Advertisement
২৯ জানুয়ারি ২০২৩
m

Chandrasekhar Rao: বৈঠকে না এসেও নিমগাছে কেসিআর! তড়িঘড়ি সরালেন সুখেন্দুশেখর

কেসিআর তৃণমূলের বৈঠকে যোগ দেবেন না আগে থেকেই জানা ছিল। বৈঠকস্থলে গিয়ে তৃণমূলের রাজ্যসভার মুখ্য আহ্বায়ক সুখেন্দুশেখর রায়ের চক্ষু নিমগাছে!

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ১৬ জুন ২০২২ ০৮:২১
Share: Save:

বিরোধী বৈঠকের জন্য নয়াদিল্লির কনস্টিটিউশন ক্লাব বুধবার সকাল থেকে রাত আটটা পর্যন্ত ভাড়া নিয়েছিল আয়োজক দল তৃণমূল কংগ্রেস। গত কাল গভীর রাতের মধ্যেই স্পষ্ট হয়ে যায়, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকা বৈঠকে শেষ পর্যন্ত কোন কোন দল আসছে না। দলীয় সূত্রের মতে— তেলঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতিকে আনুষ্ঠানিক আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়েছিল ঠিকই, কিন্তু জানাই ছিল, ভিন্ন ফ্রন্ট গড়়তে ব্যস্ত কে চন্দ্রশেখর রাও এই বৈঠকে যোগ দেবেন না।

Advertisement

এই পর্যন্ত সব ঠিকঠাকই ছিল। কিন্তু সকালে বৈঠকস্থলে গিয়ে তৃণমূলের রাজ্যসভার মুখ্য আহ্বায়ক সুখেন্দুশেখর রায়ের চক্ষু কার্যত নিমগাছে! কারণ অনুষ্ঠানস্থলের গেটে, নিমগাছের সঙ্গে অতিকায় একটি কাট আউট লাগানো হয়েছে টিআরএস নেতা চন্দ্রশেখর রাওয়ের! যিনি কি না যোগই দিচ্ছেন না! অবিলম্বে লোক ডেকে ওই কাট আউট খোলার ব্যবস্থা করেন সুখেন্দুশেখরবাবু।

কালই কেসিআর হায়দরাবাদে একটি দীর্ঘ দলীয় বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, মমতার ডাকা বিরোধী বৈঠকে যোগ না-দেওয়ার। দলের অধিকাংশের মত ছিল, তাড়াহুড়ো করে এই বৈঠক ডাকা হয়েছে। অন্য বিরোধী দলগুলির সঙ্গে আলোচনা করা হয়নি। তা ছাড়া কংগ্রেস এবং বিজেপির থেকে সমদূরত্ব বজায় রাখার নীতিই আপাতত নিয়ে চলছে টিআরএস। কিন্তু কাটআউটের উপস্থিতি তাতে আটকায়নি!

টিআরএস-এর না-আসা প্রত্যাশিত হলেও, আপ-এর মণীশ সিসৌদিয়া অথবা সঞ্জয় সিংহের কোনও এক জনকে আশা করছিলেন তৃণমূল নেতৃত্ব। কিন্তু আপ-এর পক্ষ থেকে কেউ যোগ দেননি। আপ নেতা অরবিন্দ কেজরীওয়ালের সঙ্গে মমতার ব্যক্তিগত সম্পর্ক অত্যন্ত ভাল। গত বার মমতার দিল্লি সফরে অরবিন্দ গিয়ে দেখা করেও এসেছিলেন নেত্রীর সঙ্গে। কিন্তু বুধবারের বৈঠকে কংগ্রেস থাকায় আপ একই মঞ্চে যোগদানে বিরত হল বলেই মনে করা হচ্ছে।

Advertisement

পাশাপাশি রাজনৈতিক মহলের একাংশের বক্তব্য, দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈনকে দুর্নীতির মামলায় গ্রেফতার করেছে কেন্দ্রীয় সংস্থা ইডি। এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্র–বিরোধী কোনও জোটে মেপে পা ফেলার পক্ষপাতী আপ নেতৃত্ব। অন্য দিকে বিজেডি বা ওয়াইএসআর কংগ্রেস যে তাদের প্রতিনিধি পাঠাবে না তা আমন্ত্রণকালেই স্পষ্ট ছিল তৃণমূলের কাছে। এই দুই দলকে এনডিএ-র বর্ধিত সংস্করণ বলেই মনে করে বিরোধী শিবির।

সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তেফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ

Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.