মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে সপ্তম দিনের মাথায় আন্দোলনে ইতি টানলেন জুনিয়র চিকিৎসকেরা।

সোমবার শুরু থেকেই বৈঠকের রাশ নিজের হাতে রেখে তাঁদের অভিযোগ, অনুযোগ, পরামর্শ শুনলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিলেন পদক্ষেপের আশ্বাস। ভুল হয়ে থাকলে তাঁর কাছে করজোড়ে ক্ষমা চাইলেন ডাক্তারদের প্রতিনিধিরাও। ‘লক্ষ্মী ছেলে’ বলে তাঁদের স্নেহ-সম্বোধন করলেন মমতা। 

তাঁর আশ্বাসের প্রেক্ষিতে এ দিন সন্ধ্যা থেকেই কাজে যোগ দিয়েছেন জুনিয়র ডাক্তারেরা। আজ, মঙ্গলবার সকাল থেকে আউটডোরেও স্বাভাবিক কাজ শুরু হবে। কর্মবিরতি ওঠার পরে এ দিন রাতেই মৌলালির বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আহত চিকিৎসক পরিবহ মুখোপাধ্যায়কে দেখতে যান মুখ্যমন্ত্রী।

এ দিন সাড়ে তিনটে নাগাদ মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের কনফারেন্স কক্ষে পৌঁছে যান জুনিয়র ডাক্তারদের ৩১জন প্রতিনিধি। স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, দুই প্রবীণ চিকিৎসক সুকুমার মুখোপাধ্যায় ও অভিজিৎ চৌধুরী, মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, স্বাস্থ্যসচিব, ডিজি, এডিজি (আইনশৃঙ্খলা), কলকাতা পুলিশ কমিশনারকে সঙ্গে নিয়ে বিকেল চারটেয় বৈঠক শুরু করেন মুখ্যমন্ত্রী। সরাসরি সম্প্রচার হয় সেই বৈঠকের। 

বৈঠকে প্রাপ্তি

• নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ডিজি, কলকাতার পুলিশ কমিশনারকে নির্দেশ। বসবে জরুরি বিভাগে কোলাপসিব্‌ল গেট। 
• নিরাপত্তায় নজর রাখতে নোডাল পুলিশ অফিসার নিয়োগ।
• সরকারি প্রতিশ্রুতি পূরণে প্রশাসনিক শীর্ষ কর্তাদের উপযুক্ত নির্দেশ।
• ক্ষতিপূরণের দাবি নিয়ে স্বাস্থ্যসচিবকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের নির্দেশ।
• চিকিৎসক ও রোগীর পরিবারের মধ্যস্থতায় জনসংযোগ আধিকারিক নিয়োগের নির্দেশ।
• অভিযোগ কেন্দ্র গঠন করে প্রচার।
• রাজনৈতিক রং না-দেখে পুলিশকে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ।
• রোগী কল্যাণ সমিতি সক্রিয় করার নির্দেশ।

এ দিনের বৈঠকের বেশির ভাগটা জুড়েই ছিল নিরাপত্তা নিয়ে জুনিয়র চিকিৎসকদের অভিজ্ঞতা এবং প্রস্তাব। রোগীদের পরিজনদের উপস্থিতি, বহিরাগতদের উস্কানি, অভিযোগ কেন্দ্র খুঁজে না পাওয়া, রোগী কল্যাণ সমিতিগুলির দুর্বল উপস্থিতি— ইত্যাদি বিষয়ে তাঁরা মুখ্যমন্ত্রীকে জানান। শুরুতেই মেডিক্যাল কলেজের অর্চিষ্মান ভট্টাচার্য মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, ‘‘বাধ্য হয়ে, অনিচ্ছা সত্ত্বেও আন্দোলনে যেতে হয়েছে। সাধারণ মানুষের খুব কষ্ট হচ্ছে, কিন্তু আমরা নিরূপায়। কাজে ফিরতে চাই। নির্ভয়ে কাজ করতে চাই। হামলাকারীদের যেন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়। আপনার উপর প্রবল আস্থা রয়েছে।’’

আরও পড়ুন: মানুষের চাপেই গোঁ ছাড়লেন ‘বিপ্লবীরা’

এ দিন হাসপাতালের গোলমালে বহিরাগত এবং রাজনৈতিক উস্কানির অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। রোগীমৃত্যু হলে কেন জুনিয়র ডাক্তারদের জবাবদিহি করতে হয়, সেই প্রশ্নও তুলেছেন তাঁরা। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘রোগীর মৃত্যু হলে পরিজনদের মাথার ঠিক থাকে না। তাঁদের খবরটা সঠিক ভাবে জানানো সম্ভব হয় না। হাসপাতালগুলিতে তিন শিফটে জনসংযোগকারী নিয়োগ করতে হবে।’’ রাজনৈতিক রং নির্বিশেষে সকলে যাতে হাসপাতালের নিয়ম মানতে বাধ্য থাকে, তা নিশ্চিত করার নির্দেশ পুলিশকে দেন তিনি। 

গত ছ’দিন ডাক্তারদের অন্যতম দাবি ছিল, মুখ্যমন্ত্রীকে যেতে হবে এনআরএস হাসপাতালে। এ দিন সরাসরি সেই প্রসঙ্গে না টেনেও নিজেদের দাবির ব্যাখ্যা দিতে গেলে মমতা বলেন, ‘‘আমি নিজে থেকেই যাই। আমার উপর ছেড়ে দাও। কখন কোথায় যাব তোমরা বোলো না।’’ 

প্রশাসনিক কর্তাদের একাংশের ধারণা, এই পর্ব থেকেই বৈঠকের চালিকাশক্তি হয়ে ওঠেন মুখ্যমন্ত্রী নিজে। চিকিৎসকদের কিছু দাবি মেনেছেন, কিছু খারিজ করেছেন। তাঁর প্রশ্নের মুখে পড়েছেন আমলারাও। তাঁদের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘এরা (ডাক্তাররা) যেটা চাইছে, তাতে কত টাকা লাগবে? টাকা বরাদ্দ হলেই হবে না, তা বাস্তবায়িত হতে হবে। আমি জানি, অনেক মেশিন কেনা হলেও তা খোলাই হয়নি। কেন পড়ে রয়েছে? এগুলো তো এ বার নষ্ট হয়ে যাবে।’’

এর আগে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, চিকিৎসক ও হামলাকারীদের উভয়ের বিরুদ্ধেই অভিযোগ জমা পড়েছে। দু’টি অভিযোগই খতিয়ে দেখা হবে। এ দিন মুখ্যমন্ত্রী সকলকে আশ্বস্ত করে বলেন, ‘‘ডাক্তারদের কারও বিরুদ্ধে মামলা হয়নি। ছোট, ছোট ছেলেমেয়েরা আমাদের ভবিষ্যৎ। কেন মামলা করব?’’ এক চিকিৎসক মুখ্যমন্ত্রীকে বলেন, ‘‘দৃঢ় বার্তা দিন ডাক্তার পেটানো যায় না।’’ মমতা পাল্টা বলেন, ‘‘কোন দৃঢ় শব্দ চাইছ জানাও, তা-ই বলব। বৈঠক শেষে প্রতিনিধিরা জানান, হাসপাতালে ফিরে আলোচনা করে আন্দোলন তোলার কথা ঘোষণা করবেন তাঁরা। মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের বলেন, ‘‘লক্ষ্মী ছেলেরা আমার। কাজে যোগ দাও। লাইভ হচ্ছে, এখানে মিষ্টি করে বলে দাও। ওখানে গিয়ে জোরালো করে ঘোষণা করো।’’