এ বার চলচ্চিত্র উৎসবে আমন্ত্রণ না পাওয়ার কারণেও ক্ষুব্ধ রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। এর আগে রেড রোডে দুর্গাপুজোর কার্নিভাল হোক বা কালীঘাটে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে ভাইফোঁটা— নানা অনুষ্ঠানে হাজির থাকার ইচ্ছার কথা শোনা গিয়েছিল রাজভবনের তরফে। স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রাজ্যপালের আমন্ত্রিত হওয়ার ইচ্ছার তালিকায় যোগ হল আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব!

রাজভবনে বিজয়া সম্মিলনী করতে গিয়ে শুক্রবার রাজ্যপাল অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেছিলেন, রাজ্য সরকারের কোনও অনুষ্ঠানে তাঁকে ডাকা হয় না। তারই রেশ টেনে রবিবার রাজ্যপাল বলেছেন, ‘‘আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষ আসবেন। সেখানে আপনাদের রাজ্যপালই আমন্ত্রিত নন!’’ রাজনৈতিক শিবিরের একাংশের ধারণা, এ কথা উল্লেখ করে রাজভবনের প্রতি নবান্নের ‘উপেক্ষা’র অভিযোগই ফের সামনে আনতে চেয়েছেন তিনি। যদিও সরকারি সূত্রে বলা হচ্ছে, চলচ্চিত্র উৎসবে কোনও কালেই রাজ্যপালকে আমন্ত্রণের রেওয়াজ নেই। তা ছাড়া, এটা সরকারি উৎসবও নয়। উৎসব কমিটির আয়োজনে সরকার পরিকাঠামোগত সহযোগিতা দেয়।

কলকাতায় চলচ্চিত্র উৎসবের এ বার ২৫ বছর। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আগামী ৮ নভেম্বর। সরকারি সূত্রে খবর, শনিবারই রাজভবন থেকে তথ্য ও সংস্কৃতি সচিবের কাছে বার্তা পাঠিয়ে বলা হয়েছিল, তাঁর ও চলচ্চিত্র উৎসব কমিটির শীর্ষস্থানীয় পদাধিকারীর সঙ্গে আজ, রবিবারই দেখা করতে চান রাজ্যপাল। রাজ্য সরকারের তরফে অবশ্য ওই বার্তায় বিশেষ আমল দেওয়া হয়নি। তার পরেই এ দিন একটি অনুষ্ঠানে রাজ্যপাল স্বতঃপ্রণোদিত হয়েই বিষযটির উল্লেখ করেন।

আরও পড়ুন: ‘বুড়ো হাড়ে বড্ড লাগে,’ জেল থেকে বেরিয়ে ফন্ডা

তৃণমূলের মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘রাজ্যপাল রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান। তিনি এমন সব কথা বলছেন, যা তাঁর মুখে বেমানান!’’ কার্নিভালে আমন্ত্রণ জানিয়েও তাঁকে ‘সম্মান’ দেওয়া হয়নি, এই ক্ষোভে সরব হয়েছিলেন রাজ্যপাল। এ বার মুখ খুললেন চলচ্চিত্র উৎসবে আমন্ত্রণ পাননি বলে।