হাসপাতালে এসেছিলেন পেটের ব্যথা নিয়ে। চিকিত্সক তাঁদের গর্ভাবস্থা পরীক্ষা করতে বলেন। প্রথমে শুনলে অবাক হওয়ার কিছুই নেই। কিন্তু যদি শোনেন, যাঁরা পেটের ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে এসেছিলেন, তাঁরা কোনও মহিলা নন, তাঁরা পুরুষ তবে অবাক হতেই হয়।এই ঘটনা ঝাড়খণ্ডের এক হাসপাতালের।

গোপাল গানঝু (২২) ও কামেশ্বর গানঝু (২৬) নামে দুই যুবকের পেটে প্রচণ্ড ব্যথা শুরু হয়। তাঁদের বাড়ির লোকেরা পয়লা অক্টোবর ঝাড়খণ্ডে ছাতরা জেলার সিমারিয়া হাসপাতালে নিয়ে যান। চিকিত্সক তাঁদের প্রাথমিক পরীক্ষার পর বেশ কয়েকটি টেস্ট করতে দেন। সেখানে যেমন এইচআইভি, এইচবিএ, এইচসিভি, সিবিসি, এইচএইচ-২ পরীক্ষার কথা উল্লেখ ছিল তেমনি এএনসি টেস্টও করতে দেওয়া হয়। এই এএনসি টেস্ট মহিলাদের গর্ভাবস্থা নির্ণয়ের জন্য করতে দেওয়া হয়।

চিকিত্সকের প্রেসক্রাইব করা টেস্টের তালিকা নিয়ে গোপাল ও কামেশ্বর প্যাথলজি ল্যাবরটরিতে পৌঁছে যান। সেখানে যে চিকিত্সক ছিলেন, তিনি দেখে বলেন, এএনসি করা হয় মহিলাদের গর্ভাবস্থা নির্ণয়ের জন্য। আপনাদের কেন করতে দেওয়া হল বোঝা যাচ্ছে না। তিনিও অবাক হয়ে যান, দুই পুরুষ রোগীর ক্ষেত্রে কী ভাবে এই ভুল হল ভেবে পাচ্ছেন না তিনিও।

আরও পড়ুন : কোনও পুরুষ নেই, এই উড়ানে পাইলট, বিমানকর্মী, যাত্রী সবাই মহিলা

আরও পড়ুন : মদ খেয়ে ফ্লাইট মিস, তাণ্ডব চালিয়ে শ্রীঘরে যাত্রী

চিকিত্সা করিয়ে দুই যুবকে নিয়ে গ্রামে ফেরেন তাঁদের বাড়ির লোক। সেখানে পুরো ঘটনার গ্রামবাসীদের বলেন।মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে সেই খবর।পরে চিকিত্সক মুকেশকে যখন বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হয় তিনি বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে হাসপাতালে। তাঁকে বদনাম করার জন্য এই এএনসি-টি যোগ করা হয়েছে ওই দুই যুবকের প্রেসক্রিপশনে।