নামতে নামতে কার্যত তলানিতে এসে ঠেকেছিল। দরকার ছিল একটা বড়সড় টনিকের। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন কর্পোরেট করে ছাড়ের ঘোষণা করতেই কার্যত ‘জায়ান্ট লিপ’ শেয়ার বাজারের। স্মরণাতীত কালের মধ্যে এক দিনে সর্বোচ্চ উত্থানের রেকর্ড গড়ে ফেলল সেনসেক্স ও নিফটি।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাজার বন্ধের তুলনায় আজ শুক্রবার মুম্বই শেয়ার সূচক সেনসেক্স বেড়েছে ১৯২১.১৫ পয়েন্ট। ন্যাশনাল ফিফটি বা নিফটির বৃদ্ধি ৫৭০.২০ পয়েন্ট। দুই সূচকেই বৃদ্ধির শতকরা হর ৫.৩২ শতাংশ। বাজার বন্ধের সময় সেনসেক্স ৩৮০১৪.৬২ এবং নিফটি ১১২৭৪.২০ পয়েন্টে। যদিও সেনসেক্স এক সময় পৌঁছেছিল ৩৮৩৭৮.০২ এবং নিফটি ছুঁয়েছিল ১৩৮১.৯০ পয়েন্টে।

গত এক সপ্তাহ ধরে সেনসেক্স কার্যত নামছিল। শুক্রবারও তার ব্যতিক্রম ছিল না। আগের দিন বন্ধের তুলনায় কখনও সামান্য বাড়ছিল, আবার কিছুক্ষণ পরেই তা নেমে যাচ্ছিল। এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার সাংবাদিক বৈঠক করে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী ঘোষণা করেন, দেশীয় সংস্থাগুলির জন্য কর্পোরেট কর ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৫.২ শতাংশ (সমস্ত সারচার্জ সহ) করা হচ্ছে। নয়া এই নিয়ম কার্যকর হবে ১ অক্টোবর থেকে। এ ছাড়াও নতুন উৎপাদন শিল্পে বিনিয়োগ করলে সে ক্ষেত্রেও বড়সড় ছাড়ের ঘোষণা করেন নির্মলা সীতারামন।

যেন এই ঘোষণার অপেক্ষাতেই ছিল বাজার। লাফিয়ে লাফিয়ে উঠতে শুরু করে সেনসেক্স। হাতে গোনা দু’-একটা বাদ দিলে প্রায় সব ক্ষেত্রের সব শেয়ারের দর চড়তে শুরু করে একই গতিতে। দুপুর পর্যন্ত টপ গেনারের তালিকায় এইচআর মোটরস, আল্ট্রাটেক সিমেন্ট, মারুতি সুজুকি, ইন্দাসইন্ড ব্যাঙ্ক, টাটা মোটরস, টাটা স্টিলের মতো শেয়ার। 

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ

আরও পড়ুন: অর্থনীতি চাঙ্গা করতে নয়া দাওয়াই, কর্পোরেট করে ছাড়ের ঘোষণা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর

সাধারণ বাজেট, বড়সড় কোনও রাজনৈতিক পালাবদল বা শিল্প-ব্যাঙ্কিং ক্ষেত্রে সরকারের কোনও সিদ্ধান্তের মতো ঘটনাবহুল দিনে সাধারণত শেয়ার বাজারে ব্যাপক উত্থান-পতন লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু সেই উত্থানের পর আবার বাজার সংশোধনও লক্ষ্য করা যায় পরের কয়েক দিনে। শেয়ার বাজার বিশেষজ্ঞ সৌরভ সেনগুপ্তর মতে, শুক্রবারের এই টনিকেও আগামী সোমবার থেকে কয়েক দিনের জন্য কিছুটা সংশোধন হতে পারে। তবে সেটা খুব বেশি নয়। অর্থাৎ আবার আগের অবস্থায় ফিরে যাবে, এমন পরস্থিতি হওয়ার সম্ভাবনা কার্যত নেই। আবার বাজার বিশেষজ্ঞদের একাংশ মনে করছেন, এটাই বাজারে স্থায়ী উত্থান হয়ে উঠতে পারে। অর্থাৎ এখান থেকে ধীরে ধীরে আরও উপরে ওঠার সম্ভাবনাও রয়েছে।

আরও পড়ুন: ‘পাকিস্তান নীচে নামলেও ভারত মাথা উঁচু রাখবে’, বার্তা আকবরউদ্দিনের