• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

খেতািব যুদ্ধের পরীক্ষায় নোভাক

হার্ড কোর্টে উন্নতি, সাম্প্রতিক ফল আশায় রাখছে থিমকে

Joker and Thiem
প্রতিদ্বন্দ্বী: নোভাককে (বাঁ ডিকে) থামাতে তৈরি থিম। ফাইল চিত্র

অস্ট্রেলীয় ওপেনের ফাইনালে নোভাক জোকোভিচকে কি হারিয়ে দিতে পারেন ডোমিনিক থিম? 

চোখে না দেখা পর্যন্ত কেউ বিশ্বাস করবেন না নিশ্চয়ই। রাফায়েল নাদালের যেমন রোলঁ গ্যারোজ, তেমনই জোকোভিচের সেরা দুর্গ মেলবোর্ন পার্ক। সাত বারের চ্যাম্পিয়ন, রবিবার নামছেন অষ্টম খেতাবের লক্ষ্যে। যত বার তিনি সেমিফাইনালে উঠেছেন, প্রত্যেক বারই খেতাব জিতেছেন এখানে। যে কোনও প্রতিপক্ষের এ সব  পরিসংখ্যানের দিকে তাকিয়ে গলা শুকিয়ে আসার কথা। 

কিন্তু ডোমিনিক থিমের দিকেও সামান্য কিছু পরিসংখ্যান রয়েছে। যা নোভাক-ভক্তদের চিন্তায় রাখতে পারে। গত বারো মাসে ২৬ বছরের থিম অনেক উন্নতি করে ফেলেছেন। আগে ক্লে কোর্ট বিশেষজ্ঞ ভাবা হত তাঁকে। ফরাসি ওপেনে দু’বার ফাইনালে উঠে তিনি নাদালের কাছে হেরে যান। কিন্তু  এখন দারুণ হার্ড কোর্ট খেলোয়াড়ে নিজেকে পরিণত করে ফেলেছেন অস্ট্রিয়ার যুবক। এবং, নাদালকে ছিটকে দিয়ে আসা থিমের অস্ট্রেলীয় ওপেনের হার্ড কোর্টে ফাইনালে ওঠা  ফ্লুক, কেউ মনে করছেন না। 

গত বছর লন্ডনে এটিপি ফাইনালসে থিম দুই মহারথীকেই হারিয়ে দিয়েছিলেন। জোকোভিচ এবং রজার ফেডেরার। গত বছর যুক্তরাষ্ট্র ওপেনে প্রথম রাউন্ডে অপ্রত্যাশিত হেরে বিদায় নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তার পর থেকে নিজেকে দারুণ ভাবে তৈরি করেছেন। ওই হারের পর থেকে হার্ড কোর্টে এখন পর্যন্ত থিমের জয়-পরাজয়ের হিসাব ২৩-৬। শুক্রবার তিনি যাঁকে হারিয়ে ফাইনালে উঠলেন, সেই আলেকজান্ডার জেরেভ পর্যন্ত বলে গিয়েছেন, হার্ড কোর্টে অবিশ্বাস্য উন্নতি করেছেন থিম।

আরও পড়ুন: বাবার স্বপ্নপূরণ, টেনিসের নতুন রানি কেনিন

আরও কিছু পরিসংখ্যান থাকছে, যা দেখে মনে হচ্ছে, থিম নতুন প্রজন্মের সেই মুখ, যাঁকে মহাতারকা ত্রয়ীর চ্যালেঞ্জার ভাবা যেতে পারে। গত কয়েক বছরের মধ্যে থিম একমাত্র খেলোয়াড়, যিনি ফেডেরারকে সমস্ত ধরনের কোর্টে হারিয়েছেন। নাদালকে ক্লে কোর্টে তিন বার হারিয়েছেন। এবং জোকোভিচকে সব ধরনের কোর্ট মিলিয়ে তিন বারের বেশি হারিয়েছেন। শেষ বার জোকোভিচ এবং থিম যখন হার্ড কোর্টে মুখোমুখি হয়েছিলেন, জিতেছিলেন থিমই। দু’জনের শেষ পাঁচ বারের সাক্ষাতেও চার বার জিতেছেন তিনি। অবশ্যই তিনি টেনিস দুনিয়ায় কোনও আগন্তুক নন।

আরও পড়ুন: তিরবিদ্ধ ইস্টবেঙ্গলে এখন শুধুই অন্ধকার

থিম বিলক্ষণ জানেন, সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান তাঁর মনোবল বাড়িয়ে তুললেও ফেভারিট হওয়ার ছাড়পত্র দিচ্ছে না। তিনি নিজেই জোকোভিচকে ‘অস্ট্রেলিয়ার রাজা’ আখ্যা দিয়েছেন। সাত বারের চ্যাম্পিয়নকে ফাইনালে খেলতে হবে বলায় অসহায় হাসি হেসে বলে ফেলেন, ‘‘আমরা খুব কঠিন সময়ে টেনিস খেলছি। ট্রফি জিততে গেলে সব সময়ই দুর্ধর্ষ সব কিংবদন্তিদের হারাতে হচ্ছে।’’ অ্যান্ডি মারের কথা মনে পড়ে যেতে পারে থিমের। জীবনের প্রথম চারটি গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনালে উঠে প্রত্যেক বারই হারতে হয়েছিল মারেকে। কারণ, উল্টো দিকে ‘বিগ থ্রি’-র কেউ না কেউ ছিলেন। ফেডেরার, নাদাল, জোকোভিচ— তাঁদের কোনও এক জনকে বাদ দিয়ে গ্র্যান্ড স্ল্যামের ফাইনাল এখনও ভাবা যায় না। প্রায় দেড় দশক ধরে এই তিন জনের কী রকম আধিপত্য চলেছে, তার নমুনা দেওয়া যাক। গত ১৫টি অস্ট্রেলীয় ওপেনের মধ্যে ১৪টি জিতেছেন মহাতারকা ত্রয়ী। যদিও অস্ট্রিয়ার তরুণ বলছেন, ‘‘ফরাসি ওপেনের সময় কিছুটা অপরিণত ছিলাম। এখন মনে হচ্ছে, অনেক বেশি তৈরি আছি।’’ 

জোকোভিচকে চ্যালেঞ্জ জানানোর জন্য থিমের হাতে রয়েছে শক্তিশালী গ্রাউন্ড স্ট্রোক। তবে শারীরিক সক্ষমতায় সুবিধেজনক অবস্থায় থাকবেন জোকোভিচ। দুর্দান্ত ফিটনেস, তার উপরে সেমিফাইনালে ফেডেরারের সঙ্গে খুব বেশি ঘাম ঝরাতে হয়নি। ২০০৫ সালে অস্ট্রেলীয় ওপেন জেতা মারাট সাফিন বলছেন, ‘‘বেশ হাড্ডাহাড্ডি লড়াই আশা করছি। ডোমিনিক ভাল কিছু করার জন্য মুখিয়ে রয়েছে।’’

তবু জোকোভিচকে হারিয়ে প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম? হয়তো অসম্ভব নয়। তবে ওই যে বলা হল, চোখে না-দেখা পর্যন্ত বিশ্বাস করা যাবে না!

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন