×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ জুন ২০২১ ই-পেপার

বাহিনীর ক্ষোভ প্রশমনে পর্ষদের নজর ‘তৃণমূলে’

শিবাজী দে সরকার ও কুন্তক চট্টোপাধ্যায়
কলকাতা ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০৬:০৮
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।—ফাইল চিত্র

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।—ফাইল চিত্র

গত আট বছর ধরে রাজ্য পুলিশের ‘সদস্য’ হিসেবে কাজ করছেন ‘ভিলেজ পুলিশ’-এর কর্মীরা। কিন্তু সরকারি খাতায় তাঁদের কোনও ছুটি নেই, সুযোগ-সুবিধা থেকেও বঞ্চিত তাঁরা। ফলে ক্ষোভ-অসন্তোষ ক্রমশই দানা বাঁধছিল তাঁদের মধ্যে। সরকারি সূত্রের খবর, বিভিন্ন সূত্র মারফত এই খবর জানতে পেরে রবিবার কলকাতা এবং মেদিনীপুরে পুলিশ লাইনে দু’টি আলাদা ভিলেজ পুলিশ কর্মীদের দলের সঙ্গে কথা বলেন পুলিশকল্যাণ পর্ষদের কর্তারা। তাঁদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাসও দেওয়া হয়েছে।

১ সেপ্টেম্বরকে রাজ্যে পুলিশ দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুর জন্য গত মঙ্গলবার অনুষ্ঠান স্থগিত হয়ে গিয়েছে। আজ, মঙ্গলবার সেই অনুষ্ঠান হতে পারে। সূত্রের দাবি, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুলিশকর্মীদের জন্য বিভিন্ন সুযোগসুবিধা বৃদ্ধি কথা ঘোষণা করবেন। এছাড়া জুনিয়র কনস্টেবল, হোমগার্ড, সিভিক ভলান্টিয়ার, এনভিএফ এবং ভিলেজ পুলিশকর্মীরা অন্যান্য সরকারি কর্মীর মতো অবসর নেওয়ার পর এককালীন টাকা পাবেন। সেই সঙ্গে বেতন কমিশনের সুপারিশের তালিকায় তাঁদের নাম না থাকলেও মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের জন্য কিছু সুবিধার কথা ঘোষণা করতে পারেন। পুলিশের চুক্তিভিত্তিক গাড়িচালকদেরও অন্যান্যদের মতো সুযোগসুবিধা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

পুলিশের খবর, বাহিনীর নিচু তলায় ক্ষোভ বেড়েছে। পুজোয় ডিউটির জন্যে সাত দিন অতিরিক্ত ছুটি ধার্য হয়েছিল রাজ্য পুলিশের এনভিএফ কর্মীদের জন্য। অভিযোগ বিজ্ঞপ্তি জারি না-হওয়ায় এনভিএফ কর্মীরা পাওনা ছুটি থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। সেই ছুটি মঞ্জুর করতে উদ্যোগী হয়েছে পর্ষদ। এক পুলিশকর্তা বলছেন, ‘‘ভিলেজ পুলিশ, এনভিএফ বা সিভিক ভলান্টিয়ারেরা তৃণমূল স্তরের কর্মী। কিন্তু তাঁরা বহু সময় কনস্টেবল পদেরই সমান কাজ করেন। গ্রামাঞ্চলে এঁদের ভূমিকা অনেক বেশি। কিন্তু সুযোগসুবিধা না-পাওয়ায় তাঁরা ক্ষুব্ধ। সেগুলি না-মিটলে ভবিষ্যতে বড় সমস্যা হবে।’’ করোনা আবহে কলকাতাতেই নিচু তলার ক্ষোভ টের পেয়েছে প্রশাসন। নিচু তলার কর্মীদের ক্ষোভ প্রশমনে পুলিশকল্যাণ পর্ষদ গড়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Advertisement

সরকারি সূত্রের খবর, শনিবার পর্ষদের নোডাল অফিসার-সহ অন্যান্য সদস্যের সঙ্গে রাজ্য পুলিশের কর্তাদের বৈঠক হয়েছে। তাতে পর্ষদের প্রস্তাবকে গুরুত্ব দিয়ে জুনিয়র কনস্টেবলদের পদোন্নতি করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। পুলিসের রেশন ভাতা ১৫০০ থেকে ২০০০ টাকা করার প্রস্তাবও গিয়েছে। এই ভাতা ইনস্পেক্টর, ডিএসপি পদের অফিসারেরা পান না। সিভিক ভলান্টিয়ারদের পোশাকের জন্য আলাদা করে টাকা দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে বলে নবান্ন সূত্রে খবর।

Advertisement