Advertisement
২৩ জুলাই ২০২৪
Meyebela Controversy

‘নেশাগ্রস্তের মতো অভিনয় করছেন রূপা’! ‘মেয়েবেলা’-র বীথি মাসিকে বদলানোর আর্জি দর্শকের

‘মেয়েবেলা’ সিরিয়াল নিয়ে নতুন বিতর্ক। কয়েক দিন আগে প্রকাশ্যে এসেছে নতুন প্রোমো। যা দেখে অবিলম্বে রূপা গঙ্গোপাধ্যায়কে সরানোর আর্জি দর্শকের।

Audience request to replace Roopa Ganguly in Star Jalsha serial Meyebela

রূপার বদলে কোন অভিনেত্রীকে দেখতে চান দর্শক? — ফাইল চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৫ মার্চ ২০২৩ ১৮:৩৮
Share: Save:

বহু বছর পর অভিনয়ে ফিরেছেন রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। ‘মেয়েবেলা’ সিরিয়ালে তাঁকে নিয়মিত দেখেন দর্শক। সিরিয়ালে নায়কের মা বীথি চরিত্রে তাঁকে দেখেন দর্শক। ছেলের নতুন বিয়ের পর থেকেই শুরু হয়েছে এক টানাপড়েন। ছেলের বৌকে মোটে পছন্দ করছেন না শাশু়ড়ি। রূপাকে এমন চরিত্রে মেনে নিতে পারছেন না তাঁর অনুরাগীরা। ফলে নতুন প্রোমো প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই নানা রকম মন্তব্য উড়ে এসেছে।

নানা জনের নানা বক্তব্য। এক জন মন্তব্য করেছেন, “নেশাগ্রস্তের মতো অভিনয়।” আবার কেউ লিখেছেন, “বীথি মাসির চরিত্রে অবিলম্বে রূপা গঙ্গোপাধ্যায়কে সরিয়ে দেওয়া উচিত। তাঁর বদলে এই চরিত্রে ইন্দ্রাণী হালদারকে দেখতে চাই।” এক জন আবার লিখেছেন, “এমন বেয়াদব মহিলাকে দেখতে মোটে মন চায় না। এমন ভাব করে, যেন বাড়ির সবাই খারাপ, একা উনিই শুধু ধোয়া তুলসী পাতা।”

সিরিয়ালে শাশুড়ি-বৌমার দ্বন্দ্ব এই প্রথম নয়। আগেও এমন গল্প দেখেছেন দর্শক। কিন্তু এই সিরিয়ালের ক্ষেত্রে দর্শকের প্রধান উত্তেজনা ছিল রূপাই। এত বছর পর তাঁকে দেখার অপেক্ষাতেই ছিলেন সবাই। কিন্তু এমন মন্তব্য আভাস দিচ্ছে অন্য কিছুরই।

‘মেয়েবেলা’ সিরিয়ালে রাজি হওয়া প্রসঙ্গে আনন্দবাজার অনলাইনকে আগে অভিনেত্রী বলেছিলেন, “আমি একটিই শর্ত দিয়েছিলাম। আমার শর্ত ছিল— গল্পটা বাস্তবসম্মত হতে হবে। অন্দরসজ্জায় পর্দার বেগনি চড়া রং থাকবে না। অতিরঞ্জিত কিছু থাকবে না। যে হেতু আমি রিনা’দি (অপর্ণা সেন), কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়, ঋতুপর্ণ ঘোষের মতো পরিচালকদের সঙ্গে কাজ করেছি, তাই চরিত্রটা যাতে পর্দায় দেখতে বাস্তবসম্মত লাগে, সেটাই চেয়েছি।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE