Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

Aryan Khan Case: : দাউদ-ঘনিষ্ঠের সঙ্গে যোগ, ফডণবীস জাল টাকার চক্রকে নিরাপত্তা দিতেন! বিস্ফোরক নবাব

নবাবের অভিযোগ, ফডণবীস মহারাষ্ট্রের ক্ষমতায় থাকাকালীন এমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগ করেছিলেন যাঁদের ‘যোগাযোগ’ ছিল পাকিস্তানের সঙ্গে।

সংবাদ সংস্থা
মুম্বই ১০ নভেম্বর ২০২১ ১২:২৬
Save
Something isn't right! Please refresh.
গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ।

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ।

Popup Close

আরিয়ান মাদক মামলা রাজনৈতিক মোড়় নিতে নিতে এখন নবাব মালিক বনাম দেবেন্দ্র ফডণবীসের ‘যুদ্ধে’ পরিণত হয়েছে। একের পর এক অভিযোগের বাণ পরস্পরের দিকে ছুড়ে চলেছেন দুই নেতা। যা বুধবার আরও বড় আকারে প্রকাশ্যে এসেছে। এ বার বিজেপি নেতা দেবেন্দ্র ফডণবীসের বিরুদ্ধে আরও গুরুতর অভিযোগ আনলেন মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা এনসিপি নেতা নবাব মালিক।

মঙ্গলবারই নবাব হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন বুধবার তিনি ‘হাইড্রোজেন বোমা’ ফাটাতে চলেছেন। সেই কথা মতো বুধবার ফডণবীসের বিরুদ্ধে ফের অন্ধকার জগতের সঙ্গে যোগাযোগের অভিযোগ আনলেন তিনি। শুধু অভিযোগ আনাই নয়, দাউদ-ঘনিষ্ঠ রিয়াজ ভাট্টির সঙ্গে ফডণবীসের যে ভাল যোগাযোগ ছিল সেই দাবিও করেন তিনি।

নবাবের অভিযোগ, ফডণবীস যখন মহারাষ্ট্রের ক্ষমতায় ছিলেন সে সময় কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদে এমন কিছু নিয়োগ করেছিলেন যাঁদের পাকিস্তানের সঙ্গে ‘যোগাযোগ’ ছিল। শুধু তাই নয়, মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থা (এনসিবি)-র আঞ্চলিক অধিকর্তা সমীর ওয়াংখেড়েকে কাজে লাগিয়ে জাল টাকার চক্রকে নিরাপত্তা দিতেন ফডণবীস, এমন অভিযোগও করেন নবাব।

Advertisement

এনসিপি নেতা বলেন, “আমি প্রশ্ন করতে চাই রিয়াজ ভাট্টি কে? ভুয়ো পাসপোর্ট নিয়ে ধরা পড়েছিল সে। দাউদের সঙ্গে ওর ঘনিষ্ঠ যোগ রয়েছে। দু’টি পাসপোর্ট থাকা সত্ত্বেও রিয়াজকে ছেড়ে দিয়েছিল ফডণবীসের সরকার।” তাঁর আরও প্রশ্ন, “রিয়াজকে কেন ফডণবীসের অনুষ্ঠানে দেখা গিয়েছিল?”

মঙ্গলবারই নবাবের বিরুদ্ধে ১৯৯৩-এ মুম্বই বিস্ফোরণের ঘটনা নিয়ে অভিযোগ তুলেছিলেন ফডণবীস। তাঁর অভিযোগ ছিল, মুম্বই বিস্ফোরণের দুই অভিযুক্তের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ভুয়ো নথি ব্যবহার করে কুরলাতে জমি কিনেছিলেন নবাব এবং তাঁর পরিবার। এ বার সেই অন্ধকার জগতের সঙ্গেই ফডণবীসকে জড়িয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ আনলেন নবাব।

তাঁর কথায়, “ফডণবীসের মদতে মহারাষ্ট্রে জাল টাকার খেলা শুরু হয়েছিল। নোটবন্দি ঘোষণার পরই বিভিন্ন রাজ্যে জাল টাকা বাজেয়াপ্ত হয়েছিল। মহারাষ্ট্রেও ধরা পড়েছিল। কিন্তু চার বছর পেরিয়ে গেলেও কোনও মামলা দায়ের হয়নি। ২০১৭-তে রাজস্ব দফতর অভিযান চালিয়ে ১৪ কোটি ৫৬ লক্ষ টাকা জাল টাকা উদ্ধার করেছিল। কিন্তু তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী ফডণবীস সেই মামলাকে ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন।” শাহরুখ-পুত্র আরিয়ান মামলার প্রসঙ্গ তুলে নবাবের আরও অভিযোগ, সব নিরীহ মানুষদেরই মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করেন ফডণবীস।



Something isn't right! Please refresh.

Advertisement