×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৪ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

সবাইকে নিয়ে চলি, দাবি অনুব্রতর

নিজস্ব সংবাদদাতা
কেতুগ্রাম ২৮ নভেম্বর ২০২০ ০২:১১
—ফাইল চিত্র

—ফাইল চিত্র

দিনকয়েক আগেই বর্ধমানে একটি অনুষ্ঠানে নাম না করে তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের বিরুদ্ধে তাঁকে উন্নয়নের কাজ করতে না দেওয়া এবং দলের পুরানো কর্মীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছিলেন রাজ্যের গ্রন্থাগারমন্ত্রী তথা মঙ্গলকোটের তৃণমূল বিধায়ক সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। শুক্রবার কেতুগ্রামে দলের বুথভিত্তিক সম্মেলনে এসে মন্ত্রীর অভিযোগকে ‘উনি যা বলেছেন, মিথ্যা ও বাজে কথা’ বলে পাল্টা দাবি করলেন অনুব্রত। সিদ্দিকুল্লাও এ দিন বলেন, ‘‘আমার কাজ করতে অসুবিধা হচ্ছে, সে কথা মুখ্যমন্ত্রীকেও জানিয়েছি। কে, কী বলল তাতে কিছু আসে যায় না।’’

এ দিন দুপুর দেড়টা নাগাদ থেকে কেতুগ্রাম ২ ব্লকের খারুলিয়া বিএড কলেজের মাঠে ওই সম্মেলনে বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের সঙ্গে ছিলেন বোলপুরের সাংসদ অসিত মাল, কেতুগ্রামের বিধায়ক শেখ সাহানেওয়াজ, কেতুগ্রাম ১ ও ২ ব্লক তৃণমূল সভাপতি তরুণ মুখ্যোপাধ্যায় ও বিকাশ মজুমদার। সীতাহাটি পঞ্চায়েতের ১৯টি, নিরোল ও কেতুগ্রাম পঞ্চায়েতের ১৩টি করে বুথ কমিটিকে ডাকা হয় সেখানে। প্রতিটি বুথ থেকে ৪০ জন পুরুষ ও ২০ জন মহিলা কর্মী হাজির ছিলেন। সম্মেলনের শুরুতেই অঞ্চল সভাপতি ও বুথ সভাপতিদের কাছ থেকে আগামী বিধানসভা ভোটের প্রস্তুতি নিয়ে মতামত জানতে চান অনুব্রত। কোথায় কত ভোটে দল পিছিয়ে আছে, কী ভাবে তা মোকাবিলা করা হবে তা নিয়ে আলোচনা হয়।

অনুব্রত বলেন, ‘‘আমি সবাইকে নিয়ে চলি বলে মঙ্গলকোট, কেতুগ্রাম ও আউশগ্রামে সংগঠন মজবুত আছে। বিজেপি দাঁত ফোটাতে পারবে না।’’ তবে শুভেন্দু অধিকারীর মন্ত্রিত্ব থেকে ইস্তফা দেওয়ার প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসা করা হলেও ‘বিষয়টি রাজ্য নেতৃত্বের ব্যাপার’ বলে মন্তব্য তাঁর। তবে সভায় হাজির দলের কর্মীদের মধ্যে শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে ভালই চর্চা ছিল।

Advertisement
Advertisement