আমেরিকাতে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ধৃত ভারতীয়দের সংখ্যা এক বছরে বাড়ল তিন গুন। শুক্রবার এই চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে আনল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্ত রক্ষা দফতর। শুধু তাই নয়, অবৈধ অনুপ্রবেশের সংখ্যার হিসেবে এখন ভারতীয়রা পাল্লা দিচ্ছেন মেক্সিকো, এল সালভাদোর এবং হন্ডুরাসের মতো দেশগুলিকেও।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার প্রোটেকশন জানাচ্ছে, ৩০ সেপ্টেম্বর শেষ হওয়া অর্থবর্ষে মোট ৯ হাজার অবৈধ ভারতীয় অনুপ্রবেশকারীকে গ্রেফতার করেছে তারা। ২০১৭ সালে এই সংখ্যা ছিল ৩ হাজার ১৬২। ধৃতদের মধ্যে ৪ হাজার জনই মেক্সিকালি-র তিন মাইল লম্বা কাঁটাতার পেরিয়ে আমেরিকায় ঢোকার চেষ্টা করেছিলেন।

মার্কিন সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মুখপাত্র সালভাদোর জামোরা জানিয়েছেন, কোনও ভাবে ভারতীয়দের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে, মেক্সিকালি সীমান্ত দিয়ে সহজে আমেরিকাতে ঢোকা যায়। সেই কারণেই মেক্সিকালি সীমান্তে গ্রেফতার হওয়া ভারতীয়দের সংখ্যা অনেক বেশি। একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, মেক্সিকো সীমান্ত দিয়ে ভারতীয়দের আমেরিকাতে ঢোকাতে একটি চক্র সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এ জন্য মাথাপিছু ১৮ লক্ষ থেকে ৩৬ লক্ষ করে টাকা নিচ্ছে তারা।

ধৃতদের অনেকেই শরণার্থী হিসাবে ভুল তথ্য জমা দিচ্ছেন মার্কিন সীমান্তরক্ষা বাহিনীর অফিসে। দেখা যাচ্ছে, বিভিন্ন আবেদনকারীর ফর্ম অবিকল একই রকম দেখতে। অর্থাৎ, নকল করেই তৈরি করা হচ্ছে সমস্ত নথি। এমনটাই জানিয়েছে মার্কিন সীমান্তরক্ষা বাহিনী। যদিও ভারত থেকে আমেরিকায় যেতে চাওয়া শরণার্থীদের অনেকের ক্ষেত্রেই যথেষ্ট কারণ আছে। তাঁদের অনেকেই নিম্নবর্ণের মানুষ হয়েও উচ্চবর্ণের কাউকে বিয়ে করার জন্য খুনের হুমকি পাচ্ছেন, অনেকেই আবার ধর্মীয় হুমকির মুখে পড়া শিখ সম্প্রদায়ের মানুষজন। এই সব ক্ষেত্রে আমেরিকাতে ঢুকতে কোনও বাধা দেওয়া হচ্ছে না বলে জানিয়েছে মার্কিন কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার প্রোটেকশন।

আরও পড়ুন: তথ্য ফাঁস হয়েছে ৫ কোটি অ্যাকাউন্টের, জানাল মার্ক জ়াকারবার্গের সংস্থা ফেসবুক

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাইরাকিউজ বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২০১২ থেকে ২০১৭, এই পাঁচ বছরে ৪২.২ শতাংশ ভারতীয়ের আমেরিকায় আশ্রয় চাওয়ার আবেদন নাকচ করেছে মার্কিন সরকার। এল সালভাদোরের নাগরিকদের জন্য তা ৭৮ শতাংশ। হন্ডুরাসের ক্ষেত্রে এই সংখ্যা ৭৯ শতাংশ। এই ভাবেই জাতি হিসেবে আমেরিকায় ঢুকতে চাওয়া অনুপ্রবেশকারীদের তালিকায় একেবারে উপরের দিকে চলে এসেছেন ভারতীয়রা। যদিও এই তালিকায় এখনও শীর্ষে আছে মেক্সিকো-ই।

আরও পড়ুন: অভিযোগ সত্ত্বেও পছন্দের প্রার্থীকে সমর্থন ট্রাম্পের

 

গ্রাফিক- শৌভিক দেবনাথ

(সারা বিশ্বের সেরা সব খবর বাংলায় পড়তে চোখ রাখতে পড়ুন আমাদের আন্তর্জাতিক বিভাগে।)