বিএসএনএলে স্বেচ্ছাবসর (ভিআরএস) নিতে চাওয়া কর্মী-আধিকারিকের সংখ্যা বুধবার ৭৭ হাজার পেরিয়েছে বলে জানাল সংস্থা সূত্র। সেই সঙ্গে ইঙ্গিত, পুরো প্রক্রিয়া দ্রুত কার্যকরের প্রস্তুতিও শুরু হচ্ছে অবিলম্বে। কারণ, দু’দিন আগেই সব সার্কলের শীর্ষ কর্তাদের চিঠি দিয়ে বিএসএনএলের সিএমডি পি কে পুরওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন, যাঁরা ভিআরএসের প্রস্তাব জমা দিয়েছেন, তাঁদের প্রাপ্য অবসরকালীন সুবিধার হিসেব যেন দ্রুত সারা হয়। সুষ্ঠ ভাবে পুরো বিষয়টি রূপায়নের জন্য বিভিন্ন স্তরে কমিটিও গড়তে বলেছেন তিনি।

৩ ডিসেম্বরের পর্যন্ত ভিআরএস প্রস্তাব জমার সুযোগ মিলবে। সংস্থার আশা, আর্জির সংখ্যা আরও বাড়বে। সোমবার পাঠানো চিঠিতে পুরওয়ারও এই প্রকল্পে ভাল সাড়া মেলায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। সেই সঙ্গে জানান, দ্রুত সেই সব কর্মী-আধিকারিকের সার্ভিস বুক সম্পূর্ণ করে রাখার কথা। যাতে ডিসেম্বরের মধ্যে অবসরের প্রক্রিয়া শেষ করা যায়। তবে তা কার্যকর হবে ৩১ জানুয়ারি থেকে। পুরওয়ার বলেছেন, যাঁরা টেলিকম দফতর থেকে বিএসএনএলের অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন, তাঁদের যাঁরা কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিমা প্রকল্পের যোগ্য, তাঁরা ভিআরএস নিলে সেই সুবিধা দিতে হবে। সে ক্ষেত্রে এই খাতে সংস্থার খরচ কমবে।

অনেকের অবশ্য প্রশ্ন, ভিআরএস নিয়ে এত তাড়াহুড়ো কেন? সংস্থার দাবি, একলপ্তে বিপুল কর্মী এই প্রস্তাব দেওয়ায় চাপ বেশি পড়তে পারে। তাই সেই মতো প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।