• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

করোনা হুঁশিয়ারি এখনই দেবেন না, হু-র কাছে তদ্বির করেছিল চিন!

Tedros Adhanom Ghebreyesus
হু-এর ডিরেক্টর জেনারেল টেড্রস অ্যাডানম গেব্রিয়েসাস। ছবি: রয়টার্স।

করোনা-সংক্রমণ নিয়ে হুঁশিয়ারি বিলম্বিত করা হোক। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-কে নাকি এমনই অনুরোধ করেছিল চিন। জার্মানির এক সংবাদপত্রে এমনটাই দাবি করা হয়েছে। দেশের গুপ্তচর সংস্থাকে উদ্ধৃত করে ওই সংবাদপত্রের দাবি, গত জানুয়ারিতে হু-এর ডিরেক্টর জেনারেল টেড্রস অ্যাডানম গেব্রিয়েসাসের সঙ্গে এক ফোনালাপে এই অনুরোধ করেছিলেন চিনের প্রেসিডেন্ট শি চিনফিং। যদিও গোটা বিষয়টিই নস্যাৎ করে একে ভিত্তিহীন ও অসত্য বলে দাবি করেছে হু।

শনিবার জার্মানির এক সংবাদপত্রে এ সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট প্রকাশিত হয়। জার্মানির গুপ্তচর সংস্থা ফেডারেল ইন্টেলিজেন্স সার্ভিসকে উদ্ধৃত করে ওই রিপোর্টের দাবি, ২১ জানুয়ারি গেব্রিয়েসাসের সঙ্গে ফোনে বার্তালাপের সময় শি চিনফিংয়ের আর্জি ছিল, ‘‘মানুষ থেকে মানুষে এই ভাইরাসের সংক্রমণ বিষয়ক তথ্যগুলি প্রকাশ করবেন না। অতিমারির হুঁশিয়ারি নিয়ে ঘোষণা পরে করুন।’’ ওই রিপোর্টে আরও দাবি, ‘‘জার্মানির গুপ্তচর সংস্থার হিসেব অনুযায়ী, চিনের তথ্য বিষয়ক নীতির জন্য বিশ্ব জুড়ে করোনা-সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রায় চার থেকে ছ’সপ্তাহ সময় নষ্ট হয়।’’

জার্মানির সংবাদপত্রের রিপোর্টের এই দাবিকে নস্যাৎ করে গোটা বিষয়টি ‘ভিত্তিহীন এবং অসত্য’ আখ্যা দিয়েছে হু। একটি টুইটে সংস্থার দাবি, ‘‘চিনের প্রেসিডেন্ট শি-এর সঙ্গে কখনই ফোনালাপ হয়নি গেব্রিয়েসাসের। এমনকি ২১ জানুয়ারিও তাঁদের মধ্যে কোনও কথাবার্তা হয়নি। এ ধরনের রিপোর্টের ফলে কোভিড-১৯-এর মতো অতিমারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রচেষ্টা থেকে হু-কে বিভ্রান্ত এবং বিরক্ত করা হয়।’’ একই সঙ্গে হু জানিয়েছে, ২০ জানুয়ারি করোনা-সংক্রমণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছিল চিন। ২২ জানুয়ারি তা ঘোষণাও করেছিল হু। এর পর ১১ মার্চ এই ভাইরাসের সংক্রমণকে অতিমারি বলে ঘোষণা করেছিল সংস্থা।

আরও পড়ুন: এ বার করোনা পৌঁছল হোয়াইট হাউসেও, ‘চিন্তিত নই’, বললেন ট্রাম্প

আরও পড়ুন: লকডাউন শিথিল হতেই জার্মানিতে ফের বাড়ছে সংক্রমণ, বিশ্বে করোনা আক্রান্ত ৪০ লক্ষের বেশি


(অভূতপূর্ব পরিস্থিতি। স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিয়ো আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, feedback@abpdigital.in ঠিকানায়। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।)

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন