অসমের মঙ্গলদই এলাকায় বাস করেন পানাউল্লা আহমেদ। রমজান মাসের শুরু থেকেই রোজা রাখছেন তিনি। কিন্তু গত সপ্তাহে আসা একটি ফোন ভেঙে দিল রোজা। ফোন করে পানাউল্লার বন্ধু তাপস তাঁকে বলে, হাসপাতালে রক্তের অভাবে একজন রোগীর মরমর আবস্থা। এখনই তাঁকে রক্ত দিতে হবে। এরপরই পানাউল্লা হাসপাতালে ভর্তি থাকা ব্যক্তিকে সাহায্যের জন্য মনস্থির করেন।

সে জন্য পানাউল্লা বন্ধুদের কাছে জানতে চান রোজা করে রক্ত দেওয়া যাবে না কি। কিন্তু বন্ধুরা তাঁকে জানায় উপোস থাকা অবস্থায় রক্ত দিলে শরীর দুর্বল হতে পারে। এই কথা শোনার পরও দেরি করেননি পানাউল্লা। ধর্মের আচার থেকে সরে মানবতার দিকেই পা বাড়িয়েছেন তিনি। রোজা ভেঙে রক্ত দিয়েছেন মুমূর্ষ রোগীকে।

পানাউল্লা ও তাঁর বন্ধু তাপস, দু’জনেই কাজ করেন গুয়াহাটির স্বাগত সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। আর যাকে রক্ত দিয়ে বাঁচালেন পানাউল্লা, সেই ব্যক্তি অসমের ধেমাজি জেলার বাসিন্দা। তাঁর নাম রঞ্জন গগৈ। তিনি হিন্দু।

এই রক্তদানের ছবি ‘টিম হিউম্যানিটি’  নামের একটি ফেসবুক পেজে পোস্ট করা হয়েছে। তার পরই প্রশংসার বন্যায় ভেসে গিয়েছেন পানাউল্লা। 

আরও পড়ুন: ‘প্রতিদিন যৌনমিলনের প্রয়োজন হয় না’? মহিলা পাইলটকে প্রশ্ন ক্যাপ্টেনের, যৌন হেনস্থার অভিযোগ