Advertisement
০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Sania Mirza

সানিয়া-শোয়েব জুটি কি সত্যিই ভাঙছে? অবশেষে মুখ খুললেন ভারতীয় টেনিস তারকার বাবা

সানিয়া এবং শোয়েবের বিবাহবিচ্ছেদের গুঞ্জন গত শনিবার প্রথম প্রকাশ্যে আসে। তারকা দম্পতির কেউই এখনও প্রকাশ্যে মুখ খোলেননি। সানিয়ার বাবা ইমরান মির্জ়া এ বার মুখ খুললেন।

সানিয়া এবং শোয়েবের সম্পর্ক নিয়ে এ বার মুখ খুললেন ইমরান মির্জ়া।

সানিয়া এবং শোয়েবের সম্পর্ক নিয়ে এ বার মুখ খুললেন ইমরান মির্জ়া। ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদন
শেষ আপডেট: ০৯ নভেম্বর ২০২২ ১০:৪১
Share: Save:

গত কয়েক দিন ধরেই সানিয়া মির্জ়া এবং শোয়েব মালিকের সম্পর্ক নিয়ে অনেক চর্চা চলছে। তাঁদের বিয়ে ভেঙে যেতে পারে, এমন একটা সম্ভাবনা ঘুরছে সব মহলে। তারকা দম্পতির কেউই এখনও প্রকাশ্যে মুখ খোলেননি। তবে সানিয়ার বাবা ইমরান মির্জ়াকে এ বার মুখ খুলতে দেখা গেল। সমাজমাধ্যমে একটি লম্বা পোস্টের মাধ্যমে সানিয়া এবং শোয়েবের সম্পর্কের ব্যাপারে উত্তর দিয়েছেন তিনি।

Advertisement

কী লিখেছেন ইমরান?

ফেসবুকে একটি পোস্টে সানিয়ার বাবা লিখেছেন, “গত কয়েক দিন ধরে আমাদের জীবনের একটি নির্দিষ্ট বিষয়কে নিয়ে প্রকাশ্যে অনেক আলোচনা হচ্ছে, যাতে আমি এবং আমার পরিবার বিধ্বস্ত। অর্ধেক সত্যের দ্বারা তৈরি হওয়া আমাদের জীবনের একটি বিষয়কে নিয়ে অনেকেই আমাকে ব্যক্তিগত ভাবে বিরক্ত করছেন এবং একের পর এক প্রশ্নের দ্বারা উত্ত্যক্ত করছেন। শোয়েব মালিক এবং সানিয়া মির্জা গত ১২ বছর ধরে বিবাহিত জীবন কাটাচ্ছে। বাকিদের মতোই ওদের জীবনেও ওঠানামা রয়েছে। টম, ডিক, হ্যারির মতো কিছু কিছু ব্যক্তি সেটাকে নিয়ে উত্তেজক কাহিনি তৈরির করার চেষ্টা করছে, যা আমরা কোনও মতেই সমর্থন করি না।”

ইমরান আরও লিখেছেন, “জীবনের সব উত্তর হ্যাঁ বা না-তে হয় না। ক্রীড়াজগতে ওরা দু’জনেই আদর্শ। পরিবারের কথা মাথায় না রেখে নিজেদের গোটা জীবন উৎসর্গ করে দিয়েছে দেশকে গর্বিত করতে। ওরা অন্তত আরও বেশি সমীহ প্রত্যাশা করে। এখন অস্ট্রেলিয়ায় বিশ্বকাপ চলছে! দয়া করে নিজেদের দেশকে সমর্থন করার দিকে মনোযোগ দিন!”

