এমন একটা কাজ করতে চলেছেন যা আগে কখনও করেননি। একটু নার্ভাসও লাগছে— সোমবার অক্ষয় কুমারের এমন একটা টুইটের পরই জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছিল তা হলে কি এ বার রাজনীতিতে নামতে চলেছেন তিনি? তবে নায়ক নিজেই সেই জল্পনার অবসান ঘটিয়েছেন।

রাজনীতিতে যোগদান বা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা নয়, মঙ্গলবার তাঁর কয়েকটি টুইট থেকে জানা গেল যে কাজটার কথা তিনি বলতে চেয়েছেন সেটা আসলে একটা সাক্ষাত্কার। আর সেই সাক্ষাত্কার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর।  ৭ লোক কল্যাণ মার্গে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনের বারান্দায় বসে নরেন্দ্র মোদীর সাক্ষাত্কার নিয়েছেন অক্ষয়।  

কোনও রাজনৈতিক সাক্ষাত্কার নয় এটা। পুরোপুরি অরাজনৈতিক একটা সাক্ষাত্কার। এমনটাই জানিয়েছেন খোদ অক্ষয়। সাক্ষাত্কারের টুকরো টুকরো কিছু ভিডিয়োই টুইটারে শেয়ার করেছেন ‘খিলাড়ি’। সূত্রের খবর, বুধবার সকাল ৯টায় সেই সাক্ষাত্কার সম্প্রচারিত হবে। তবে নির্বাচনী বিধি যাতে লঙ্ঘন না হয়, সে দিকটাও খেয়াল রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন: শুটিংয়ে বনি সব সময় লেগপুল করত, বললেন রূপসা​

ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনের বারান্দায় মুখোমুখি বসে আছেন অক্ষয় কুমার ও নরেন্দ্র মোদী। চারটে টুকরো টুকরো টিজার। নির্বাচনী প্রচার, টেলিভিশন সাক্ষাত্কার এবং সমস্ত রকম ব্যস্ততা দূরে সরিয়ে এক অন্য মোদী ধরা পড়েছে ক্যামেরায়। একটি টিজারে দেখা যাচ্ছে অক্ষয় কুমার মোদীকে প্রশ্ন করছেন, “যেখানে কমপক্ষে দৈনিক ৭ ঘণ্টা ঘুমনোর প্রয়োজন, আপনি সেখানে দিনে ৩-৪ ঘণ্টা ঘুমোন!” অক্ষয়ের মুখের কথাটা কেড়ে নিয়ে সহাস্যে মোদী উত্তর দেন, “যখন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামার সঙ্গে প্রথম দেখা হয়েছিল, তিনিও এই প্রশ্নটা আমাকে করেছিলেন। জিজ্ঞাসা করেছিলেন, কী ভাবে এমনটা সম্ভব হয় আপনার?” একটু থেমে মোদী আবার বলেন, “এখনও যখন আমার সঙ্গে দেখা হয় ওবামার, তিনি খোঁজ নেন, ঘুমের পরিমাণটা বাড়িয়েছেন তো!”

আরও পড়ুন:মুখোমুখি রিল এবং রিয়েল লক্ষ্মী…

আরও একটা ভিডিয়ো টিজারে দেখা যাচ্ছে অক্ষয় বলছেন, আমি যেমন মায়ের সঙ্গে থাকি। আপনার কি কখনও মনে হয় না যে আপনার মা, ভাই এবং পরিবারের সকলেই আপনার সঙ্গে থাকুন?” এর উত্তরে মোদীকে বলতে শোনা যায়, “অনেক ছোট বয়সেই আমি সবাইকে ছেড়েছি।”

 

নির্বাচনের উত্তাপে এখন ফুটছে গোটা দেশ। প্রচার কাজে দেশের নানা প্রান্তে ছুটে বেড়াচ্ছেন মোদী। নির্বাচনী উত্তাপের আবহে এই সাক্ষাত্কারে যে মুডে দেখা গেল মোদীকে, যে ভাবে প্রাণ খুলে হাসতে দেখা গেল তাঁকে, যেন এক অন্য মোদীকে দেখছে গোটা দেশবাসী! অক্ষয় কুমারকে মজাচ্ছলে বেশ কিছু কথা বলতেও শোনা গিয়েছে প্রধানমন্ত্রীকে।