কালো টাকা ফেরানোর প্রতিশ্রুতি কার্যত অন্তঃসারশূন্য বলে প্রমাণিত। কাজে আসেনি নোটবন্দির স্টান্ট। মূল্যবৃদ্ধি প্রায় নিয়ন্ত্রণের বাইরে, ডিজেল-পেট্রোলের গগনচুম্বী উত্থান, টাকার রেকর্ড পতনে মোদীর চার বছরে অর্থনীতি কার্যত দিশাহীন। আর্থিক বৃদ্ধিও আশাব্যাঞ্জক নয়। অথচ তিন বছরে কোটিপতি ব্যবসায়ীর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৬০ শতাংশ। কোটি টাকার বেশি ব্যক্তিগত সম্পত্তির মালিকের সংখ্যা বৃদ্ধির হার আরও চমকে দেওয়ার মতো, ৬৮ শতাংশ।

বিরোধীদের নয়, এই হিসাব খোদ আয়কর দফরেরই দেওয়া। পরিসংখ্যানও প্রদত্ত আয়করের ভিত্তিতেই। সেন্ট্রাল বোর্ড অব ডিরেক্ট ট্যাক্সেস (সিবিডিটি) সোমবারই এই সংক্রান্ত তথ্য-পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। আয়করের নীতি নির্ধারক এই সরকারি সংস্থার প্রকাশিত পরিসংখ্যানেই উঠে এসেছে, গত চার বছরে দেশে কোটিপতির সংখ্যা বেড়েছে এক লক্ষ ৪০ হাজার জন।

সিবিডিটি-র চেয়ারম্যান সুশীল চন্দ্র অবশ্য দাবি করেন, আয়কর কর্তাদের লাগাতার প্রচেষ্টা, কর ফাঁকির বিরুদ্ধে সুসংগঠিত পদক্ষেপ ও অভিযানের জেরেই করদাতাদের সংখ্যায় এই বৃদ্ধি। সেই কারণেই আয়কর ঘোষণার সংখ্যা বেড়েছে এবং করে ফাঁকি কমেছে। দুই-এর জেরেই কোটিপতির সংখ্যাও বেড়েছে।

আরও পডু়ন: ভারতের ইতিহাসে প্রথমবার, পেট্রোলকে টপকে গেল ডিজেলের দাম! ওড়িশায় উলটপুরান

প্রকাশিত পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, ২০১৪-১৫ আর্থিক বছরে কোটি টাকার উপরে আয় ঘোষণা করেন অষ্টআশি হাজার ৬৪৯ জন বা সংস্থা। এই সংখ্যাই বেড়ে এক লক্ষ ৪০ হাজার ১৩৯ হয়েছে ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে। অর্থাৎ বেড়েছে ৫১ হাজার ৪৯০ জন। বৃদ্ধি ৬৮ শতাংশ।

একই ভাবে ২০১৪-১৫ আর্থিক বছরে ব্যক্তিগত করদাতাদের মধ্যে কোটি টাকার বেশি আয়ের রিটার্ন জমা করেছিলেন ৪৮ হাজার ৪১৬ জন। ২০১৭-১৮ সালে যা হয়েছে ৮১ হাজার ৩৪৪ জন। বেড়েছে ৩২ হাজার ৯২৮ জন। শতাংশের হিসাবে বৃদ্ধি ৬৮।

আরও পড়ুন: ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নন রাহুল, জানালেন চিদম্বরম

রিটার্ন জমা দেওয়ার হিসাবও চমকপ্রদ। গত চার বছরে বেড়েছে ৮০ শতাংশ। তিন কোটি ৭৯ লক্ষ থেকে বেড়ে হয়েছে ছ’কোটি ৮৫ লক্ষ। ব্যক্তিগত আয়কর রিটার্নও জমার হার বেড়েছে ৬৫ শতাংশ। তিন কোটি ৩১ লক্ষ থেকে বেড়ে হয়েছে পাঁচ কোটি ৪৪ লক্ষ।