পানশালায় মহিলা গায়িকাকে উত্যক্ত করা এবং তাঁর সঙ্গে অশালীন আচরণ করার অভিযোগে তিন যুবককে গ্রেফতার করল প্রগতি ময়দান থানার পুলিশ।পুলিশ সূত্রে খবর, ঘটনাটি ঘটেছে পার্ক সার্কাস কানেক্টারের পাশে ল্যারিকা পানশালায়। ওই পানশালার এক গায়িকা অভিযোগ জানিয়েছেন, দীর্ঘক্ষণ ধরে পানশালায় আসা তিন যুবক তাঁকে গান গাওয়ার সময় নানা রকম ভাবে উত্যক্ত করছিল। তিনি প্রথমে বিষয়টি গুরুত্ব দেননি। তাঁর কাছে বার বার ওই যুবকরা ফোন নম্বর চাইছিল এবং তাদের সঙ্গে পানশালার বাইরে সময় কাটানোর জন্য বলে বলেও অভিযোগ।

প্রথমে পানশালার বাউন্সাররা বেশ কয়েকবার ওই তিন যুবককে সতর্ক করে। কিন্তু তারা মানেনি। এর পর রাত একটা নাগাদ ওই গায়িকাকে টাকা দেওয়ার অছিলায় ওই যুবকরা অভব্যতা করে বলে অভিযোগ। এর পরই পানশালার পক্ষ থেকে প্রগতি ময়দান থানায় যোগাযোগ করা হয়। পুলিশ ওই তিন যুবককে গ্রেফতার করেছে। ধৃতেরা হল চন্দন শ্রীবাস্তব, বিশ্বজিৎ দে এবং বিষ্ণু সিংহ।

পুলিশ সূত্রে খবর, ওই পানশালার বিরুদ্ধেও ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। রাত ১টা পর্যন্ত বেআইনি ভাবে ওই পানশালায় কী ভাবে গান-বাজনা চলছিল সেটাও তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। কারণ, সমস্ত পানশালা রাত ১২টায় বন্ধ হওয়ার কথা। ওই পানশালা আবগারি দফতর থেকে কোনও বিশেষ অনুমতি নিয়েছে কি না তা-ওখতিয়ে দেখছে পুলিশ।

আরও পড়ুন- কলকাতা-হংকং উড়ান বন্ধ হচ্ছে

 

আরও পড়ুন-নোবেল জয় উদ্‌যাপনেও ডিজের তাণ্ডব

 

কলকাতার বিভিন্ন ‘সিঙ্গিং বার’-এ বেআইনি কার্যকলাপের বেশ কিছু অভিযোগ গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই আসছে গোয়েন্দা বিভাগের কাছে। ১২ অক্টোবর রাতেও শহরের বিভিন্ন পানশালায় হানা দেয় কলকাতা পুলিশের একটি বিশেষ দল। সেই তালিকায় প্রগতি ময়দানের ওই ল্যারিকা পানশালাও ছিল। পানশালাগুলিতে হানা দিয়ে সাতজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। প্রতিটি পানশালাতেই বেআইনি ভাবে নাচ চলছিল। কলকাতায় কোথাও ‘ডান্স বার’ চালানো যায় না। অর্থাৎ কোনও পানশালাতেই নাচের অনুষ্ঠান করা যাবে না। অথচ সেই আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ওই পানশালাগুলিতে অবাধে নাচ চলছিল। কলকাতা পুলিশ সূত্রে খবর, এখন থেকে নিয়মিত শহরের ‘সিঙ্গিং বার’গুলিতে নজরদারি চালাবে পুলিশ। নজর রাখা হবে ওই পানশালায় যাঁরা গান করেন সেই ক্রুনারদের উপর।