পুরনো ক্লাব গোকুলমেই ফিরলেন উগান্ডার স্ট্রাইকার হেনরি কিসেক্কা। দিন দু’য়েকের মধ্যেই ভারতে পা রাখছেন তিনি।

বক্স স্ট্রাইকার হিসেবে তাঁকে সম্ভ্রম করেন বিপক্ষের সব ডিফেন্ডারই। প্রতিপক্ষের জাল কাঁপিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা দেখেই গত বছর গোকুলম থেকে হেনরিকে এনেছিল মোহনবাগান। সবুজ-মেরুন জার্সিতে সে ভাবে তিনি সফল হননি। গত বারের কলকাতা লিগ ও আই লিগ মিলে হেনরি মোট ১১টি গোল করেছিলেন। যতগুলো গোল করেছিলেন, তার থেকেও বেশি অ্যাসিস্ট করেছিলেন।

বাগানে অবশ্য বেশির ভাগ ম্যাচেই তিনি নিজের পছন্দের পজিশন পাননি। তাঁকে একটু পিছন থেকে ব্যবহার করা হত। সেই হেনরিই আসন্ন মরসুমে ফিরে যাচ্ছেন কেরলের ক্লাবে। চেনা পরিবেশে তিনি খেলবেন নতুন মরসুমে। হেনরিকে নিয়ে ময়দানে আবার অন্য একটা খবরও শোনা যাচ্ছিল। ইস্টবেঙ্গল না কি তাঁর ব্যাপারে আগ্রহী ছিল। লাল-হলুদের অবশ্য স্প্যানিশ ফুটবলারই পছন্দ। কোচ আলেয়ান্দ্রো মেনেন্দেস বিদেশি খুঁজছেন।

আরও পড়ুন: চোট পেলেন হেনরি, ধোঁয়াশাতেই আমনা

গোকুলম অবশ্য নতুন মরসুমের জন্য দল প্রায় গুছিয়ে ফেলেছে। এসে গিয়েছেন কোচ ফের্নান্দো স্যান্টিয়াগো ভারেলাও। গত মরসুমে ত্রিনিদাদ-টোব্যাগোর স্ট্রাইকার মার্কাস জোসেফ নজর কেড়েছিলেন। এ বার তাঁর সঙ্গে হেনরিকে জুড়ে দেওয়ায় গোকুলমের আক্রমণভাগ দারুণ শক্তিশালী হল বলে মনে করা হচ্ছে।

হেনরি কিসেক্কা ফিরলেন গোকুলমে। 

গোকুলমে খেলেই ভারতীয় ফুটবলে হেনরির উত্থান। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে ভিয়েতনামের ক্লাব থেকে কেরলের ক্লাবে এসেছিলেন তিনি। সেই বছর মোহনবাগানের বিরুদ্ধে প্রথম গোল করেছিলেন হেনরি। ভারতে খেলতে এসে প্রথম মরসুমেই গোকুলমের হয়ে ৯টি ম্যাচে ৭টি গোল করেছিলেন। তার পরেই বাগান-কর্তারা তাঁকে নিয়ে এসেছিলেন গঙ্গাপারের ক্লাবে। কিন্তু, গত বছর সুপার কাপের আগে ছেড়ে দেওয়া হয় তাঁকে। নতুন মরসুমে প্রচুর গোল করার শপথ নিয়েই ভারতের বিমানে উঠছেন হেনরি।