Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৮ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

Hospital: বিমা ছাড়া নগদ বিলে ছাড় দিতেই হবে, হাসপাতালগুলিকে নির্দেশ কমিশনের

স্বাস্থ্য কমিশনের নির্দেশিকা না মানার অভিযোগ বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে। নগদে বিল করার ক্ষেত্রে নির্দেশিকা মানার নির্দেশ কমিশনের।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২৪ জানুয়ারি ২০২২ ১৯:১১
Save
Something isn't right! Please refresh.
চিকিৎসায় নগদে বিল মেটানোর ক্ষেত্রে দিতে হবে ছাড়, বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে নির্দেশ স্বাস্থ্য কমিশনের।

চিকিৎসায় নগদে বিল মেটানোর ক্ষেত্রে দিতে হবে ছাড়, বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে নির্দেশ স্বাস্থ্য কমিশনের।
নিজস্ব চিত্র।

Popup Close

স্বাস্থ্য কমিশনের নির্দেশিকা মেনেই রাজ্যের সব বেসরকারি হাসপাতালকে চিকিৎসায় নগদে বিল মেটানোর ক্ষেত্রে ছাড় দিতে হবে। কোনও অজুহাতেই সেই ছাড় থেকে রোগীকে বঞ্চিত করা যাবে না। সোমবার একটি অভিযোগের শুনানিতে স্পষ্ট নির্দেশ দিল স্বাস্থ্য কমিশন। এমনকি তারা জানায়, কীভাবে ওই ছাড়ের ব্যবস্থা করা হবে শীঘ্রই হলফনামা আকারে তা জানতে চাওয়া হবে বেসরকারি হাসপাতালগুলির কাছে।

অসমের শিলচরের বাসিন্দা দেবযানী দত্ত একাধিক সমস্যা নিয়ে বাইপাসের ধারে একটি হাসপাতালে ভর্তি হন। পরে মৃত্যু হয় তাঁর। চিকিৎসা খরচ বাবদ হাসপাতাল বিল করে ১৪ লক্ষ টাকা। তার মধ্যে তিন লক্ষ টাকা মিটিয়ে দেয় বিমা সংস্থা। ওই মৃতার পরিবার দাবি করেন, চিকিৎসা করাতে গিয়ে অনেক খরচ হয়েছে তাঁদের। হাসপাতালের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য কমিশনে মামলা করেন দেবযানীর মেয়ে অন্বেষা দত্ত। কমিশন চিকিৎসা খরচ ক্ষতিয়ে দেখে, ওষুধ-সহ বিভিন্ন পরীক্ষার ক্ষেত্রে নির্দেশিকা না মেনে বেশি টাকা বিল করা হয়েছে। সোমবার ওই মামলাটির শুনানি ছিল কমিশনে।

Advertisement

শুনানিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান, বিলের জন্য একটি নির্দিষ্ট সফটওয়্যার রয়েছে। সেখানেই সব ক্ষেত্রের খরচ ধরা রয়েছে। ফলে স্বয়ংক্রিয় ভাবেই বিল আসে। বিমার হারেই অন্য সব ক্ষেত্রে খরচ ধরা হয়েছে। ফলে এ ক্ষেত্রে বিমা বাদে ১১ লক্ষ টাকা বিল হয়েছে। কিন্তু কমিশন জানায়, ওই পদ্ধতি সঠিক নয়। বিমা ছাড়া বিল করতে হলে সেখানে ছাড় দেওয়া বাধ্যতামূলক। ওষুধ-সহ অন্যান্য পরীক্ষার ক্ষেত্রে নির্দেশিকা মানা হয় নি। এর পরই ওই হাসপাতালকে কমিশন স্পষ্ট নির্দেশ দেয়, প্রয়োজনে সফটওয়্যার বদলাতে হবে। না হলে হাতে লেখা বিল ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু ছাড় দিতেই হবে। এই বিষয়ে ওই হাসপাতালকে এক মাস সময় দেয় কমিশন। এবং বিল করার জন্য তাঁদের যে সফটওয়ার আছে তাতে প্রয়োজনীয় বদল আনবেন। তা হলফনামা আকারে জানাতে বলা হয়েছে।

শুধু ওই হাসপাতাল নয়, বিভিন্ন সময়ে নির্দেশিকা না মেনে বাড়তি বিল করার অভিযোগ ওঠেছে অন্য কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধেও। তাই এই বিষয়টি নিয়ে কড়া অবস্থান নেওয়া প্রয়োজন বলে মনে করছে কমিশন। কমিশন জানিয়েছে, আগামিদিনে রাজ্যের সব বেসরকারি হাসপাতালের কাছে হলফনামা চাওয়া হবে এবং এই মামলার রায় পাঠানো হবে। সেই হলফনামায় উল্লেখ করতে হবে, হাসপাতালে নগদে বিলের ক্ষেত্রে অর্থাৎ বিমা ছাড়া রোগী যে খরচ মেটাবেন সে ক্ষেত্রে কমিশনের নির্দেশিকা মেনে বিল করার মতো প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।



Something isn't right! Please refresh.

Advertisement