গ্রেফতারি এড়াতে আগাম জামিনের পথেই এগলো রাজীব কুমার। শুক্রবার এ বিষয়ে সিবিআইকেও নোটিস দিয়েছেন তাঁর আইনজীবী। আলিপুর আদালতেও আগাম জামিনের আবেদন জমা দিয়েছেন তাঁর আইনজীবী। নোটিস পাওয়ার পর আলিপুর জেলা আদালতে পৌঁছেছেন সিবিআইয়ের আইনজীবীরাও। আগামিকাল বেলা ১২টার সময় শুনানি শুরু হবে বলে জানা যাচ্ছে।

রাজীব কুমারকে যে গ্রেফতারিতে কোনও বাধা নেই, বৃহস্পতিবারই তা স্পষ্ট করে দিয়েছিল আলিপুর আদালত। এই পরিস্থিতিতে রাজীব কুমারের টেজি কী হবে, কী ভাবে তিনি এই পরিস্থিতির মোকাবিলা করবেন? ‘নিরুদ্দেশ’ই থাকবেন নাকি এবার সিবিআইয়ের মুখোমুখি হবেন তা নিয়েই জল্পনা তৈরি হয়েছে।

তাঁর সামনে দুটো রাস্তাই খোলা ছিল। এক, আলিপুর আদালতে আজ, শুক্রবার তিনি আইনজীবী মারফর আগাম জামিনের আবেদন করবেন, বা দুই, সিবিআইয়ের দ্বিতীয় নোটিসের প্রেক্ষিতে হাজিরা দেবেন। তবে প্রথম সম্ভাবনাটাই জোরালো বলে মনে করেছিলেন আইনজীবীদের একাংশ। সে পথেই হাঁটলেন তিনি।

কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার গত শনিবার থেকে কার্যত ‘নিরুদ্দেশ’। বৃহস্পতিবার শহর জুড়ে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা হন্যে হয়ে খুঁজেও তাঁর নাগাল পাননি। পার্ক স্ট্রিটে রাজীবের বাসভবনে গিয়ে নতুন করে নোটিস দিয়ে এসেছে সিবিআই। অবিলম্বে সিবিআইয়ের সঙ্গে দেখা করার নির্দেশ রয়েছে সেই নোটিসে। আলিপুর আদালতের রায়ের পর রাজীবকে ধরতে অফিসারের সংখ্যা আরও বাড়ানো হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।

আরও পড়ুন: বাড়ি-হোটেল, ক্লাব, দিনভর রাজীব-খোঁজ চালাল সিবিআই

আরও পড়ুন: বঙ্গে এনআরসি নিয়ে নীরবই রইলেন অমিত শাহ

এর আগে বারাসত জেলা আদালতে আগাম জামিনের আবেদন করেছিলেন রাজ্যের গোয়েন্দাপ্রধান। কিন্তু যে হেতু সারদার মূল মামলার উৎপত্তি দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলায়, তাই আগাম জামিনের আবেদন শোনার এক্তিয়ার আলিপুর আদালতেরই, জানিয়েছিলেন বারাসত জেলা জজ মহম্মদ সাব্বার রশিদি।