×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৫ জুলাই ২০২১ ই-পেপার

ভুল শোধরাতে জোট চান কাকা-ভাইপো

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি ২০ নভেম্বর ২০২০ ০৫:১৮
বাইশের নির্বাচনে সন্ধির পথে হাঁটতে চান ভাইপো অখিলেশ সিংহ যাদব এবং কাকা শিবপাল যাদব। —ফাইল চিত্র।

বাইশের নির্বাচনে সন্ধির পথে হাঁটতে চান ভাইপো অখিলেশ সিংহ যাদব এবং কাকা শিবপাল যাদব। —ফাইল চিত্র।

যদু বংশে ‘খুড়ো ভাইপো’-র যুদ্ধে এসপি-র লাভের চেয়ে ক্ষতি হয়েছে বেশি। ২০১৭ সালের উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা ভোটের সেই ‘ভুল’ থেকে শিক্ষা নিয়ে বাইশের নির্বাচনে সন্ধির পথে হাঁটতে চান ভাইপো অখিলেশ সিংহ যাদব এবং কাকা শিবপাল যাদব। উত্তরপ্রদেশের রাজনৈতিক সূত্রে এ কথা জানা গিয়েছে।

উত্তরপ্রদেশের সদ্যসমাপ্ত ৭ টি আসনের উপনির্বাচনে মাত্র একটিতে জয়ী হয়েছেন এসপি প্রার্থী। বাকি ছ’টি আসনই পেয়েছে বিজেপি। কিন্তু তাতে হতোদ্যম না হয়ে বিজেপি-র সঙ্গে পাঞ্জা কষতে কৌশল গড়া শুরু করেছেন অখিলেশ— এমনই দাবি করছে এসপি সূত্র। আপাতত যে কৌশল ভাবা হয়েছে, তার অন্যতম হল শিবপাল যাদবের প্রগতিশীল সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে জোট গড়ে লড়া। তাতে যাদব ভোট ব্যাঙ্ককে এক ছাতার তলায় রাখা যাবে বলেই মনে করা হচ্ছে। এই লক্ষ্যে অখিলেশের সঙ্গে শিবপালের কয়েক বার কথাও হয়েছে। ২০১৭-র বিধানসভা এবং ১৯-এর লোকসভা ভোটে অখিলেশের সঙ্গে শিবপালের বিরোধে যাদব বলয়ে যে ক্ষতি হয়েছে এসপি-র তা এর ফলে অনেকটাই কাটিয়ে ওঠা যাবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

যাদব ভোটের পাশাপাশি সংখ্যালঘু ভোটকেও নজরে রেখেছেন এসপি নেতৃত্ব। কংগ্রেসের সঙ্গে জোট গড়ার সম্ভাবনা কার্যত উড়িয়ে দিচ্ছেন তাঁরা। শুধু তাই নয়, তাঁদের দাবি, রাহুল প্রিয়ঙ্কা উত্তরপ্রদেশের তৃণমূল রাজনীতি থেকে অনেকটাই দূরে সরে গিয়েছেন। তাঁদের পক্ষে মুসলিম ভোট ব্যাঙ্ককে একজোট করা বা এসপি-র ভোটব্যাঙ্কে চিড় ধরানো সম্ভব হবে না। যাঁদের বিজেপি-কে হারানোর ক্ষমতা রয়েছে, সংখ্যালঘুরা একজোট হয়ে তাঁদেরই ভোট দেবে।

Advertisement

আরও পড়ুন: প্রযুক্তি-সমাধানে ‘ভারত-নির্ভরতা’ চান মোদী

অন্য বিরোধী দল মায়াবতীর বিএসপি যে বিজেপি-র ‘বি টিম’-এর পরিণত হয়েছে, এমনই প্রচার করতে শুরু করেছেন অখিলেশরা। উত্তরোত্তর এই প্রচার বৃদ্ধি পাবে। সম্প্রতি মায়াবতী তাঁর দলের দুই শীর্ষ পর্যায়ের পদ থেকে দানিশ আলি এবং মানকর আলিকে সরিয়ে দেওয়ায় রাজ্যের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কাছে বিএসপি সম্পর্কে নেতিবাচক বার্তা গিয়েছে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক সূত্র। মায়াবতী সম্প্রতি যে বিবৃতি দিয়েছেন (‘এসপি-কে হারানোর জন্য প্রয়োজনে বিজেপি প্রার্থীকেও ভোট দিতে হবে’), তার ফলে মোদী-অমিত শাহের প্রতি বিএসপি নেত্রীর আনুগত্যই প্রকাশ পাচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। ফলে চিরাচরিত যাদবদের সঙ্গে সংখ্যালঘু ভোটব্যাঙ্ককে নিজের দিকে আনার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী মুলাময় সিংহের পুত্র। একই সঙ্গে ঠাকুর যোগী আদিত্যনাথের ব্রাহ্মণদের উপর ‘আক্রমণাত্মক নীতির’ কারণে সমাজের এই শ্রেণি বিজেপি-র উপর রুষ্ট—এমনটাই মনে করছে উত্তরপ্রদেশের রাজনৈতিক শিবির। ফলে বাইশের ভোটের আগে ব্রাহ্মণদের মন জয় করার জন্যও ঝাঁপাবে এসপি।

আরও পড়ুন: পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরে জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস করল সেনা

Advertisement