রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কালজয়ী উপন্যাস ‘ঘরে বাইরে’ মুক্তি পেয়েছিল ১৯২৬-এ। গল্পের তিন প্রধান চরিত্র, বিমলা-সন্দীপ-আর নিখিলেশের মধ্যেকার সম্পর্কের টানাপড়েন, রসায়ন, তৎকালীন রাজনৈতিক সমস্যা— সব নিয়েই সেই উপন্যাস পাঠকের হৃদয়ে আজও ভাস্বর।

আবার ফিরছেন তাঁরা, অন্য রূপে, অন্য ভাবে। পরিচালক অপর্ণা সেনের হাত ধরে। ছবির নাম ‘ঘরে বাইরে আজ’। টিজার দেখেই আন্দাজ করা যায় আজকের সামাজিক এবং রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটের সঙ্গে তাল মিলিয়েই গল্প বলবে ওই ছবি। আবারও নিখিলেশ-বিমলা-সন্দীপের সম্পর্কের আভ্যন্তরীণ টানাপড়েন, ওঠানামা, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি সবই ধরা দেবে ওই ছবিতে। তবে যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়েই ছবিতে সন্দীপ হয়েছেন স্যান্ডি, আর বিমলা হয়েছেন বিম্‌লা।

নিখিলেশের চরিত্রে রয়েছেন অনির্বাণ ভট্টাচার্য, বিমলার চরিত্রে তুহিনা দাস এবং সন্দীপের চরিত্রে যিশু সেনগুপ্ত। অনির্বাণ বলছিলেন, সন্দীপ বা বিম্‌লার চরিত্রে পরিবর্তন আনা হলেও নিখিলেশের চরিত্রে সে রকম কোনও বদল আনেননি পরিচালক। শেয়ার করলেন অপর্ণার পরিচালনায় অভিনয়ের অভিজ্ঞতাও। এর আগেও অবশ্য ‘আরশিনগর’ ছবিতে অপর্ণার পরিচালনায় কাজ করেছেন অনির্বাণ। অপর্ণার সঙ্গে কাজ করে উচ্ছ্বসিত তুহিনাও। পরিচালকের সঙ্গে এটিই তাঁর প্রথম কাজ।

আরও পড়ুন: ‘বালিকা বধূ’-র ছোট্ট ‘আনন্দী’-কে মনে আছে? এখন সে কী করছে জানেন?​

আরও পড়ুন: উপোস করলেন নিখিলের জন্য, করে নিলেন বরণও, কেমন কাটল নুসরতের প্রথম ‘করবা চৌথ’​

বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে যে ভাবে ছবিতে দেখানো হয়েছে তাতে করে ‘অসুবিধা’-র মুখে পড়তে হয়নি ‘ঘরে বাইরে আজ’ টিমকে? যেমনটা ‘গুমনামি’ মুক্তির পর হয়েছিল? অনির্বাণ বললেন, “একটা গণতান্ত্রিক দেশে এমনটা হলেই তা আশ্চর্যের। অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। কিন্তু তা সত্ত্বেও হয়। সেটাই অদ্ভুত লাগে।”

আপাতত বিমলা-সন্দীপ-আর নিখিলেশের রসায়ন নতুন আঙ্গিকে দেখতে হলে অপেক্ষা করতে হবে আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত। সে দিনই বড় পর্দায় মুক্তি পাবে ওই ছবি।