ঝকঝকে উজ্জ্বল মুখ, কিন্তু ঠোঁটে কালো ছোপ থাকলে পুরো সাজটাই মাটি। কিন্তু ঠোঁটকে কি উপেক্ষা করা যায়! কারণ ঠোঁটে ঠোঁট রেখে যে ব্যারিকেড গড়া যায়!

চা, কফি বা ধূমপানের জন্যও ঠোঁটে কালো ছোপ পড়ে। আবার রোদে বেরিয়ে গোলাপি ঠোঁটের গায়ে দাগ পড়ে যায়। এ দিকে মুখমণ্ডলে দুটো কালচে ঠোঁট সৌন্দর্য ও আকর্ষণকে কমিয়ে দেয় অনেকটাই।

কিন্তু সব সমস্যারই সমাধান রয়েছে। কিছু নিয়মকানুন মেনে চললে ও ঘরোয়া উপায় জানলে ঠোঁটের কালো দাগ দূর করা সহজ হয়। জানেন সে সব উপায়?

আরও পড়ুন: রাস্তার কাটা ফল দিয়েই টিফিন সারেন? জানেন কী ক্ষতি করছেন?

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

  • ধূমপানের অভ্যাস যত দ্রুত সম্ভব পরিহার করুন।
  • ঠোঁটে মরা কোষ জমতে থাকলে ঔজ্জ্বল্য হারায়। তাই রোজ ব্রাশ করার সময়ে ঠোঁটেও ব্রাশ রাব করুন। তার পরে হালকা কোনও লিপবাম লাগিয়ে নিন। অথবা রাতেও ঘুমোতে যাওয়ার আগে ঠোঁটে হালকা ব্রাশ দিয়ে রাব করে গ্লিসারিন অথবা লিপবাম লাগিয়ে শুয়ে পড়ুন।
  • রোদে বেরনোর আগে ঠোঁটে এসপিএফ যুক্ত লিপ বাম লাগান। ত্বকে যেমন সানস্ক্রিন লাগানো প্রয়োজন, তেমনই ঠোঁটকেও বাঁচান।

আরও পড়ুন:  ডায়াবিটিসের হাত থেকে বাঁচান সন্তানকে, এই সব নিয়মে নিজেও থাকুন সুস্থ

ঘুমোতে যাওয়ার আগে ঠোঁটে গ্লিসারিন অথবা লিপবাম লাগান।

  • লেবুর রস ও মধুর মিশ্রণ ঠোঁটে লাগান। বেশ কিছু ক্ষণ লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
  • চিনির সঙ্গে লেবু আর মধু মিশিয়েও লাগাতে পারেন ঠোঁটে। এটা স্ক্রাবারের কাজ করে।
  • প্রত্যেকের বাড়িতেই আলু থাকে। তাই আলুর রসও লাগাতে পারেন ঠোঁটে।

বরফের টুকরোয় কয়েক ফোঁটা আমন্ড অয়েল লাগিয়ে ঠোঁটে ঘষে নিন। এতে ঠোঁটের রক্ত চলাচল স্বাভাবিক হবে এবং ঠোঁটের উজ্জলভাব ফিরে আসবে।