অরুণাচল প্রদেশে পশ্চিম কেমেন জেলার রামদা গ্রামে কাছে জঙ্গলে এক নতুন প্রজাতির বিষধর সাপের সন্ধান পেলেন পুণের এক গবেষক দল। রক্তিম বাদামী রঙের সাপটি এক ধরনের পিট ভাইপার।  অরুণাচলের জঙ্গলে খুঁজে পাওয়া এই পিট ভাইপারের তাপ অনুভবের ক্ষমতা অন্যদের থেকে আলাদা। এবং তা বেশ উন্নত।  

নতুন প্রজাতির পিট ভাইপারের সন্ধানের খবর ‘রাশিয়ান জার্নাল অফ হাইপেটোলজি’-র এপ্রিল-মে সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে। ক্যাপ্টেন অশোকের নেতৃত্বাধীন পুণের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্স এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চের গবেষকদল অরুণাচলের ‘ইগলনেস্ট’ এলাকায় বেশ জীববৈচিত্র নিয়ে সমীক্ষা চালাচ্ছিলেন । সে সময়ই গবেষকরা এই সাপের সন্ধান পেয়েছেন । রামদা গ্রামের এক বাসিন্দা সাপটিকে প্রথম গবেষকদের নজরে এনেছিলেন । 

এই প্রজাতির ভাইপারের সন্ধান পাওয়ার আগে মালাবার, হর্সশু, হাম্প-নোজড ও হিমালয়ান- এই চার ধরনের পিট ভাইপারের সন্ধান পেয়েছিলেন বিজ্ঞানীরা। যদিও অরুণাচলের জঙ্গল থেকে নতুন এই প্রজাতির একটি মাত্র একটি পুরুষ সাপই পাওয়া গিয়েছে। তাই এদের ইতিহাস, স্বভাব-চরিত্র, ডিম পাড়ার বিষয়ে এখনও খুব বিস্তারিত ভাবে কিছু জানা যায়নি বলে জানিয়েছেন পুণের গবেষক দলের প্রধান ক্যাপ্টেন অশোক। তাই তিনি বলেছেন, “আরও সার্ভে ও সাইটিংস এই প্রজাতি সম্পর্কে আমাদের জানতে সাহায্য করবে।”

তবে মরফোলজিক্যাল ফিচার ও ডিএনএ সিকোয়েন্স থেকে জানা গিয়েছে, এই ধরনের পিট ভাইপার এর আগে কখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি । পুণের গবেষকদল এই নতুন প্রজাতির সাপের নমুনা ইটানগরে থাকা স্টেট ফরেস্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের মিউজিয়ামে দিয়ে গিয়েছেন, যাতে তাঁরাও এই প্রজাতির ভাইপারের ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন।

আরও পডুন: ধর্ষণ থামাতে তবে কি এমন পোশাক চাই? পুরুষতন্ত্রকে ব্যঙ্গ করে ওয়েবসাইটে ‘সংস্কারী শাড়ি’