Advertisement
০৩ মার্চ ২০২৪
frozen shoulder

অফিসে কাজের সময় মাঝেমাঝেই ঘাড় শক্ত হয়ে যায়? কী ভাবে ‘ফ্রোজ়েন শোল্ডার’ থেকে রেহাই পাবেন?

ডায়াবিটিস, থাইরয়েড, হার্টের আসুখ থাকলে ফ্রোজ়েন শোল্ডারের ঝুঁকি বাড়ে। শরীরে হরমোনের ভারসাম্য বিগড়ে গেলে কিংবা কোনও চোট-আঘাত থেকেও এই রোগ হতে পারে। ফ্রোজ়েন শোল্ডারের সমস্যা থাকলে কী ভাবে যন্ত্রণার হাত থেকে রেহাই পাবেন?

‘ফ্রোজ়েন শোল্ডার’ থেকে কী ভাবে রেহাই পাবেন?

‘ফ্রোজ়েন শোল্ডার’ থেকে কী ভাবে রেহাই পাবেন? ছবি: শাটারস্টক।

আনন্দবাজার অনলাইন ডেস্ক
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৭:২৭
Share: Save:

অফিসে একটানা বসে কাজ করার মাঝে হাত নাড়াচড়া করতে গেলে কাঁধে প্রবল যন্ত্রণা হয়। সমস্যার নাম ‘ফ্রোজ়েন শোল্ডার’। মনে হয় যেন কাঁধটা শক্ত হয়ে গিয়েছে, কোনও ভাবেই নাড়ানো যাচ্ছে না। এই রোগে আক্রান্ত হলে কাঁধের বল ও সকেট সন্ধি আক্রান্ত হয়। বয়স ৪০ পেরোলেই এই রোগের ঝুঁকি বেশি করে দেখা দেয়। ডায়াবিটিস, থাইরয়েড, হার্টের আসুখ থাকলে ফ্রোজ়েন শোল্ডারের ঝুঁকি বাড়ে। শরীরে হরমোনের ভারসাম্য বিগড়ে গেলে কিংবা কোনও চোট-আঘাত থেকেও এই রোগ হতে পারে। ফ্রোজ়েন শোল্ডারের সমস্যা থাকলে কী ভাবে যন্ত্রণার হাত থেকে রেহাই পাবেন?

১) ‘ফ্রোজ়েন শোল্ডার’ থেকে রেহাই পেতে ঘুমের সঙ্গে কোনও রকম আপস চলবে না। ঘুমোনোর সময়ে শোয়ার ধরন ঠিক রাখতে হবে। ভুল ভঙ্গিমায় শুলেই ঘাড়ে ব্যথা বাড়বে। খুব বেশি উঁচু কিংবা শক্ত বালিশ নিয়ে ঘুমোবেন না।

২) অফিসে যখনই ক্লান্ত লাগবে বা কাঁধে যন্ত্রণা হবে, তখন চেয়ারে বসে না থেকে মিনিট দশেকের বিরতি নিন। ওই সময় হাঁটাহাঁটি করুন। হাতের ব্যায়াম করতে থাকুন।

৩) ‘লং ড্রাইভ’-এ যেতে পছন্দ? তবে ফ্রোজ়েন শোল্ডার থাকলে একটানা অনেক ক্ষণ গাড়ি চালানো মোটেই আপনার জন্য ভাল হবে না, এতে সমস্যা বাড়বে।

৪) যতটা সম্ভব নিজেকে মানসিক চাপমুক্ত রাখুন। মানসিক চাপ, উদ্বেগ, চিন্তা বাড়লেই ঘুম কম হবে, ক্লান্তি থেকে ঘাড়ে ব্যথা হবে।

৫) ‘ফ্রোজ়েন শোল্ডার’ সারাতে ব্যায়াম ছাড়া উপায় নেই। রোজ ঘুম থেকে উঠে নিয়ম করে ঘাড়ের হালকা ব্যায়াম করুন। খুব ভাল ফল পাওয়া যায় যোগাসন করলে। মার্জারাসন, সেতুবন্ধনাসন, গরুড়াসন, গোমুখাসনের ইত্যাদি নিয়মিত অভ্যাস করলে ‘ফ্রোজ়েন শোল্ডার’-এর সমস্যা থেকে রেহাই পেতে পারেন।

ব্যথা অসহ্য বোধ হলে কী করবেন?

‘ফ্রোজ়েন শোল্ডার’-এর যন্ত্রণা বাড়লে হালকা গরম জলে সৈন্ধব লবণ মিশিয়ে চার-পাঁচ মিনিট স্নান করুন। স্নান করার সময়ে ঘাড় নাড়াচাড়া করবেন না। আস্তে আস্তে ঘাড়ের পেশিগুলি শিথিল হতে শুরু করবে। এ ছাড়া ঘাড়ের ব্যথা যদি অসহ্য হয়ে ওঠে, তা হলে বেশ কিছু ক্ষণ আইস প্যাক চাপা দিয়ে রাখুন। খানিক ক্ষণের মধ্যেই আরাম পাবেন। ঘাড়ের উপর হিটিং প্যাড চেপে রাখলেও রক্ত সঞ্চালন বেড়ে ঘাড়ে ব্যথা কমবে। ব্যথা বাড়াবাড়ি পর্যায়ে পৌঁছলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ফিজ়িও থেরাপি করাতে হবে। প্রয়োজনে অস্ত্রোপচারও করাতে হতে পারে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE