×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৭ জুলাই ২০২১ ই-পেপার

এই সিদুঁরে মেঘ প্রত্যাশিতই ছিল

অঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়
১২ মার্চ ২০১৮ ০০:৩৯
কৃষকদের মিছিলে ক্রমশ ভরে উঠছে মুম্বই। ছবি: পিটিআই।

কৃষকদের মিছিলে ক্রমশ ভরে উঠছে মুম্বই। ছবি: পিটিআই।

গোটা ভারতের চোখ আজ মুম্বইয়ের দিকে। চোখ টানছে এক সুদীর্ঘ রক্তাভ মিছিল। ক্রোশ ক্রোশ পথ পেরিয়ে মহারাষ্ট্রের খরাক্লিষ্ট, ফলনবঞ্চিত প্রান্তগুলো থেকে শত-সহস্র কৃষক হাঁটছেন মুম্বইয়ের দিকে, ক্রমশ ভরে উঠছে মুম্বই, রাস্তাঘাট-মাঠময়দানে স্রোতের মতো ঢুকছে কৃষিজীবী-আদিবাসী-ভূমিহারা মানুষের ঢল।

বামপন্থী কৃষক সংগঠনের উদ্যোগেই মূলত এই বিপুল জমায়েত মুম্বইয়ে। দেশে বাম মতাদর্শের প্রবাহে যখন ভাটার টান, আড়াই দশকের পুরনো দুর্গও যখন ধসে পড়ছে শোচনীয় ভাবে, তখন মহারাষ্ট্রের বুকে এত বড় লাল মিছিল! আশ্চর্য হতেই হয়। কিন্তু বিষয়টা আশ্চর্যজনক নয় একেবারেই। এমনটাই প্রত্যাশিত ছিল বরং।

কৃষকদের মিছিল-জমায়েত বা বিক্ষোভ মহারাষ্ট্রে প্রথম হচ্ছে, এমন নয়। কখনও রাজস্থান, কখনও মধ্যপ্রদেশ, কখনও হরিয়ানা, কখনও তামিলনাড়ু এই বিক্ষোভ দেখেছে। এমনকী মহারাষ্ট্র তথা মুম্বইও বিপুল কৃষক জমায়েতের সাক্ষী হয়েছে। সর্বত্র সংগঠকরা যে একই ছিলেন, তা নয়। বিভিন্ন সংগঠনের পতাকার তলায় সমবেত হয়েছেন কৃষকরা বিভিন্ন এলাকায়। কিন্তু লক্ষ্যটা সর্বত্র একই।

Advertisement

ক্রমে ক্রমে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে এ দেশের কৃষকের, ক্রমশ আরও প্রান্তিক হয়ে পড়েছেন তাঁরা। কোথাও ঋণভারে ন্যুব্জ হয়ে পড়েছেন, কোথাও খরার দাপটে হতাশ হয়ে পড়েছেন, কোথাও ফসলের দাম না পেয়ে মাঠেই ফসল নষ্ট করে দিয়েছেন, কোথাও ব্যর্থ মনোরথে আত্মঘাতী হয়েছেন। এমন এক পরিস্থিতি যে দিনের পর দিন চলতে পারে না, সে বলাই বাহুল্য। এ রকম পরিস্থিতিতে দেশ জু়ড়ে কৃষক যে সংগঠিত হবেনই, তা অত্যন্ত প্রত্যাশিত। মুম্বইয়ে বিরাট কৃষক মিছিল ঢুকতে দেখে কারও মনে হতে পারে, অপ্রত্যাশিত দ্রুততায় সংগঠিত হয়ে গিয়েছেন কৃষকরা। কিন্তু বাস্তবে এই সংগঠিত কৃষক মিছিল খুব অপ্রত্যাশিত নয়। ভারত জুড়েই কৃষকদের পরিস্থিতি এখন যে রকম, তাতে এই ছবিটাই প্রত্যাশিত ছিল।

মহারাষ্ট্রে বামেদের সংগঠন যে অবিশ্বাস্য রকমের শক্তিশালী তা কিন্তু নয়। রাজ্যে এখন ক্ষমতাসীন বিজেপি-শিবসেনা জোট। প্রধান বিরোধী শক্তি হিসেবে অত্যন্ত সবল উপস্থিতি কংগ্রেসের। রয়েছেন কৃষি তালুকের অত্যন্ত প্রভাবশালী নেতা শরদ পওয়ার। মহারাষ্ট্রের রাজনীতির এই মূল ধারাগুলির বাইরে বেরিয়ে কৃষকরা দাবিদাওয়া আদায়ের জন্য বিপুল সংখ্যায় সামিল হলেন বামেদের পতাকার তলায়। এই ছবি চমকে না দিয়ে যায় কোথায়।

আরও পড়ুন: লাল মিছিল এল মুম্বইয়ে, সরব সঙ্ঘও

কতটা দুর্দশায় রয়েছেন কৃষক, কতটা অবিলম্বে তার পাশে দাঁড়াতে হবে, কতটা তৎপরতার সঙ্গে রাজ্যে রাজ্যে কৃষকের দুর্দশা ঘোচানোর অভিযান শুরু করতে হবে, প্রশাসন তা বুঝতে পারছে কি? মুম্বইয়ে আছড়ে প়ড়া এই বিপুল কৃষক বিক্ষোভকে দেখে আজ চমকে যেতে হচ্ছে। অপ্রত্যাশিত ভাবে কৃষকরা এত সংগঠিত হয়ে উঠেছেন বলে কেউ কেউ মনে করছেন। কিন্তু এই মুহূর্তে যদি কৃষকের অবস্থার উন্নতির জন্য বিশেষ কোনও নীতি না নেয় সরকার, তা হলে অদূর ভবিষ্যতেই আরও অপ্রত্যাশিত ঘটনাপ্রবাহের জন্য প্রস্তুত থাকতে হতে পারে। প্লাবনের মতো মুম্বইতে ঢুকতে থাকা রক্তাভ মিছিলটাকে দেখে শাসকের বোঝা উচিত দিগন্তে জমে উঠছে রক্তাভ মেঘ। অবিলম্বে উপযুক্ত পদক্ষেপ না করা হলে অর্থাৎ অবিলম্বে কৃষকের সুরাহার পথ খোঁজা শুরু না হলে এই সিদুঁরে মেঘ আরও গাঢ় হবে। গাঢ় সিদুঁরে মেঘ বিপদেরই বার্তাবহ। অপ্রত্যাশিত ভাবে কোনও গভীরতর বিপদ সামনে এসে পড়লে, সামলানো খুব সহজ হবে কি? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে শুরু করে দিক সরকার।

Advertisement