Advertisement
০৫ মার্চ ২০২৪
Cheteshwar Pujara

আত্মসম্মানে ঘা লাগে, সন্দেহ হয়, আদৌ খেলার যোগ্য তো? বাদ পড়ে ভেঙে পড়েছেন পুজারা

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নিপ ফাইনালে দুই ইনিংসে কিছুই করতে পারেননি। আবার বাদ পড়তে হয়েছে ভারতীয় দল থেকে। সেই হতাশার কাহিনি শোনালেন চেতেশ্বর পুজারা।

cricket

চেতেশ্বর পুজারা। — ফাইল চিত্র।

আনন্দবাজার অনলাইন ডেস্ক
শেষ আপডেট: ২১ অগস্ট ২০২৩ ১৯:২১
Share: Save:

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নিপ ফাইনালের দলে সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। দুই ইনিংসে কিছুই করতে পারেননি। ফলে আবার বাদ পড়তে হয়েছে ভারতীয় দল থেকে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ়‌ের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ়‌ের দলে জায়গা পাননি। এশিয়া কাপের দল ঘোষণা হওয়ার দিনই পুজারা টেস্ট দল থেকে বাদ পড়ার পর নিজের অনুভূতির কথা শোনালেন। জানালেন, কতটা হতাশ হয়েছিলেন এবং আত্মবিশ্বাস কতটা ধাক্কা খেয়েছিল তাঁর।

বিশ্ব টেস্ট ফাইনালে দুই ইনিংস মিলিয়ে ৪১ রান করা পুজারা এক পডকাস্টে বলেছেন, “গত কয়েক বছরে অনেক উত্থান-পতন দেখেছি। ৯০টার বেশি টেস্ট খেলার পরেও যখন নিজেকে প্রমাণ করতে হয়, তখন সেটা কঠিন পরীক্ষা তো বটেই। এখনও প্রমাণ করতে হয় আমি টেস্ট দলে খেলার যোগ্য। এটা অন্য রকম পরীক্ষা আমার কাছে।”

বাদ পড়ার হতাশা সম্পর্কে পুজারার মন্তব্য, “কখনও সখনও সত্যিই হতাশ হয়ে পড়ি। ৯০টা টেস্ট খেলে পাঁচ-ছ’হাজার, যা-ই রান করি না কেন, তার পর নিজেকে প্রমাণ করা সত্যিই সহজ নয়। আত্মসম্মানে ধাক্কা লাগে। নিজের মনের মধ্যেই সন্দেহ তৈরি হয়, আমি আদৌ আর খেলার যোগ্য তো? বার বার নিজেকে প্রমাণ করতে হলে এমন আশঙ্কা অমূলক নয়।”

গত বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে ৯২৮ রান করে ভারতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন পুজারা। ঘরোয়া ক্রিকেটেও খারাপ খেলেননি। এখন সাসেক্সের হয়ে কাউন্টিতে খেলছেন। তার ফাঁকেই স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, ভারতের হয়ে এখনও অনেক কিছু দেওয়া বাকি তাঁর। বলেছেন, “ভারতীয় ক্রিকেটে কতটা অবদান রাখতে পেরেছি সেটা আমি জানি। কিছু দিন আগেই একটা পরিসংখ্যান পেলাম। আমি কোনও টেস্টে ৭০-৮০ রান করলে অন্তত ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে হয় ভারত সেই ম্যাচ জিতেছে অথবা ড্র করেছে। তাই এখনও অনেক কিছু দেওয়ার বাকি রয়েছে।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE