×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৮ মে ২০২১ ই-পেপার

প্রসূতি মুসলিম! হাসপাতাল ফেরানোয় মৃত্যু নবজাতকের

সংবাদ সংস্থা
জয়পুর ০৫ এপ্রিল ২০২০ ০২:৪৬
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

ধর্মের কারণে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তি না করার অভিযোগ উঠল রাজস্থানের সরকারি হাসপাতালের ডাক্তারের বিরুদ্ধে। পরে ওই মহিলা অ্যাম্বুল্যান্সের মধ্যে প্রসব করলেও সদ্যোজাতের মৃত্যু হয়েছে।

মহিলার স্বামী ইরফান খানের অভিযোগ, ‘‘আমার স্ত্রীকে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় সিকরি এলাকার স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখান থেকে আমাদের ভরতপুরের মহিলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু সেখানে ডাক্তারেরা জানিয়ে দেন, যে হেতু আমরা মুসলিম তাই আমাদের জয়পুরে যেতে হবে।’’' তাঁর বক্তব্য, ‘‘অ্যাম্বুল্যান্সে করে জয়পুরে নিয়ে যাওয়ার সময়েই আমার স্ত্রী সন্তানের জন্ম দেন। কিন্তু আমাদের সন্তান বাঁচেনি। আমাদের সন্তানের মৃত্যুর জন্য জেলা প্রশাসনই দায়ী।’’

ভরতপুরের মহিলা হাসপাতালের প্রিন্সিপাল রূপেন্দ্র ঝা-র বক্তব্য, ‘‘এক অন্তঃসত্ত্বা মহিলা এসেছিলেন। অবস্থা সঙ্কটজনক হওয়ায় ওই মহিলাকে জয়পুরে রেফার করা হয়েছিল। তবে কোনও ত্রুটি ঘটে থাকলে তার তদন্ত করা হবে।’’ ঘটনাটি নিয়ে টানাপড়েন শুরু হয়েছে রাজস্থানের কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন সরকারের অন্দরে। ঘটনা সরব হয়েছেন রাজস্থানের পর্যটনমন্ত্রী বিশেন্দ্র সিংহ। তাঁর দাবি, ‘‘মুসলিম মহিলাকে ধর্মের জন্য ভরতপুরের মহিলা হাসপাতাল থেকে জয়পুরে পাঠানো হল। ভরতপুরের বিধায়কই রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী। বিষয়টি লজ্জাজনক।’’" তাঁর দাবি, ভরতপুর হাসপাতালের গাইনোকোলজি বিভাগের ডাক্তার মোনিত ওয়ালিয়াই ধর্মের জন্য ওই মহিলাকে ভর্তি করতে চাননি। এই প্রসঙ্গে করোনা প্রসঙ্গও টেনে এনেছেন বিশেন্দ্র। তাঁর বক্তব্য, ‘তবলিগি জামাতের সম্মেলন থেকে নিশ্চয়ই করোনা সংক্রমণ হয়েছে। কিন্তু তার অর্থ এ নয় যে মুসলিমেরা ভরতপুরের হাসপাতালের মতো ব্যবহার পাবেন।এটা ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র। ওই ডাক্তারের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা হবে।’’ এআইএমআইএম নেতা আসাদউদ্দিন ওয়েইসির বক্তব্য, ‘‘ভরতপুরের হাসপাতালের কর্মীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া উচিত। এমন ঘৃণার পরিবেশ তৈরি হচ্ছে যে তার ফলেই প্রাণ হারাচ্ছেন মানুষ। এখন কি মুসলিমেরা হাসপাতালেও যাওয়া বন্ধ করে দেবেন? মৌলবাদী হিন্দুত্ব কি সরকারি প্রশ্রয় পাচ্ছে? না সমাজের বড় অংশই মৌলবাদকে সমর্থন করছে? এই অবস্থা বদলাতে কোনও পদক্ষেপ করা হবে কি’’

Advertisement

আরও পড়ুন: নিজামুদ্দিন নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ, মেনে নিল কেন্দ্র

(অভূতপূর্ব পরিস্থিতি। স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিয়ো আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, feedback@abpdigital.in ঠিকানায়। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।)

Advertisement