×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

পুরুলিয়ার ভোট-ম্যাসকট ফেলুদার আদলে ‘ভোটনাথ’

নিজস্ব সংবাদদাতা
  পুরুলিয়া ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৬:৩৮
ভোট উৎসাহ দিতে।

ভোট উৎসাহ দিতে।
নিজস্ব চিত্র

ভোট-ময়দানে মুশকিল আসানে হাজির ‘ভোটনাথ’। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে পুরুলিয়া জেলায় ভোটারদের বুথমুখী করতে ও নির্ভয়ে ভোটদানে আহ্বান জানাতে পুরুলিয়া জেলা প্রশাসনের ‘ম্যাসকট’, ফেলুদার আদলে গড়া ‘ভোটনাথ’। সঙ্গী, তোপসে ও জটায়ুও। চেনা পাঞ্জাবি আর কোলাপুরি চটিতে ফেলুদা, ফুল স্লিভ শার্ট-কালো ট্রাউজার্সে তোপসে আর ধোপদুরস্ত ধুতি-পাঞ্জাবি ও জহর কোটের চেনা সাজে লালমোহন গঙ্গোপাধ্যায় ওরফে জটায়ু।

রবিবার জেলা পরিষদের প্রেক্ষাগৃহে ‘জয়বাবা ভোটনাথ’ নামে একটি ভিডিয়ো ক্লিপের আনুষ্ঠানিক প্রকাশ করেন জেলাশাসক অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। ক্লিপের আবহসঙ্গীতে সেই চেনা ‘ফেলুদা-থিম’। পরে জেলাশাসক বলেন, ‘‘ভোটনাথই এ বারের ভোটে পুরুলিয়ার ‘ম্যাসকট’। ফেলুদা যেমন ভাবে প্রতিকূল পরিস্থিতি সামলে সমস্ত কৌতূহলের নিরসন করতে সিদ্ধহস্ত, তেমন ফেলুদারূপী ভোটনাথও ভোটারদের কৌতূহল মেটাবেন। আর ফেলুদা নিছক গোয়েন্দা চরিত্র নন, ফেলুদা মানে মুশকিলআসান।’’

অতীতে ভোট ‘ম্যাসকট’ হিসেবে ‘ভোটেশ্বর’-কে ভোটের ময়দানে নামিয়েছে পুরুলিয়া জেলা প্রশাসন। বীররসের ছৌ-নৃত্যের ভঙ্গিতে দণ্ডায়মান ভোটেশ্বর ভোটারদের ভরসা দিতে চষে বেড়িয়েছেন পাহাড়-জঙ্গল থেকে শিল্পাঞ্চল। আর এ বার ভোটের প্রচারে প্রশাসনের ভরসা সত্যজিৎ রায়ের এই সৃষ্টি।

Advertisement

ফেলুদা থুড়ি ‘ভোটনাথ’ তো বোঝা গেল। কিন্তু তোপসে ও জটায়ু কেন? জেলাশাসকের ব্যাখ্যা, ‘‘তোপসে হচ্ছে নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধি। আর জটায়ু প্রৌঢ় বা তার আগের প্রজন্মের প্রতিনিধিত্ব করছেন। ম্যাসকটে আমরা তিন প্রজন্মকেই ধরেছি। আর ফেলুদার অভিযানগুলি এ দু’জনকে বাদ দিয়ে নয়।’’ তাঁর সংযোজন, ‘‘ভোট মানে গণতন্ত্রের উৎসব। আমরা চাই, জেলার সব ভোটার অবাধে গণতন্ত্রের এই উৎসবে যোগ দিন।’’

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, হোর্ডিং আকারে, ভিডিয়ো ক্লিপের মাধ্যমে সমাজ-মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হবে ভোটনাথের বার্তা—‘আমি দাঁড়াচ্ছি ভোটের লাইনে। আপনারাও আসুন।’ পাশাপাশি, ওই নামেই একটি পথনাটিকা প্রদর্শনের ব্যবস্থা করেছে জেলা প্রশাসন। নাটিকার রচনাকার ও পরিচালক সুদিন অধিকারীর কথায়, ‘‘নাটিকায় ফেলুদা-তোপসে-জটায়ুর সঙ্গে মগনলাল মেঘরাজও রয়েছেন। একটি দৃশ্য রাখা হয়েছে, যেখানে মগনলাল বলছেন, ‘নিয়ম তো বহুত সিম্পল আছে। আপনাকে ও সব নিয়ে ভাবতে হোবে না। ঘোরে বোসে থাকবেন, আমি ভোট করিয়ে দেবে’। উত্তরে ভোটনাথ তাঁকে বলছেন, ‘আপনাকে ভোট করাতে হবে না। ভোট করানোর জন্য নিরাপত্তাবাহিনী, কর্মীরা রয়েছেন। সর্বোপরি নির্বাচন কমিশন আছে। ভোট আমাদের অধিকার’। অতিরিক্ত জেলাশাসক (ভূমি ও ভূমি সংস্কার) সুপ্রিয় দাস জানান, জেলার বিভিন্ন প্রান্তে ওই পথনাটিকা প্রদর্শিত হবে।

‘হীরক রাজার দেশে’ ছবির শুটিংয়ের জন্য পুরুলিয়াকে বেছে নিয়েছিলেন সত্যজিৎ রায়। সে প্রসঙ্গ মনে করিয়ে জেলাশাসক বলেন, ‘‘বিশ্ববন্দিত পরিচালকের সঙ্গে এ জেলার স্মৃতি জড়িয়ে। তাই আমরা ভোটের ম্যাসকট হিসেবে ভোটনাথকেই বেছে নিয়েছি।’’

Advertisement