কুলদীপ যাদবকে মাঠের বাইরে রেখে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ-এর বিরুদ্ধে খেলতে নেমেছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স।

নাইট-অধিনায়ক দীনেশ কার্তিককে প্রশ্ন ছুড়ে দেওয়া হয়েছিল, কুলদীপকে বাদ দেওয়ার কারণ কী? জবাবে কার্তিক বলেছিলেন, ফর্মের জন্যই কুলদীপ যাদবকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। তরতাজা হয়ে যাতে কুলদীপ পরে ফিরে আসতে পারেন, তার জন্যই নাকি ম্যানেজমেন্টের এমন সিদ্ধান্ত।

এ বারের আইপিএলে কেকেআর-এর হঠাৎ ছন্দপতনের পরে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে, কুলদীপ যদি ফর্মের কারণে দল থেকে বাদ পড়েন, তা হলে কার্তিক নন কেন? কার্তিকের পারফরম্যান্স তাঁর নামের প্রতি মোটেও সুবিচার করছে না। এখনও পর্যন্ত ১০টি ম্যাচ থেকে কার্তিকের সংগ্রহ ১১৭ রান। সর্বোচ্চ রান ৫০। গতবার ১৬টি ম্যাচ থেকে কার্তিক সাকুল্যে করেছিলেন ৪৯৮ রান। ২০১৭ সালে ১৪টি ম্যাচ থেকে কার্তিক করেছিলেন ৩৬১ রান। তার উপরে এ বারে দল ক্রমাগত হেরেই চলেছে। তবে কি নেতৃত্বের বোঝা কার্তিকের ব্যাটিংকে প্রভাবিত করছে?

আরও খবর: ছন্দ ফেরাতে কার্তিকের বিকল্প অধিনায়ক খুঁজছে কেকেআর?

আরও খবর: ধোনিকে প্রধানমন্ত্রী করা হোক, মহাকাব্যিক ইনিংস দেখার পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়

আরও পড়ুন: জমজমাট ওপেনিং

এ বারের আইপিএলেই দল ব্যর্থ হওয়ায় অজিঙ্ক রাহানেকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। দলের রিমোট কন্ট্রোল তুলে দেওয়া হয়েছে স্টিভ স্মিথের হাতে। নেতৃত্ব থেকে বরখাস্ত হওয়ার পরেই রাহানে শতরান করেন। গতবার গৌতম গম্ভীরও দিল্লির ক্যাপ্টেন হিসেবে নিজের সেরাটা তুলে ধরতে পারছিলেন না। দল লাগাতার ব্যর্থ হওয়ায় দিল্লির নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। পারিশ্রমিকও নেবেন না বলেই স্থির করেছিলেন। নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ালে সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটার খোলা মনে নিজেকে মেলে ধরতে পারেন। ক্রিকেট ইতিহাসে এমন নজির রয়েছে অসংখ্য। কার্তিকও কি সেই রাস্তা নেবেন?