‘দেবী চৌধুরানী’ ধারাবাহিক শেষ হতে চলেছে চলতি সপ্তাহেই। পরের সপ্তাহ, অর্থাৎ ২৮ অক্টোবর, সোমবার থেকে এই ধারাবাহিকের জায়গায় দেখা যাবে নতুন ধারাবাহিক ‘মোহর’। এই দুই ধারাবাহিকের নায়িকাই সোনামণি সাহা। ফলে, দর্শক তাঁকে দেখতে পাবেন একই সময়ে, তবে ভিন্ন রূপে। কিন্তু ‘দেবী চৌধুরানী’-তে তাঁর চরিত্র প্রফুল্লর গল্প শেষ। ঠিক কোথায় শেষ হল প্রফুল্লর গল্প?

সোনামণি বললেন, “প্রফুল্লকে দেশসেবার কাজে যেতেই হবে। প্রফুল্ল সে কথা জানাতেই ব্রজেশ্বর দেশসেবার কাজে যাওয়ার অনুমতি দেয়। বলে, সে নিজে সংসারের দায়িত্ব বুঝে নেবে। প্রফুল্ল সংসার ছেড়ে দেশসেবার কাজে নিজেকে নিয়োজিত করে। এখানেই প্রফুল্লর গল্প শেষ।”

‘দেবী চৌধুরানী’র সেট মিস করছেন? তিনি জানালেন, “প্রায় বলা যায় এক লাফে ‘দেবী চৌধুরানী’ থেকে ‘মোহর’-এর শুটে। তাই মিস তো করছিই। প্রথম সিরিয়ালের ফ্লোর। মাঝখানে তো আমি কিছুই বুঝতে পারছিলাম না... ‘দেবী চৌধুরানী’ শেষ হওয়ার দুঃখ করব, না কি ‘মোহর’ শুরু হওয়ার আনন্দ করব। দোটানায় পড়ে গিয়েছিলাম।”

আরও পড়ুন: কৃত্রিম পায়েই পুনর্জন্ম, ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনাও বন্ধ করতে পারল না সরস্বতীর বরপুত্রী সুধার বিশ্বজয়

শুটের ফাঁকে সোনামণি-রাহুল

প্রফুল্লর চরিত্র থেকে বেরতে পারলেন? সোনামণি বললেন, “বেরতে একটু সময় লাগবে। তবু লীনাদি রয়েছেন, শৈবালদা রয়েছেন, চ্যানেল কর্তৃপক্ষ রয়েছেন। সবাই আমাকে খুব হেল্প করছেন।”

‘দেবী চৌধুরানী’-র সবার সঙ্গে কথা হচ্ছে? সোনামণি, “হ্যাঁ। আমার শেষ হয়ে গেলেও শুটিং তো এখনও চলছে। মন খারাপ করলেই ওদের দেখার জন্য ভিডিও কল করে নিই।”

রাহুল (মজুমদার) নাকি আপনার মুখে পাথরের টুকরো ঢুকিয়ে দিয়েছিল? সোনামণি, “হা হা হা... হ্যাঁ। আমি শুটের ফাঁকে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। দুষ্টুমি করে আমার মুখে পাথর দিয়ে দিয়েছে। ঘুমের মধ্যে আমি ভেবেছি আমাকে ভালবেসে হয়তো চকোলেটই দিয়েছে। চকোলেট ভেবে খেতে শুরু করেছিলাম। তারপর কিছু ক্ষণ পর বুঝতে পারলাম, এ বাবা! এটা তো পাথর! ফেলে দিলাম।”

ব্রজেশ্বর রাহুল যোগ করলেন, “এমন ঘুমিয়ে ছিল যে একটুও বুঝতে পারেনি। পুরো চকোলেটের মতো পাথরটা চুষে খেল। হা হা হা...”

আরও পড়ুন: বাঙালদের মতো রান্না কেউ পারে না, ঢাকায় বললেন ঋতাভরী

সোনামণির শুটিং শেষ। কেমন লাগছে? রাহুল বললেন, “আমরা তো রোজ চোদ্দো ঘণ্টা শুটিংয়ে থাকি। মা-বাবার থেকেও বেশি সময় কাটাই শুটিং ইউনিটের সঙ্গে। সোনা চলে যাওয়াতে সবারই একটু মনখারাপ। সোনারও ভাল লাগছে না। তবে কথা হয়, ভিডিও কল হয়। কিন্তু আমরা তো পেশাদার। মেনে নিতেই হবে। সোনা চলে যাওয়াতে সব সিন আমাকে নিয়ে হচ্ছে।”

নতুন কাজ? রাহুল বললেন, “আমি তো চ্যানেলের সঙ্গে চুক্তিতে আছি। এটা শেষ হয়ে গেলে চ্যানেল হয়তো কিছু ভেবে রেখেছে আমার জন্য।”