• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ফের রাহুল-শ্রেয়াসের দাপট, সাত উইকেটে জিতে সিরিজে ২-০ এগিয়ে গেল ভারত

Rahul
৫৭ রানে অপরাজিত থাকলেন লোকেশ রাহুল। ছবি: এপি।

ছয় মেরে ম্যাচ শেষ করলেন শিবম দুবে। অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে সাত উইকেটে জিতল ভারত। জয় এল ১৫ বল বাকি থাকতে। লোকেশ রাহুল শেষ পর্যন্ত ৫০ বলে ৫৭ রানে অপরাজিত থেকে ম্যাচ জিতিয়ে ফিরলেন। পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-০ এগিয়ে গেল বিরাট কোহালির দল। হ্যামিলটনে বুধবার সিরিজের তৃতীয় টি-টোয়েন্টি।

সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে পাঁচ উইকেট হারিয়ে নিউজিল্যান্ড তুলেছিল ১৩২ রান। ভারতীয় বোলারদের দক্ষতাতেই এত কমে আটকে গিয়েছিল হোম টিম। শুক্রবারই এই মাঠে দু’শোর বেশি রান তুলেছিল কিউয়িরা। কিন্তু, এদিন টস জিতে ব্যাট করলেও তাদের ইনিংস কখনই গতি পেল না। রান তাড়া করতে নেমে ১৭.৩ ওভারেই লক্ষ্যে পৌঁছে গেল ভারত (১৩৫-৩)।

ইনিংসের শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছিল ভারতের ইনিংস। টিম সাউদির ষষ্ঠ বলে স্লিপে রস টেলরকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন রোহিত শর্মা (ছয় বলে ৮)। সেই সাউদিই ফের আঘাত হানলেন। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে ফেরালেন বিরাট কোহালিকে (১২ বলে ১১)। লেগস্টাম্পের বাইরের বলে খোঁচা দিয়েছিলেন ভারত অধিনায়ক। দুর্দান্ত ভাবে বাঁদিকে ঝাঁপিয়ে ক্যাচ ধরেন উইকেটকিপার টিম সেইফার্ট। উইকেট পাওয়ার মতো বল ছিল না একেবারেই। কিন্তু কপাল মন্দ ছিল কোহালির। ৫.২ ওভারে ৩৯ রানে পড়েছিল ভারতের দ্বিতীয় উইকেট।

সেখান থেকে লোকেশ রাহুল ও শ্রেয়াস আইয়ার টানলেন দলকে। দু’জনেই রানের মধ্যে আছেন। আর পিচেও কোনও জুজু ছিল না। ধীরেসুস্থে এগোতে থাকলেন দু’জনে। তার মধ্যে চার মেরে হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করলেন রাহুল। শুক্রবারও পঞ্চাশ করেছিলেন তিনি। এদিন ৪৩ বলে হাফ-সেঞ্চুরিতে পৌঁছনোর পথে তিনটি চার ও দুটো ছয় মারলেন তিনি। শ্রেয়াসেরও পঞ্চাশ নিশ্চিত দেখাচ্ছিল। কিন্তু ঈশ সোধিকে ছয় মারতে গিয়ে টিম সাউদিকে ক্যাচ দিলেন তিনি। ৩৩ বলে তাঁর ৪৪ রানের ইনিংসে রয়েছে একটি চার ও তিনটি ছয়। তৃতীয় উইকেটে রাহুল-শ্রেয়াস যোগ করেছিলেন ৮৬ রান। শ্রেয়াস যখন ফিরেছিলেন, তখন জয়ের থেকে মাত্র আট রানের দূরত্বে ছিল ভারত। বাকি কাজটা রাহুলের সঙ্গে সারলেন শিবম দুবে (চার বলে ৮)। 

তার আগে, ভারতীয় বোলাররা ফের নজর কেড়েছিলেন। রবীন্দ্র জাডেজার জোড়া ধাক্কায় মিডল ওভারে চাপে পড়ে গিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। পর পর দুই ওভারে কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমি (পাঁচ বলে ৩) ও কেন উইলিয়ামসনকে (২০ বলে ১৪) ফিরিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। তাঁর চার ওভারে উঠেছিল মাত্র ১৮ রান। জশপ্রীত বুমরা (চার ওভারে ২১ রানে এক উইকেট), মহম্মদ শামি (চার ওভারে ২২), শিবম দুবে-রা (দুই ওভারে ১৬ রানে এক উইকেট) কেউই বেশি রান দেননি। বিশেষ করে ডেথ ওভারে যথারীতি নিশানায় অভ্রান্ত থাকলেন বুমরারা।

