Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৮ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

জন্ম ১৯৬৪ — মৃত্যু ২০২০

গরু পারাপারেরও সাক্ষী টালা সেতু

দেবাশিস ঘড়াই
কলকাতা ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০৯:০০
শেষের শুরু: শনিবার চলছে সেতু ভাঙার কাজ।

শেষের শুরু: শনিবার চলছে সেতু ভাঙার কাজ।

গরু পারাপার থেকে শুরু করে ডবল ডেকার বাস পড়ে যাওয়া, তারও পরে হেমন্তকুমার বসু-হত্যা— সবের সঙ্গেই টালা সেতুর অবিচ্ছিন্ন যোগ। এমনটাই জানাচ্ছে কলকাতার ইতিহাস। ফলে টালা সেতু ভাঙা মানে শহরের ইতিহাসেরই অঙ্গচ্ছেদ হওয়া বলে মনে করছেন কলকাতা-গবেষকদের একটি বড় অংশ। কারণ, বিভিন্ন সময়ে শহরের একাধিক পর্ব ধরেছে এই সেতু। তার মধ্যে রাজনীতি যেমন মিশে রয়েছে, তেমনই মিশেছে শহর গড়ে ওঠার ইতিহাস ও তার বিবর্তন।

কলকাতা-গবেষকদের অনেকেই জানাচ্ছেন, এক সময়ে টালা সেতুর লোকমুখে নাম হয়ে উঠেছিল, ‘কাউ ক্রসিং ব্রিজ’, অর্থাৎ ‘গরু পারাপারের সেতু’। কলকাতা-গবেষক হরিপদ ভৌমিক বলছেন, ‘‘গরু পারাপারের জন্য ওই সেতু ব্যবহার করা হত। তাই লোকমুখে তার নামই হয়ে যায় ‘কাউ ক্রসিং ব্রিজ’। তার প্রামাণ্য তথ্যও রয়েছে কলকাতার ইতিহাস সংক্রান্ত নানা বইয়ের পাতায়।’’ তথ্য বলছে, ১৯৩৬ সালে চালু হয়েছিল এই সেতু। কিন্তু গবেষকেরা জানাচ্ছেন, যে সেতুটি বর্তমানে দেখা যায় এবং যেটি ভেঙে ফেলা হচ্ছে, তার কাঠামো তৈরি হয়েছিল অনেক পরে, ১৯৬৪ সালে রাজ্যের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী প্রয়াত প্রফুল্লচন্দ্র সেনের সময়ে।

তার আগে টালা সেতুর যে পুরনো কাঠামো ছিল, সেটি তত সুরক্ষিত ছিল না বলেই জানাচ্ছেন গবেষকেরা। আর এক কলকাতা-গবেষক দেবাশিস বসু বলেন, ‘‘এক সময়ে ওই সেতু থেকে একটি ডবল ডেকার বাস নীচে পড়ে গিয়েছিল। ছোটবেলায় যখন ওই সেতু দিয়ে বড়দের সঙ্গে যাতায়াত করতাম, তাঁরা বলতেন, ‘এই যে এখান থেকে বাস পড়ে গিয়েছিল’।’’ তবে তখনকার তথ্য ঘাঁটলে দেখা যাচ্ছে, ওই দুর্ঘটনায় কারও মৃত্যু হয়নি। কেউ আহত হয়েছিলেন কি না, সে সম্পর্কে নিশ্চিত কোনও তথ্য অবশ্য পাওয়া যাচ্ছে না।

Advertisement



১৯৬৪ সালে সেটির উদ্বোধন করছেন মুখ্যমন্ত্রী প্রফুল্লচন্দ্র সেন (বাঁ দিকে)। ১৯৭৩-এ নাম পরিবর্তনের অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থশঙ্কর রায় ডান দিকে)। ছবি: সুমন বল্লভ ও আনন্দবাজার আর্কাইভ

তবে ‘কাউ ক্রসিং ব্রিজ’ থেকে ‘টালা ব্রিজ’— এই সেতুর পরম্পরা সেখানেই থেমে থাকেনি। সেতুর নিজস্ব ইতিহাস আবারও পরিবর্তিত হল, ১৯৭৩ সালের ৫ অক্টোবর। যখন টালা সেতুর নতুন নাম হল ‘হেমন্ত সেতু’। সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লকের চেয়ারম্যান প্রয়াত নেতা হেমন্তকুমার বসুর স্মরণে ওই দিন তাঁর ৭৮তম জন্মদিনে রাজ্যের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থশঙ্কর রায় সেতুর নতুন নামকরণ করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সিদ্ধার্থবাবু বলেছিলেন, ‘‘হেমন্তবাবুকে মানুষ কোনও দিনই ভুলবেন না এবং এই সেতু তাঁর স্মৃতিতেই উৎসর্গ করা হল।’’ হেমন্তবাবুর আদর্শে উদ্বুদ্ধ হওয়ার জন্য তিনি যুব সম্প্রদায়কে আহ্বানও করেছিলেন। তৎকালীন পূর্তমন্ত্রী ভোলা সেন বলেছিলেন, ‘‘এই নামকরণের মাধ্যমে উত্তর কলকাতার দীর্ঘদিনের একটি ইচ্ছেকে মর্যাদা দেওয়া গেল।’’

কিন্তু টালা সেতুর নাম হেমন্ত সেতু হল কেন?

ইতিহাস বলছে, টালা সেতু থেকে কিছু দূরেই শ্যামপুকুর স্ট্রিটে ১৯৭১ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি বছর ছিয়াত্তরের হেমন্তবাবুর উপরে একদল আততায়ী আক্রমণ করে। ভোজালি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছিল এক সময়ে সুভাষচন্দ্র বসুর সহকর্মী হেমন্তবাবুকে। সে বছরও তিনি শ্যামপুকুর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে দাঁড়িয়েছিলেন। ভোজালির আঘাতে রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তাতেই লুটিয়ে পড়েছিলেন তিনি। হাসপাতালে নিয়ে গেলে হেমন্তবাবুকে মৃত ঘোষণা করা হয়েছিল।

সেই স্মৃতিকে সম্মান জানাতেই বদলে গিয়েছিল টালা সেতুর নাম। তবে তার পরেও এত দিন শহরবাসীর মনে থেকে গিয়েছিল টালা সেতু পরিচয়ই। নতুন সেতু হবে ঠিকই। কিন্তু নতুন সেতুর সঙ্গে এই সময়-চিহ্নগুলি থাকবে কি না, সংশয়ী সকলেই।

আরও পড়ুন

Advertisement