Advertisement

প্রসঙ্গত, সানিয়া এবং শোয়েবের বিবাহবিচ্ছেদের গুঞ্জন গত শনিবার প্রথম প্রকাশ্যে আসে। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ‘ডেইলি জাং’ এমনটাই জানায়। ২০১০ সালে ভারতের সানিয়ার সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল পাকিস্তানের শোয়েবের। সেই সম্পর্কই ভেঙে যেতে পারে বলে জানা যায়।

সূত্রের খবর, সানিয়া এবং শোয়েব একসঙ্গে থাকছেন না। তাঁদের একমাত্র সন্তান ইজ়হান মির্জ়া মালিককে যদিও তাঁরা একসঙ্গেই দেখাশোনা করছেন বলে জানা গিয়েছে। শোয়েবের অন্য কোনও মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। সে কারণেই ১২ বছরের সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এই গুঞ্জন আরও বেড়েছে সানিয়ার কিছু পোস্টের পর।

ইনস্টাগ্রামে একটি স্টোরিতে সানিয়া লেখেন, “ভাঙা হৃদয় কোথায় যায়? ঈশ্বর খুঁজতে।” ভারতের অন্যতম সেরা টেনিস তারকা ছেলেদের সঙ্গে একটি ছবিও পোস্ট করেন। তাতে দেখা যাচ্ছে, ইজ়হান তাঁকে চুমু খাচ্ছে। সেই সঙ্গে সানিয়া লেখেন, “যে মুহূর্তগুলো কঠিন সময় পার করে দেয়।”

এর মাঝেই শোনা গিয়েছে, শোয়েবের জীবনে এসেছেন তৃতীয় ব্যক্তি। প্রশ্ন ওঠে, কে সেই তৃতীয় ব্যক্তি, যিনি ভারত-পাক জুটির মাঝে মধ্যমণি হয়ে দাঁড়িয়েছেন? আপাতত শোয়েবের সঙ্গে বিতর্কে নাম জড়িয়েছে দু’জনের। প্রথম জন হলেন পাকিস্তানি অভিনেত্রী আয়েশা ওমর। ২০২১ সালে একটি ম্যাগাজ়িনের জন্য ফটোশুটে এক সঙ্গে দেখা গিয়েছিল শোয়েব এবং আয়েশাকে। তার পর থেকেই অভিনেত্রীর সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে পাক ক্রিকেটারের নাম।

ফটোশুটের ছবিগুলিতে শোয়েব এবং আয়েশাকে বেশ ঘনিষ্ঠ অবস্থায় দেখা গিয়েছিল। পুলের জলে নেমে দু’জনে সিক্ত শরীরে ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছিলেন। পাক অভিনেত্রীর সঙ্গে শোয়েবের এমন ঘনিষ্ঠ ছবি দেখে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছিলেন, দু’জনের মধ্যে কোনও সম্পর্ক গড়ে উঠেছে কি না। আয়েশার সঙ্গে শোয়েবের সম্পর্ক নিয়ে যতই জল্পনা চলুক, কোনও পক্ষই তা নিয়ে মুখ খোলেনি। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে যখন শোয়েবের বিবাহবিচ্ছেদের গুঞ্জন শুরু হয়েছে, তখন অনেকে মনে করছেন, তাঁর সঙ্গে গোপনে প্রাক্তন পাক ক্রিকেটারের সম্পর্ক গড়ে উঠেছে কি না। সেই কারণেই কি সানিয়ার সঙ্গে সম্পর্কে ভাঙনের সূত্রপাত?

আর এক পাক অভিনেত্রীর সঙ্গেও শোয়েবের সম্পর্ক নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছিল। চলতি বছরের শুরুর দিকে পাকিস্তানের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাহিরা খানের সঙ্গে শোয়েবের নাম জড়িয়েছিল। মাহিরার সঙ্গে ইনস্টাগ্রাম লাইভে এক বার আড্ডায় বসেছিলেন শোয়েব। দেশের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা চলছিল। সেই শো-তে দেখা গিয়েছিল, অভিনেত্রীর সঙ্গে রীতিমতো ‘ফ্লার্ট’ করছেন সানিয়ার স্বামী।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.