অনুপ্রবেশ আটকাতে সীমান্তে দেওয়াল তুলতে চাইছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ দিকে মার্কিন নাগরিকদের মধ্যেই প্রায় ১৬ শতাংশ পাকাপাকি ভাবে দেশ ছাড়তে আগ্রহী বলে একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে। জর্জ বুশের (জুনিয়র) আমলে এই অঙ্কটা ছিল ১১ শতাংশ, বারাক ওবামার আমলে ১০ শতাংশ। ডোনাল্ড ট্রাম্পের জমানায় সেটা ১৬-য় পৌঁছে রেকর্ড গড়েছে। ২০১৭ সালেও অঙ্কটা এ রকমই ছিল।

দেশ ছাড়তে চাওয়া নাগরিকদের মধ্যে মহিলাই বেশি। সেটাও লক্ষণীয় বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। বুশ বা ওবামা জমানায় দেশ ছাড়তে ইচ্ছুকদের মধ্যে নারী-পুরুষ ভেদ প্রকট ছিল না। এ বারে কিন্তু ১৩ শতাংশ পুরুষের পাশে ২০ শতাংশ মহিলা দেশ ছাড়তে চান বলে জানিয়েছেন। তার মধ্যে আবার ৪০ শতাংশের বয়স ৩০-এর কম। একই ভাবে সার্বিক অঙ্কেও কমবয়সিদের মধ্যে পাল্লা ভারী। ১৫-২৯ বছর বয়সিদের মধ্যে ৩০ শতাংশই ইচ্ছুক বলে খবর।

সমীক্ষকদের মতে, দেশ ছাড়তে চাওয়া নাগরিকদের সংখ্যা বাড়ছে ট্রাম্পকে নিয়ে অসন্তোষের কারণেই। ট্রাম্পকে পছন্দ করেন না, এমন জনতার ২২ শতাংশ দেশ ছাড়তে চান। ট্রাম্পকে পছন্দ করেন অথচ দেশ ছাড়তে চান, এই অনুপাতটা মাত্র ৭ শতাংশ। সত্যি দেশ ছাড়লে কোথায় যেতে চান? ২৬ শতাংশই জানিয়েছেন, কানাডা! জাস্টিন ট্রুডো তার মানে কঠিন প্রতিযোগিতাতেই ফেলছেন ট্রাম্পকে।