×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২১ জুন ২০২১ ই-পেপার

‘একদিন সাধারণ জুতোয় ‘অ্যাডিডাস’ লিখে নিতাম, আর আজ...’

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ২৭ এপ্রিল ২০২০ ১৬:৩৩
হিমার অ্যাথলিট হয়ে ওঠার পথ মোটেই মসৃণ ছিল না। —ফাইল চিত্র।

হিমার অ্যাথলিট হয়ে ওঠার পথ মোটেই মসৃণ ছিল না। —ফাইল চিত্র।

সময় এ ভাবেও বদলে যায়! একসময় কম দামি জুতোর উপর লিখতেন জুতো প্রস্তুতকারক সংস্থা ‘অ্যাডিডাস’-এর নাম। এখন সেই বিখ্যাত সংস্থা তাঁর জন্য বিশেষ জুতো তৈরি করছে যাতে তাঁরই নাম লেখা। এমনটাই জানালেন অ্যাথলিট হিমা দাস

ভারতীয় ক্রিকেটার সুরেশ রায়নার সঙ্গে ইনস্টাগ্রাম চ্যাটে হিমা শোনালেন জীবনের সেই কঠিন দিনগুলোর কথা। ২০ বছর বয়সি বলেন, “আমি যখন দৌড় শুরু করি, তখন খালি পায়েই দৌড়তাম। প্রথম বার জাতীয় প্রতিযোগিতায় নামার সময় বাবা স্পাইক দেওয়া জুতো কিনে এনেছিল। ওটা ছিল একেবারেই সাদামাটা দৌড়নোর জুতো। আমি তাতে নিজের হাতে ‘অ্যাডিডাস’ লিখেছিলাম। কপালে কী থাকে তা কি কেউ জানে। অ্যাডিডাস এখন নিজেই জুতো বানিয়ে তাতে আমার নাম লিখে দিচ্ছে।”

আরও পড়ুন: হর্ষ ভোগলের নাম শুনলে প্রথমেই কী মনে হয়? সঞ্জয় মঞ্জরেকর বললেন...​

Advertisement

আরও পড়ুন: এই আবহে কী ভাবে সম্ভব ভারত সফর? অজি বোর্ডের পরিকল্পনা ফাঁস করলেন টিম পেন​

২০১৮ সালে ফিনল্যান্ডে অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ৪০০ মিটারে সোনা জিতেছিলেন হিমা। তার পরই তিনি ব্র্যান্ড অ্যামবাসাডর হন এই ব্র্যান্ডের। তখন থেকেই তাঁর নামে জুতো তৈরি করতে থাকে এই সংস্থা। হিমা জানান, দু’বছর আগে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ ও এশিয়ান গেমস থেকে সাফল্যের পর অসমে ফেরার সময় গুয়াহাটি বিমানবন্দরে জনতার অভ্যর্থনায় অভিভূত হয়ে পড়েছিলেন তিনি।

হিমাকে অনেকের অনুপ্রেরণা হিসেবে চিহ্নিত করেন সুরেশ রায়না। পরে তিনি টুইটও করেন, “শুধু আমি একাই নই, আর যাঁরা আমাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন, তাঁরা সবাই নিশ্চিত ভাবেই তোমাকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়েছেন। তুমি সমস্ত মেয়েদের কাছে রোল মডেল।”


Advertisement