Advertisement
০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
vidya balan

বিস্ময়প্রতিভার বায়োপিকের নতুন পোস্টারে বিশ্ব গণিত দিবস উদযাপন বিদ্যার

সবাইকে বিস্মিত করার সেই ধারা শকুন্তলা বজায় রেখেছিলেন জীবনভর। দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় তো বটেই। তাঁর বিস্ময়-প্রতিভার সাক্ষী ছিল বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ও। কম্পিউটারের থেকেও কম সময়ে সবার চোখের সামনে বলে দিয়েছিলেন জটিল অঙ্কের হিসেব। গিনেস বুক অব ওয়র্ল্ড রেকর্ডে জায়গা পায় তাঁর বিরল ক্ষমতা।

শকুন্তলা দেবীর ভূমিকায় বিদ্যা বালন। ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া।

শকুন্তলা দেবীর ভূমিকায় বিদ্যা বালন। ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া।

সংবাদ সংস্থা
শেষ আপডেট: ১৫ অক্টোবর ২০১৯ ১৪:০৬
Share: Save:

বিশ্ব গণিত দিবসে প্রকাশিত হল গণিত-সম্রাজ্ঞীর বায়োপিকের নতুন পোস্টার।

Advertisement

মঙ্গলবার সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর আগামী ছবি ‘শকুন্তলা দেবী: হিউম্যান কম্পিউটার’-এর নতুন মোশন পোস্টার শেয়ার করেন বিদ্যা বালন। টুইটে বিদ্যা লিখেছেন, তিনি এই পোস্টারের সঙ্গেই গণিতের সেই বিস্ময়-প্রতিভাকে স্মরণ করছেন।

‘তুমহারি সুলু’-র গৃহবধূ, ‘মিশন মঙ্গল’-এর বিজ্ঞানীর পরে আবার ছক ভেঙেছেন বিদ্যা। আসন্ন ছবিতে তিনি শকুন্তলা দেবীর ভূমিকায়। বিস্ময়প্রতিভা শকুন্তলা দেবীকে বলা হত ‘হিউম্যান কম্পিউটার’।

তাঁর জন্ম, ১৯২৯ সালের ৪ নভেম্বর, কর্ণাটকের মাইসুরুতে। গোঁড়া ও রক্ষণশীল কন্নড় পরিবারের বেড়াজাল ভেঙেছিলেন তাঁর বাবা। পারিবারিক পেশা পৌরোহিত্য গ্রহণ না করে কাজ নিয়েছিলেন সার্কাসে। প্রথমে ট্রাপিজের খেলা, তারপরে সিংহের প্রশিক্ষক।

Advertisement

She changed the way the world perceived numbers! Celebrating the math genius, #ShakuntalaDevi on #WorldMathematicsDay @sanyamalhotra_ @sonypicsprodns @directormenon @ivikramix @sneharajani_ @abundantiaent

A post shared by Vidya Balan (@balanvidya) on

এই সেই মোশন পোস্টার, যা শেয়ার করেছেন বিদ্যা বালন।

উজান স্রোতে পাড়ি দেওয়া সেই তরুণ চমকে গিয়েছিলেন নিজের শিশুকন্যার প্রতিভায়। অবসরে সার্কাসের তাঁবুতে মেয়ের সঙ্গে তাস খেলতেন তিনি। এবং খুদের কাছে হেরে যেতেন বাবা! বালিকার আশ্চর্য স্মরণশক্তির কাছে হার মানতে হত তাঁকে। একদিন সার্কাস ছেড়ে মেয়েকে নিয়ে শুরু করলেন রোড শো। বড় বড় সংখ্যা অবলীলায় মনে রেখে উপস্থিত জনতাকে চমকে দিতেন শকুন্তলা।

বিস্ময়-প্রতিভা শকুন্তলা দেবী। ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া।

সবাইকে বিস্মিত করার সেই ধারা শকুন্তলা বজায় রেখেছিলেন জীবনভর। দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় তো বটেই। তাঁর বিস্ময়-প্রতিভার সাক্ষী ছিল বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ও। কম্পিউটারের থেকেও কম সময়ে সবার চোখের সামনে বলে দিয়েছিলেন জটিল অঙ্কের হিসেব। গিনেস বুক অব ওয়র্ল্ড রেকর্ডে জায়গা পায় তাঁর বিরল ক্ষমতা।

সংখ্যা নিয়ে খেলা করা শকুন্তলা দেবী জ্যোতিষচর্চাও করতেন। বই লিখেছেন জ্যোতিষ, সমকামিতা-সহ নানা বিষয়ে।

আগামী গ্রীষ্মে মুক্তি পাবে বিদ্যার নতুন সিনেমা। ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া।

ছয়ের দশকে শকুন্তলা দেবী বিয়ে করেছিলেন বাঙালি আইএএস আধিকারিককে। কিন্তু কয়েক বছর পরে ভেঙে গিয়েছিল দাম্পত্য। ২০১৩ সালের ৪ নভেম্বর ৮৩ বছর বয়সে প্রয়াত হন গণিতকন্যা শকুন্তলা। তাঁর এই বর্ণময় জীবনকেই অণু মেননের পরিচালনায় সেলুলয়েডরূপ দিচ্ছেন বিদ্যা বালন। ছবির শুটিং চলছে। মুক্তি পাবে আগামী গ্রীষ্মে। ছবিতে বিদ্যা তথা শকুন্তলা দেবীর একমাত্র মেয়ের ভূমিকায় অভিনয় করছেন সানিয়া মলহোত্র।

ছবির নতুন মোশন পোস্টারটি তৈরি করা হয়েছে বিশেষত মোবাইল এবং কম্পিউটারে দেখার জন্যই। বিশ্ব গণিত দিবসে সেটি বাজিমাত করেছে নেটিজেন মহলে। ১৫ অক্টোবর দিনটি পালিত হয় ‘বিশ্ব গণিত দিবস’ হিসেবে। এছাড়াও, ১৪ মার্চ দিনটিকে বলা হয় ‘আন্তর্জাতিক গণিত দিবস’।

আরও পড়ুন: ভাইয়ের হবু স্ত্রী আলিয়ার সঙ্গে রসায়ন কেমন? করিনা বললেন..

আরও পড়ুন: শৈশব কাটে বস্তিতে, পথে কলম ফেরি করা স্কুলছুট ছেলেটাই আজ প্রতিষ্ঠিত কমেডিয়ান

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.