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপের আগে ছিলেন নয়নের মণি, আজ সেই ‘প্রতিভা’ ভুগছে অস্তিত্ব সঙ্কটে

আরও পড়ুন: দাপটের সঙ্গে জিতলেও যে বিষয়গুলো চিন্তায় রাখবে বিরাটের ভারতকে

অথচ, ব্যাট করতে নেমে ঝোড়ো শুরু করেছিল নিউজিল্যান্ড। শার্দুল ঠাকুরের প্রথম ওভারে উঠেছিল ১৩ রান। তার মধ্যে মার্টিন গাপ্টিলই করেছিলেন ১২। যদিও তিনিই প্রথমে ফিরেছিলেন। ষষ্ঠ ওভারে শার্দুল ঠাকুরের বলে ফিরলেন গাপ্টিল (২০ বলে ৩৩)। ক্যাচ ধরেছিলেন বিরাট কোহালি। ৪৮ রানে পড়েছিল কিউয়িদের প্রথম উইকেট। এর পর কলিন মুনরোর ক্যাচও নিয়েছিলেন কোহালি। শিবম দুবের বলে শরীর ছুড়ে মুনরোর (২৫ বলে ২৬) ক্যাচ ধরেছিলেন তিনি। এদিন দুর্দান্ত ফিল্ডিং করলেন তিনি। শুধু ক্যাচই নিলেন না, বাঁচালেন রানও। নিউজিল্য়ান্ডের ইনিংসের শেষের দিকে রস টেলরের সহজ ক্যাচ অবশ্য পড়ল তাঁর হাত থেকে। মণীশ পাণ্ডেও আউটফিল্ডে অসাধারণ ফিল্ডিং করলেন। সব মিলিয়ে ভারতীয় ফিল্ডিংকে এদিন দুরন্ত দেখাল।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে শেষের দিকে টিম সেইফার্ট ২৬ বলে ৩৩ রানে অপরাজিত না থাকলে অবস্থা আরও করুণ হত। তিনি দুটো ছয় ও একটি চার মারলেন। কিন্তু অভিজ্ঞ রস টেলরকে ভারতীয় বোলারদের স্কিলের সামনে দিশেহারা দেখাল। তিনি ২৪ বলে করলেন মাত্র ১৮!

অকল্যান্ডে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতেও টস হেরেছিলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহালি। শুক্রবারের মতো রবিবারও টস জিতেছিলেন নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। টস জিতে ব্যাটিং নিয়েছিলেন কিউয়ি অধিনায়ক। দুই দলেরই প্রথম এগারো অপরিবর্তিত রয়েছে। জশপ্রীত বুমরার চোট নিয়ে সংশয় থাকলেও তিনি খেলছেন। খেলছেন শার্দুল ঠাকুরও। প্রথম এগারোয় জায়গা হয়নি নবদীপ সাইনির। তবে শার্দুল এদিনও প্রথম স্পেলে রান দিলেন। তাঁর প্রথম দুই ওভারে উঠল ২১ রান। কোহালি আর বল দেননি তাঁকে।

সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি এক ওভার বাকি থাকতে ছয় উইকেটে জিতেছিল ভারত। শ্রেয়াস আইয়ার, লোকেশ রাহুল করেছিলেন আক্রমণাত্মক হাফ-সেঞ্চুরি। রান পেয়েছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহালিও। তবে জয়ের সৌরভের মধ্যেও রয়ে গিয়েছিল কিছু উদ্বেগ। সেগুলো ঠিকঠাক করাই লক্ষ্য টিম ইন্ডিয়ার।

পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজকে দেখা হচ্ছে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে। আর সেই পরীক্ষায় লোকেশ রাহুলকে উইকেটকিপার হিসেবেই দেখছে ভারত। ফলে, ঋষভ পন্থের জায়গা হচ্ছে না প্রথম এগারোয়। বিরাট কোহালি জানিয়েছেন যে দলের পক্ষে সেরা ভারসাম্যের খোঁজেই রয়েছেন তাঁরা।

ইডেন পার্কের বাইশ গজে শুক্রবার চারশোর বেশি রান হয়েছে। সুনীল গাওস্করের মতে, পিচে বল ঘুরতে পারে। ফলে, স্পিনারদের গুরুত্ব বাড়তে পারে। এই মাঠে খেলার সময় বিভিন্ন কোণগুলোর সঙ্গে পরিচিত হওয়া সফরকারী দলের পক্ষে জরুরি। মাঠ ছোট বলে শুক্রবার প্রচুর বাউন্ডারি দেখা গিয়েছে। মিসহিটও এই মাঠে সীমানা পার করে দেয়।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন