×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৮ মে ২০২১ ই-পেপার

‘বন্ধুর সম্পর্কে এমন মন্তব্য অনুচিত’, ট্রাম্পের ভারত-কটাক্ষ নিয়ে তোপ বাইডেনের

সংবাদ সংস্থা
ওয়াশিংটন ২৫ অক্টোবর ২০২০ ১১:৪৭
জো বাইডেন ও ডোনাল্ড ট্রাম্প। -ফাইল ছবি।

জো বাইডেন ও ডোনাল্ড ট্রাম্প। -ফাইল ছবি।

পরিবেশ দূষণ নিয়ে ভারত-বিরোধী মন্তব্যের জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে কটাক্ষ করলেন প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাট প্রার্থী প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বললেন, ‘‘বন্ধুর সম্পর্কে এই ভাবে কথা বলাটা উচিত নয়। এই ভাবে বিশ্বজোড়া দূষণ সমস্যা মেটানো যাবে না।’’

দিনচারেক আগে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প পরিবেশ দূষণের জন্য ভারত, চিন ও রাশিয়ার নিন্দা করেছিলেন। বলেছিলেন, ‘‘এই তিনটি দেশই পরিবেশ কলুষিত করছে।’’

শনিবার তাঁর টুইটে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এই মন্তব্যকে কটাক্ষ করে বাইডেন জানিয়েছেন এ বারের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী কমলা হ্যারিসও মনে করেন ট্রাম্পের এ কথা বলা উচিত হয়নি। তিনি ও কমলা দু’জনেই ভারতের সঙ্গে সহযোগিতার সম্পর্ক চান। চান আগামী দিনে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক আরও মজবুত করে তুলতে।

Advertisement

বাইডেন তাঁর টুইটে লিখেছেন, ‘‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ভারতের পরিবেশকে ‘নোংরা’ বলেছেন। এই ভাবে বন্ধুদের সম্পর্কে বলাটা উচিত নয়। এই ভাবে বিশ্বের দূষণ সমস্যা মেটানোও যাবে না। কমলা হ্যারিস এবং আমি দু’জনেই ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ককে মূল্য দিই। ভারত সম্পর্কে আমাদের যে শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে তা আমাদের বিদেশনীতিতেও প্রতিফলিত হবে।’’


গত বৃহস্পতিবার টেনেসির ন্যাশভিলেতে বাইডেনের সঙ্গে চূড়ান্ত পর্যায়ের নির্বাচনী বিতর্কে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, ‘‘চিনের পরিবেশের দিকে তাকান। কী নোংরা। তাকান রাশিয়া আর ভারতের পরিবেশের দিকে। কী নোংরা সেখানকার পরিবেশ। এ ব্যাপারে দেশগুলির কোনও হেলদোলও নেই।’’

আরও পড়ুন- তরজা তুঙ্গে ট্রাম্প এবং বাইডেনের

আরও পড়ুন- লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ জানাল আমেরিকা, চিনের মোকাবিলায় জোটের সওয়াল​

ট্রাম্পের এই মন্তব্যে আমেরিকায় বসবাসকারী ভারতীয় এবং ভারতীয় ব‌ংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিকরা ক্ষুব্ধ হয়েছেন আঁচ করে শনিবার টুইট করেন প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন। একটি সাপ্তাহিকে প্রকাশিত তাঁর উত্তর সম্পাদকীয়তেও বাইডেন লিখেছেন, ভারতের সঙ্গে আমেরিকার সম্পর্ক মজবুত হয়েছিল যে যে সময়ে ওবামা-বাইডেনের জমানা তার অন্যতম। বাইডেন-হ্যারিস জমানা সেই ধারা শুধু অব্যাহতই রাখবে না, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও মজবুত করে তুলবে। তার ছাপ পড়বে বাইডেন-হ্যারিসের বিদেশনীতিতেও।

বাইডেন লিখেছেন তিনি যদি মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন তা হলে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তিনি ভারতকে সঙ্গে নিয়ে লড়বেন। এশিয়ায় শান্তি ও সুস্থিতির জন্যও ভারতকে তাঁর প্রয়োজন বলে বাইডেন জানিয়েছেন।

বাইডেন লিখেছেন ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের প্রসারের পাশাপাশি, পরিবেশ দূষণরোধ, পরমাণু অস্ত্রপ্রসাররোধের লড়াইয়েও ভারতকে তাঁর খুব প্রয়োজন।

Advertisement