Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৮ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

৬০ বছর আগে কী ভাবে তিব্বত থেকে পালিয়েছিলেন দলাই লামা?

তিব্বতে তাঁর প্রাসাদ ছেড়ে পথে নেমে পড়া ছাড়া আর কোনও পথই সে দিন খোলা ছিল না ধর্মগুরু দলাই লামার সামনে।

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি ১৭ মার্চ ২০১৯ ১৭:০২
Save
Something isn't right! Please refresh.
দলাই লামা। -ফাইল ছবি

দলাই লামা। -ফাইল ছবি

Popup Close

৬০ বছর আগে এই মার্চেই রাতের জমাট অন্ধকারে লাল ফৌজের লাল চক্ষু এড়িয়ে পথে নেমে পড়েছিলেন তিনি। অচেনা, অজানা রুটে। কপালে কী লেখা রয়েছে, তা না জেনেই। সঙ্গে ছিলেন বৃদ্ধা মা, বোন, ছোট ভাই আর তাঁর কয়েক জন অফিসার।

তিব্বতে তাঁর প্রাসাদ ছেড়ে পথে নেমে পড়া ছাড়া আর কোনও পথই সে দিন খোলা ছিল না ধর্মগুরু দলাই লামার সামনে। ৮ বছর আগেই বৌদ্ধ ধর্মাবলাম্বী স্বাধীন তিব্বতে লাল ফৌজ ঢুকিয়ে দেয় চিন। শুরু হয় অত্যাচার। নির্যাতন। তিব্বতের দখল নেওয়ার জন্য। লাল ফৌজকে রুখতে সে দিন গণ আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন দলাই লামা। তাই তিনি টার্গেট হয়ে উঠেছিলেন চিনের। ৬০ বছর আগে মার্চের সেই রাতেই পথে নেমে না পড়লে লাল ফৌজের হাতেই প্রাণ হারাতে হত তাঁকে। হয়তো তাঁর পরিবারের সদস্যরাও রেহাই পেতেন না।

সেই রাতে লাল সেনার পোশাক পরে পথে নেমেছিলেন দলাই লামা। তার পর মা, ভাই, বোন আর জনাকয়েক অনুগামী নিয়ে তাঁর দু’দিন, দু’রাত কেটেছিল অচেনা, অজানা পথে। কখনও পায়ে হেঁটে। কখনও বা ঘোড়ার পিঠে। আর ছিল ক’টা খচ্চর। যাদের পিঠে চাপানো ছিল এক মাসের মতো জল, খাবারদাবার, আনুষঙ্গিক আরও কিছু।

Advertisement

যাচ্ছেন কোথায়, জানা ছিল। ভারত। কিন্তু কোন পথে যাবেন, কোন পথে গেলে এড়াতে পারবেন লাল ফৌজের কড়া নজর, জানা ছিল না। তাই খানিকটা অন্ধকারে হাতড়ে বেড়াতে হয়েছিল তাঁদের। হাঁটতে হাঁটতে পথে পড়ল ব্রহ্মপুত্র নদ। এ-পার থেকে ও-পারের দূরত্ব যার দেড় হাজার ফুট। সেই ব্রহ্মপুত্র তাঁরা সেই রাতের অন্ধকারে পেরিয়েছিলেন তিব্বতি গরুর চামড়া দিয়ে বানানো ছোট্ট একটি নৌকায়। ব্রহ্মপুত্র পেরিয়ে আবার অনেকটা দুর্গম পাহাড়ি পথ। হিমালয়। হাঁটা ছাড়া যা পেরনো সম্ভব নয়। সেই পথে কখনও হেঁটে, কখনও পাহাড় ধরে উঠে-নেমে তাঁর মা, ভাই, বোন আর অনুগামীদের নিয়ে দলাই লামা শেষ পর্যন্ত পৌঁছেছিলেন ভারত ভূখণ্ডে। পালিয়ে আসার দু’দিন পর জানতে পেরেছিল লাল ফৌজ। তার পরেই তিব্বতে দলাই লামার খোঁজে বাড়িতে বাড়িতে শুরু হয়েছিল তল্লাশি, অত্যাচার। তার পর বন্দুকের মুখে রক্তগঙ্গা বইয়ে দিয়ে তিব্বতকে গায়ের জোরে তার দখলে নিয়ে এসেছিল চিন। সেটা ছিল ১৯৫৯ সালের ২১ মার্চ। তত দিনে দলাই লামা ঢুকে পড়েছেন ভারত ভূখণ্ডে।

আরও পড়ুন- আজহার নিয়ে ভারতের উদ্বেগ বুঝি, সমস্যার সমাধান হবে, বললেন নয়াদিল্লির চিনা রাষ্ট্রদূত​

আরও পড়ুন- আড়াই দশক ধরে বৌদ্ধ সন্ন্যাসীদের যৌন নির্যাতনের বিষয়ে জানি: দলাই লামা​

ভারত তাঁকে রাজনৈতিক আশ্রয় দিল এপ্রিলের ৩ তারিখে। তাঁর নির্বাসিত সরকারকে জায়গা দিল হিমাচল প্রদেশের ধর্মশালায়। তার পর সেখান থেকেই তিব্বতে মুক্ত করার দাবিতে চিনবিরোধী আন্দোলন সংগঠিত করেছেন দলাই। যার স্বীকৃতি হিসেবে ১৯৮৯ সালে দলাই পান নোবেল শান্তি পুরস্কার।



Tags:
Dalai Lama Tibet Chinaদলাই লামা
Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement