ভাঙড়ে অশ্লীল এবং চটুল নাচের আসর বসানোর অভিযোগে তিন জন আয়োজককে গ্রেফতার করল পুলিশ। ধৃত ছাকবাত মোল্লা, শ্যামল ঘোষ এবং বাপি শেখ এলাকায় সক্রিয় তৃণমূল কর্মী হিসাবে পরিচিত। এলাকার মানুষ তাদের ভাঙড়ের শানপুকুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান ঘনিষ্ঠ হিসাবেই চেনেন।

লোকসভা ভোটে তৃণমূলের প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন। শানপুকুর এলাকা থেকে তিনি ব্যাপক লিডও পেয়েছেন। কিন্তু দলনেত্রী বিজয় মিছিল করতে বারণ করায় তৃণমূল কর্মীদের আব্দার ছিল একটা জলসা করার। সেই মতো একটি জলসার আয়োজন করা হয়। গ্রামবাসীদের দাবি, ওই এলাকার নেতা পঞ্চায়েতের উপপ্রধান আনসার মোল্লাই গোটা অনুষ্ঠানের সমস্ত বন্দোবস্ত করে দেন। এর পর সোমবার রাতে নাচের আসর বসে। অভিযোগ, সেখানে পানশালার নর্তকীরা স্টেজে ছোট পোশাক পরে নাচ শুরু করেন। অশ্লীল নাচ চলতে থাকে মঞ্চে। অন্তর্বাসহীন পোশাক মাঝে মাঝে তুলে শরীরের বিভিন্ন অংশও দেখান ওই নর্তকী। গ্রামের অনেকেই সেই নাচের প্রতিবাদ করেন।

ওই নাচের ভিডিয়ো গ্রামবাসীদের মাধ্যমেই পৌঁছয় কাশীপুর থানার পুলিশের কাছে। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ সেই অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেয়। গ্রাম সূত্রের খবর, মঙ্গলবার ভাঙড়-২ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি আরাবুল ইসলাম গোটা ঘটনার জন্য আনসার মোল্লা তিরস্কার করেন। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে কোনও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বুধবার আরাবুল ইসলামকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, তৃণমূল কংগ্রেসের কেউ ওই অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত নন। তবে ঘটনার পর থেকেই আনসার মোল্লার মোবাইল ফোন বন্ধ। শানপুকুর পঞ্চায়েতের প্রধান তানিয়া বিবিকে এ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘‘আমি এ ব্যাপারে কিছু জানি না। আমি ওই অনুষ্ঠানেও যাইনি।”

(ভিডিয়ো থেকে অশ্লীল অংশ বাদ দেওয়া হয়েছে।) 

আরও পডু়ন: ভরদুপুরে নিউ আলিপুরে সেনার পোশাক পরে ব্যবসায়ীকে ‘অপহরণ’-এর চেষ্টা, গুলি

আরও পডু়ন: কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ছেলের ‘গুন্ডাগিরি’! ব্যাট দিয়ে পেটালেন সরকারি আধিকারিককে