Advertisement
৩০ নভেম্বর ২০২৩
POCSO

বাড়িতে পড়তে এসেছিল ছাত্রী, অপহরণ করে ধর্ষণ, যাবজ্জীবন হল মাদ্রাসার শিক্ষকের

রাজস্থানের ঝালওয়ারের ওই আদালত সাজা ঘোষণা করে জানিয়েছে, দোষী শিক্ষকের এই কাণ্ড শিক্ষকতার পেশাকেই ছোট করেছে। লজ্জার মুখে ঠেলে দিয়েছে।

ছাত্রীকে ধর্ষণের দায়ে মাদ্রাসা শিক্ষককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিল পকসো আদালত।

ছাত্রীকে ধর্ষণের দায়ে মাদ্রাসা শিক্ষককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিল পকসো আদালত। ছবি: প্রতীকী

সংবাদ সংস্থা
কোটা শেষ আপডেট: ২০ জানুয়ারি ২০২৩ ১০:৩০
Share: Save:

১৬ বছরের ছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অপরাধে এক মাদ্রাসা শিক্ষককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিল পকসো আদালত। রাজস্থানের ঝালওয়ারের ওই আদালত সাজা ঘোষণা করে জানিয়েছে, দোষী শিক্ষকের এই কাণ্ড শিক্ষকতার পেশাকেই ছোট করেছে। লজ্জার মুখে ঠেলে দিয়েছে। দোষীকে ২ লক্ষ ১০ হাজার টাকা জরিমানাও করেছে আদালত।

দোষীর নাম আখলাখ খান। বাড়ি রতলাই থানায়। সরকারি আইনজীবী লালচাঁদ মিনা জানান, আখলাখের বাড়িতে উর্দু শিখতে আসত নির্যাতিতা কিশোরী। ২০১৯ সালের ২৩ জানুয়ারি থানায় একটি অভিযোগ করেন কিশোরীর বাবা। তিনি জানান, আগের দিন, ২২ জানুয়ারি আখলাখের কাছে পড়তে গিয়েছিল মেয়ে। তার পর আর বাড়ি ফেরেনি। আখালখেরও খোঁজ মেলেনি। পুলিশ অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা দায়ের করে। কিশোরীর খোঁজ শুরু হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, কামখেড়ায় আটকে রাখা হয়েছিল কিশোরীকে। ২০১৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সেখান থেকে পালিয়ে থানায় অভিযোগ জানায় কিশোরী। কিশোরীর অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতীয় দণ্ডবিধি এবং পকসো ধারায় ধর্ষণের মামলা দায়ের করে পুলিশ। ২০১৯ সালের ৭ মার্চ আখলাখকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পকসো আদালতের বিশেষ বিচারক মহাবীর প্রসাদ গুপ্ত দোষী সাব্যস্ত করেন আখলাখকে। তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা দিয়েছেন তিনি। বিচারকের পর্যবেক্ষণ, আখলাখের অপরাধ শিক্ষকতার পেশাকে ছোট করেছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE