×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৬ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

গোলাপি কাঞ্জিভরম, শাঁখা-পলা-সিঁদুরে দক্ষিণেশ্বরে নুসরত, ফ্রেমে যশ ও মদন

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ১২ জানুয়ারি ২০২১ ১৮:২৬
নুসরত জাহান, যশ দাশগুপ্ত ও মদন মিত্র

নুসরত জাহান, যশ দাশগুপ্ত ও মদন মিত্র

অভিনেত্রী-সাংসদ নুসরত জাহান এবং যশ দাশগুপ্তের বিশেষ সম্পর্ক নিয়ে যখন টলিপাড়া উত্তাল, তখন প্রকাশ্যে এল আরও এক চমকপ্রদ তথ্য। যে তথ্য বলছে, ‘যশরত’ (যশ-নুসরত) দক্ষিণেশ্বরের কালীমন্দিরে গিয়েছিলেন। তাঁদের সঙ্গী ছিলেন তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী মদন মিত্র।

সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা ভিডিয়োতে নুসরতকে গোলাপি কাঞ্জিভরম শাড়িতে দেখা যাচ্ছে। খোলা একঢাল চুল। হাতে শাখা-পলা। সিঁথিতে সিঁদুর। তাঁর একদিকে দাঁড়িয়ে যশ। মাথায় টুপি, মুখে মাস্ক, টি শার্ট আর জিন্‌সের ট্রাউজার্সে। অন্য পাশে গাঢ় নীল বন্‌ধ-গলা পরিহিত মদন। ছবির তারিখ বলছে, ওই দৃশ্য ডিসেম্বরের মাঝামাঝি। যে সূত্রে প্রশ্ন উঠছে, তা হলে কি কালীমন্দিরে যাওয়ার পরেই যশ এবং নুসরতের সোশ্যাল মিডিয়ায় মরুভূমির পটভূমিকায় ছবি দেখা গিয়েছে। অজমের শরিফের দরগার বাইরেও দু’জনের ছবি দেখা গিয়েছে।


তবে দক্ষিণেশ্বরের ভবতারিণী মন্দিরে যে ফ্রেম দেখা গিয়েছে, তেমন ফ্রেম এর আগে বিশেষ দেখা যায়নি। ভিডিয়োয় দেখা যাচ্ছে, নুসরতের সঙ্গে মদনের অন্তরঙ্গ আলাপচারিতা হচ্ছে। কী কথা তাহার সাথে? ভিডিয়োতে তা বোঝা না যায়নি। তবে দেখা গিয়েছে, হাসিমুখে একে অপরের সঙ্গে হাত মেলালেন। কেন গিয়েছিলেন যশ-নুসরত দক্ষিণেশ্বরের মন্দিরে? মদন কি তাঁদের সঙ্গে গিয়েছিলেন? নাকি মন্দিরে গিয়েই দেখা হয়ে গেল দু’পক্ষের? কী হল সেখানে? সে বিষয়ে কেউ কোথাও মুখ খোলেননি। মদনের ফোন নিরন্তর বেজে গিয়েছে। আনন্দবাজার ডিজিটালেরই প্রথম নজরে আসে ওই ছবি আর ভিডিয়ো। তবে তৃণমূলের একাংশ জানাচ্ছে, মদন আগে কামারহাটির বিধায়ক ছিলেন। দক্ষিণেশ্বর কালীমন্দির কামারহাটি এলাকার কাছাকাছি। সেই কারণেও মদন সেখানে গিয়ে থাকতে পারেন।

Advertisement

আরও পড়ুন: সন্তানের কাছে মা-বাবা না থাকলে সে ছন্নছাড়া হয়ে যায়, মনে করেন হবু-মা মধুবনী

রাজস্থানে বর্ষশেষে ছুটি কাটানোর সময় থেকেই নেটাগরিকদের নজরে পড়েছেন যশ-নুসরত। রাজস্থান থেকে ফিরে আসার পরে মুখে কুলুপ এঁটেছেন যশ। সোশ্যাল মিডিয়াতেও তিনি নীরব। শুধু বলেছেন, প্রতি বছরের শেষেই তিনি একটি রোড ট্রিপ করে থাকেন। এ বারেও গিয়েছিলেন। এইপর্যন্তই। কীসের এত লুকোচুরি, জানে না কেউ। নুসরত অবশ্য ছবি এবং স্টোরি পোস্ট করছেন। একটি স্টোরিতে তিনি লিখেছেন, তিনি জানেন নিজের টেবিলে কী খাবার এনেছেন। তাই সে খাবার একা খেতেও কোনও অসুবিধা নেই তাঁর। অর্থাৎ, নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থাকার কথাই আকারে-ইঙ্গিতে সকলকে জানিয়ে দিয়েছেন নুসরত। যে যা-ই বলুক, তিনি যে কোনও ব্যাপারেই বিচলিত নন, তা বার বার জানাচ্ছেন নুসরত।


A post shared by 🖤🖤𝖄𝖆𝖘𝖍 𝕯𝖆𝖘𝖌𝖚𝖕𝖙𝖆 𝕷𝖔𝖛𝖊𝖗 🖤🖤 (@yashiaans_are_always_special_)

আরও পড়ুন: মাদক মামলায় গ্রেফতার বিবেক ওবেরয়ের শ্যালক

যশের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে সরাসরি কোনও কথা না বললেও নুসরত আনন্দবাজার ডিজিটালকে জানিয়েছেন, অভিনেত্রী এবং সাংসদ হিসেবে কাজ নিয়ে তাঁর বিচার হোক। তাঁর ব্যক্তিগত জীবন ‘পাবলিকের খাদ্য’ নয়। হওয়াও উচিত নয়। তবে নুসরত যা-ই বলুন না কেন, শুধু রাজস্থান নয়। বিলাসবহুল রিসর্টে যশ-নুসরতের একসঙ্গে সময় কাটানোর কথাও এখন আর অজানা নয়। এর মধ্যে ঘটনাপ্রবাহে মদনের প্রবেশ এবং শাঁখা-পলা-সিঁথিতে সিঁদুরে ভবতারিণী মন্দিরে নুসরত-যশের সফর ঘটনাপ্রবাহে নতুন কিছু যোগ করবে কিনা, সেটাই এখন দেখার।

Advertisement