেই সুর মিলিয়েছেন অভিজিৎবাবু ও বিকাশবাবুও। তবে অভিজিৎবাবুর অভিযোগ, ‘‘বিজেপির সঙ্গে এর কোনও সম্পর্ক নেই কিন্তু বিকাশবাবুর সঙ্গে আছে। উনি তো তৃণমূল থেকে এসে মণ্ডল সভাপতি হয়েছেন। ওঁর ব্যবহার খুব খারাপ। নেশা করে গ্রামে ঢুকে মহিলাদের অসম্মান করে কুকথা বলেছেন। তার ফলেই কয়েকজন ওঁকে মারধর করেছে শুনেছি। বিজেপির মণ্ডল সভাপতি হয়ে এই আচরণ কেউ মেনে নেবে না।’’ আর হাসপাতালে শুয়ে বিকাশবাবুর দাবি, ‘‘একদমই এসব কিছু হয়নি। গ্রাম্য বিবাদ থামাতে গিয়ে এই অবস্থা।’’ তৃণমূলের ইলামবাজার ব্লক সভাপতি ফজলুর রহমান বলেন, ‘‘বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে ঢাকতে এখন গ্রাম্য বিবাদ বলে প্রচার করা হচ্ছে। পুলিশকে এ বিষয়ে নিরপেক্ষ তদন্ত করার আবেদন জানিয়েছি।’’ পুলিশ জানিয়েছে, এখনও পর্যন্ত এই ঘটনায় কোনও লিখিত অভিযোগ না হলেও নজর রাখা হচ্ছে পরিস্থিতির উপরে।

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisement